অধ্যক্ষের অপসারণের দাবীদের বিক্ষোভ, পালিয়েছেন শিক্ষক

0

লাইভ নারায়ণগঞ্জ : নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁও উপজেলার সোনারগাঁ জি.আর ইনিষ্টিউশন স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ সুলতান আহাম্মেদ এর বিরুদ্ধে বিভিন্ন অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে। গতকাল সোমবার সকালে ৫ শতাধিক শিক্ষার্থী ওই দুর্ণীতিবাজ শিক্ষকের অপসারণের দাবীতে বিক্ষোভ মিছিল ও গণস্বাক্ষর দিয়েছেন। এ সময় উত্তেজিত শিক্ষার্থীদের ভয়ে পিছনের দরজা দিয়ে পালিয়ে গেছেন ওই শিক্ষক।

স্কুলের শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা জানান, গতকাল সোমবার সকাল ১০ ঘটিকায় দশম শ্রেণীর নির্বাচনী পরীক্ষার জন্য শিক্ষার্থীরা বিদ্যালয়ের কক্ষে উপস্থিত হন। এ সময় বকেয়া বেতন ও পরীক্ষার ফি না দেওয়ায় প্রায় শতাধিক শিক্ষার্থীকে ক্লাস থেকে বের করে দেয় ওই প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষ সুলতান আহাম্মেদ। পরে সকল শিক্ষার্থীরা ক্লাস রুম ও পরীক্ষার বর্জন করে সুলতানা আহাম্মেদের অপসারণের দাবীতে বিক্ষোভ মিছিল ও গণস্বাক্ষর করে। এ সময় সোনারগাঁ পৌরসভার ৫নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর ও ওই বিদ্যালয়ের অভিভাবক প্রতিনিধি সদস্য দুলাল মিয়ার হস্তক্ষেপে শিক্ষার্থীরা ক্লাস ও পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করে।

তারা আরোও বলেন, দুর্ণীতিবাজ অধ্যক্ষ সুলতান আহাম্মেদ বিভিন্ন অজুহাতে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত টাকা আদায় করে অবৈধ ভাবে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন। এছাড়া বিদ্যালয়ের পরিচালনা কমিটির কাছে গত দুই বৎসর যাবত হিসাব না দিয়ে প্রায় ২৯ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন। তিনি শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের সাথে অসাদাচরণ সহ বিভিন্ন রকম খারাপ আচরণ করে থাকে। তার এ রকম ব্যবহারে অনেক শিক্ষার্থী স্কুল ছেড়ে অন্যত্র চলে গেছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিদ্যালয়ের কয়েকজন শিক্ষার্থী জানান, কোন শিক্ষার্থী স্কুলের বেতন ও পরীক্ষার ফি দিতে না পারলে তাদের অভিভাবকদের স্কুলে ডেকে এনে তাদের সঙ্গে খারাপ আচরণ করেন এবং ওই শিক্ষার্থীদের কুপ্রস্তাব সহ বিভিন্ন ভাবে হয়রানি করে আসছে। আমরা লোক লজ্জার ভয়ে অনেক কিছু মুখ বুজে সহ্য করি।

স্থানীয় অভিভাবক নুরুজ্জামান বলেন, অধ্যক্ষ সুলতান আহাম্মেদ দীর্ঘদিন যাবত এই পদে থেকে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের বিভিন্ন ভাবে হয়রানি করে আসছেন। তার কুকর্মের প্রতিবাদ করলে বিভিন্ন ভাবে হয়রানি হতে হয় আমাদের। আমরা এই দূর্ণীতিবাজ শিক্ষক সুলতান মিয়ার অবিলম্বে অপসারণ দাবী করছি।

সোনারগাঁ পৌরসভার ৫নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর ও ওই বিদ্যালয়ের পরিচালনা কমিটির সদস্য দুলাল মিয়া বলেন, শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে বিভিন্ন সময়ে নামে বেনামে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন অধ্যক্ষ সুলতান আহাম্মেদ। গত দুই বৎসর যাবত বিদ্যালয়ের হিসাব চাইতে গেলে তিনি তালবাহানা শুরু করেন। তিনি বলেন, গতকাল সকালে শিক্ষার্থীদের পরীক্ষার কক্ষ থেকে বের করে দেওয়ার সংবাদ শুনে আমি বিদ্যালয়ের উপস্থিত হয়ে ওই সকল শিক্ষার্থীদের পরীক্ষার দেওয়া ব্যবস্থা করি।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে সোনারগাঁও জি আর ইনিষ্টিউশন স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ সুলতান আহাম্মেদ বলেন, আমি বিদ্যালয়ের কাজে বাহিরে অবস্থান করছি। এ বিষয়ে আমি আপনারদের সঙ্গে পরে কথা বলবো।

সোনারগাঁ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা অঞ্জন কুমার সরকার বলেন, এ বিষয়ে লিখিত অভিযোগ পেলে অধ্যক্ষ সুলতান আহাম্মেদের বিষয়ে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

প্রসঙ্গ, ২০১৭ সালের ১২ ডিসেম্বর ওই বিদ্যালয়ের এসএসসি পরীক্ষার অকৃতকার্য হওয়ার কারণে অধ্যক্ষ সুলতান আহাম্মেদের ধারস্থ হয়েও ফরম পূরন করতে না পেরে ক্ষোভে ও লোকলজ্জায় রাতে ঘরের আড়ার সঙ্গে দড়ি প্যাঁচিয়ে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করে আমেনা আক্তার (১৭) নামে এক স্কুল ছাত্রী। অতপর সোনারগাঁ জি আর ইনিষ্টিটিউশন মডেল স্কুল এন্ড কলেজের সামনে শিক্ষার্থীরা প্রিন্সিপাল সুলতান মিয়ার দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তির দাবী জানিয়ে মানববন্ধন করেছিল।

0