অনির্দিষ্টকালের লকডাউন না.গঞ্জের সকল প্রতিষ্ঠান, ফাকাঁ শহর!

0

হা‌মিদুল শুভ ও আলী হো‌সেন, লাইভ নারায়াণগঞ্জ: বৃহস্পতিবার (২৬ মার্চ) থেকে ছুটি ভোগ করছে সরকারি-বেসরকারি অফিসের কর্মকর্তা কর্মচারীরা। তাদের চলবে ৪ এপ্রিল পর্যন্ত। ২৯ মার্চ থেকে ২ এপ্রিল পর্যন্ত সুপ্রিম কোর্টসহ দেশের সব আদালতে সাধারণ ছুটি।

বৃহস্পতিবার সকালে শহর ঘুরে দেখা যায়, বুধবার সড়কে গণপরিবহন সীমিত আকারে দেখা গেলেও আজ কোন পরিবহনই ছিল না। রিকসাও আগের মতো পরিলক্ষিত হচ্ছে না। কিছুক্ষণ পর পর আসছে দু-একটি রিকসা। খোলা রয়েছে কিছু খাবারের হোটেল।

এদিকে নারায়ণগঞ্জে পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত জেলার সকল প্রতিষ্ঠান-যানবাহন বন্ধ রাখার ঘোষণা দেয়া হয়েছে। জেলা প্রশাসকের নির্দেশনায় বলা হয়, করোনা ভাইরাস বিস্তার রোধে পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত সকল দোকানপাট, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও যানবাহন বন্ধ থাকবে। তবে কাঁচা বাজার, মুদি দোকান, খাবারের দোকান, হাসপাতাল ও জরুরী পরিসেবা এ আদেশের আওতামুক্ত থাকবে।

করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ রোধের অন্যতম নির্দেশনা জনসমাগম রোধ করতে বাস, ট্রেন, নৌযান, অভ্যন্তরীণ ফ্লাইট, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, বিপণিবিতান বন্ধ রাখা হয়েছে। তবে প্রয়োজন অনুসারে সংশ্লিষ্ট সরকারি দপ্তর, কাঁচাবাজার, ওষুধের দোকান, হাসপাতাল, ফায়ার সার্ভিসসহ অন্যান্য জরুরি সেবাপ্রতিষ্ঠান খোলা থাকবে। সীমিত পরিসরে প্রতিদিন দুই ঘণ্টা ব্যাংকও খোলা।

এমনিতেই কয়েক দিন ধরে নারায়ণগঞ্জ শহর অনেকটাই ফাঁকা। বন্ধ রয়েছে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। গণপরিবহনও অনেকটাই কম, বুধবার সীমিত আকারে চললেও বৃহস্পতিবার সড়কে দেখা মিলেনি কোন গণপরিবহনের। এই অবস্থা আজ আরো প্রকটভাবে দৃশ্যমান। প্রয়োজনীয় কাজ ছাড়া ব্যক্তিগত যানবাহন নিয়েও কেউ বের হচ্ছেন না। এরপর সেনাবাহিনী মাঠে নামায় মানুষের স্থানান্তর আরো অনেকটা কমে এসেছে।

যদিও ট্রাক, কাভার্ডভ্যান, ওষুধ, জরুরি সেবা, জ্বালানি, পচনশীল পণ্য পরিবহন নিষেধাজ্ঞার বাইরে রয়েছে।

0