অপরাধীদের জন্য রেড এলার্ট, চলচ্চিত্রের ‘সুপার পুলিশ’ এখন নারায়ণগঞ্জে!

0

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, লাইভ নারায়ণগঞ্জঃ হলিউডের রহস্যজনক থ্রিলারগুলোতে যেমন ধুরন্ধর ভিলেনের দেখা মেলে, তাদের ক্লুলেস অপরাধগুলো সমাধান করতে হিমশিম খায় সাধারণ পুলিশরা। তখন তারা শরণাপন্ন হন স্পেশাল ইউনিটের। রক্তে মিশে যাওয়া সায়ানাইড, নখের কোনায় লেগে থাকা মাটির কণা থেকে শুরু করে গলিত লাশ থেকে নিহত ব্যক্তির পরিচয় বের করা, এমন অনেক মামলার সমাধান করেন তারা যা সাধারণ মানুষের কাছে অকল্পনীয়। এসব কাজে এই সুপার পুলিশদের যেসব সরঞ্জাম ব্যবহৃত হয়, তা এখন নারায়ণগঞ্জ পিবিআই’র কাছে।

বৃহস্পতিবার (২০ আগস্ট) এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ দাবি করেন নারায়ণগঞ্জ পুলিশ ব্যুরো অফ ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) পুলিশ সুপার মনিরুল ইসলাম।

তিনি জানান, “আমাদের তদন্ত ট্রেডিশনাল তদন্ত থেকে একেবারেই আলাদা। আমাদের একটা ক্রাইম সিন ভ্যান আছে। সাইন্টিফিক ওয়েতে ইনভেস্টিগেট করা হয়। বিশ্বের যতো মডার্ন টেকনোলজি আছে সব আছে আমাদের।”

একই সাথে অপরাধীদের জন্য দিয়েছেন সতর্ক বার্তা। তিনি বলেন, “এটা অপরাধীদের জন্য একটা মেসেজ, রেড সিগন্যাল। আপনারা অপরাধ করবেন, জানবেন না যে লিড রেখে যাচ্ছেন। আমরা সেটা কালেক্ট করে নিয়ে আসবো। সাইন্টিফিক উপায়ে ইনভেস্টিগেট করবো। অপরাধ করে কখনোই পার পাওয়া যায় না। সময় লাগতে পারে দুই বছর পাঁচ বছর, পুলিশকে ফেস করতেই হবে।”

এসম্পর্কে তিনি বলেন, যেসব গলিত লাশ পাওয়া যায়, তাদের ফিংগার প্রিন্ট থেকে আইডেন্টিটি বের করে থাকি। আসামী যখন কোনো অপরাধ করে, তারা অনেক কিছুই রেখে যায়!

ইতোমধ্যেই পিবিআই রূপগঞ্জে এমনই একটা স্পেশাল কেস সমাধান করেছে। গলিত এক লাশ থেকে বিশেষ পদ্ধতিতে ফিংগার প্রিন্ট বের করে পরিচয় বের করেছে তারা। এ কাজে তাদের সাহায্য করেছে ন্যাশনাল আইডি’র ডাটাবেজ।

 

নিউজ পড়তে ক্লিক করুন

ফোনের সূত্র ধরে শাকিল খুনের রহস্য উদ্ঘাটন, গ্রেপ্তার ৩

0