অবশেষে সেই হাতুড়ি পড়া ভবনের নির্মাণ কাজ বন্ধ

লাইভ নারায়ণগঞ্জ: হাতুড়ি পড়ে অল্পের জন্য এক গৃহবধূ ও তার শিশু ছেলে রক্ষা পাওয়ার ঘটনায় ভবনটির নির্মাণ কাজ বন্ধ করে দিয়েছে প্রশাসন। বাড়ির মালিক ভবনটির ডেভেলপার প্রতিষ্ঠান রাজউকের কোন অনুমোদন দেখাতে পারেনি। তাই সেই ভবনটির নির্মাণ কাজ বন্ধের নির্দেশ দিয়েছে।

নারায়ণগঞ্জ শহরের অক্টো অফিস মোড়ে অবস্থিত সেই ভবন ১৭ আগস্ট জেলা প্রশাসন ও ফতুল্লা থানা পুলিশের নির্দেশে পরির্দশনে উপ-পরিদর্শক (এসআই) পলাশ।

গত ১৬ আগষ্ট বিকেল পৌনে ৬টার দিকে নারায়ণগঞ্জ শহরের ইসদাইর অক্টো অফিস মোড় এলাকায় ৭ তলা ভবন থেকে হাতুড়ি পড়ে অল্পের জন্য রক্ষা পেয়েছেন এক গৃহবধূ ও তার শিশু ছেলে। নির্মাণাধীন ৭ তলা ভবনটি থেকে হাতুড়ি পড়ে টাইলস ভেঙ্গে যাওয়া ছবি ও যেই মিস্ত্রির হাত থেকে হাঁতুড়ি পড়ে গিয়েছে তার স্বীকারোক্তিমূলক বক্তব্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে। নির্মাণাধীন ভবনটিতে কোন রকম নিরাপত্তা বেষ্টনী ছিল না। এ নিয়ে এলাকার সাধারণ মানুষ চরম ক্ষোভ প্রকাশ করে।

বুধবার গণমাধ্যমে ৭ তলা ভবন থেকে হাতুড়ি পড়ে অল্পের জন্য এক গৃহবধূ ও তার শিশু ছেলে রক্ষা পাওয়ার ঘটনা নিয়ে সংবাদ প্রকাশিত হলে বিষয়টি নজরে আসে নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসনের। অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) রহিমা আক্তার ঘটনাটি তদন্ত করে দেখার জন্য সদর উপজেলা পরিষদের নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) রিফাত ফেরদৌসকে নির্দেশনা দেন। এরপর ইউএনও বিষয়টি ফতুল্লা মডেল থানার ওসি রিজাউল হক দিপুকে জানালে তিনি ঘটনাস্থলে পুলিশের একটি টিম পাঠান।

ঘটনাস্থলে যাওয়া ফতুল্লা মডেল থানার এসআই পলাশ জানান, ভবনটির ডেভেলপার প্রতিষ্ঠান রিলায়েন্স এর মালিক পাভেল জানিয়েছেন ফ্ল্যাট মালিক সেলিম তার ফ্ল্যাট এই কাজ করেছেন। এই কাজের জন্য তারা দায়ী নন। তবে এসময় ডেভেলপার প্রতিষ্ঠানের মালিক পাভেল রাজউকের কোন কাগজ দেখাতে পারেনি।

ফতুল্লা মডেল থানার ওসি রিজাউল হক দিপু জানান, ভবনটির নির্মাতা প্রতিষ্ঠান রাজউকের কোন কাগজপত্র দেখাতে পারেনি। যে কারণে আমরা ভবনটির নির্মাণ কাজ বন্ধের নির্দেশনা দিয়েছি।

উল্লেখ্য, কয়েক মাস আগে শহরের চাষাঢ়া-মিশনপাড়া সংযোগ সড়কে নির্মাণাধীন ১১ তলা ভবন থেকে লোহার শাবল মাথায় পড়ে ঘটনাস্থলেই মারা যান সাবেক ফুটবলারের স্ত্রী। সেই ঘটনায় মামলা হলেও এখানে অর্থলোভী অনেক ডেভেলপাররা নিরাপত্তা বেষ্টনী ছাড়াই বেপরোয়াভাবে নির্মাণ কাজ চালাচ্ছেন