আইভীকে চ্যালেঞ্জ, পরিবর্তনের হাওয়া

লাইভ নারায়ণগঞ্জ: নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদে ৪ জন আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়পত্র সংগ্রহ করেছেন। রোববার (২৮ নভেম্বর) রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউ কার্যালয়ে দলের মনোনয়ন ফরম বিক্রি শুরু হলে প্রথম দিনে ১ জন এবং ২য় দিনে আরও ৩ জন নৌকা প্রত্যাশী মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন।

আওয়ামী লীগের মনোনয়ন ফরম বিক্রির ২য় দিনে সর্বশেষ তথ্য মতে, নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ সভাপতি চন্দন শীল এর মনোনয়ন পত্র সংগ্রহ করেন তার ছেলে অরিজিৎ সাহা। বিদায়ী মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভীর পক্ষে মনোনয়ন ফরম কিনেছেন তার ভগ্নিপতি ও জেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি আবদুল কাদির। একই দিন মনোনয়ন ফরম কিনেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এড. আবু হাসনাত শহীদ বাদল ও মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এড. খোকন সাহা। আবু হাসনাত শহীদ বাদল নিজে উপস্থিত হয়ে মনোনয়ন ফরম কিনেন। অপরদিকে খোকন সাহার পক্ষে মনোনয়ন ফরম কিনেছেন তার রাজনৈতিক সচিব সুজিত সরকার।

জানা গেছে, বিদায়ী মেয়র আইভী এবার দলের ভেতরেই কঠিন চ্যালেঞ্জের মুখে পড়েছেন। ইতোমধ্যে, তার বিরুদ্ধে নানা দুর্নীতি, অনিয়মের অভিযোগ যেমন উঠেছে, তেমনি নগরবাসীকে নাগরিক সুবিধা দিতে ব্যর্থ হয়েছেন বলেও নিজ থেকে শুরু করে বিভিন্ন রাজনৈতি নেতাকর্মীরা দাবি করেছেন। আর নগরবাসী তাদের দুর্ভোগ-ভোগন্তির কথা প্রতিনিয়তই হজম করছেন। তিনি ছাড়াও মেয়র পদে এবার আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী ছাত্রলীগ থেকে উঠে আসা বাবু চন্দন শীল। যিনি ২০০১ সালে চাষাড়ায় ভয়াবহ বোমা হামলায় দুই পা হারান। দু পা হারিয়েও অদম্য এই রাজনীতিক দলীয় সভা-সমাবেশে সবার আগে উপস্থিত থাকেন এবং জোরালো ভূমিকা রেখে আসছেন।

অপর মনোনয়ন প্রত্যাশী এড. খোকন সাহা ও আবু হাসনাত শহীদ বাদল জেলা ও মহানগরে দীর্ঘদিন নেতৃত্ব দিয়ে আসছেন। কয়েক বছর ধরে তারা নগরীর প্রতিটি ওয়ার্ডে কর্মীসভার পাশাপাশি বিগত ১৮ বছরে নগরবাসীর নানা চাওয়া-পাওয়ার কথা শুনছেন, জেনেছেন সাধারণ মানুষের আগামীর প্রত্যাশা। তাদের হাত ধরে তৃণমূল নেতা-কর্মীরা স্বপ্ন বুনছেন- ‘যুদ্ধাপরাধী, বিএনপি-জামায়াতের সঙ্গে আঁতাত করে রাজনীতি করা কোন নেতাকে আর যেন দলীয় হাইকমান্ড মনোনয়ন না দেন’।

১৯৭৫ বঙ্গবন্ধু হত্যার পরে ছাত্রলীগে যোগ দিয়ে এড. খোকন সাহা নানা বাধা-বিপত্তি পাড় হয়ে ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক থেকে শুরু করে আওয়ামী লীগের বিভিন্ন পদে দায়িত্ব পালন করে আসেন। গত ২৬ বছর ধরে নারায়ণগঞ্জ শহর পরবর্তীতে মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে রয়েছেন। কর্মী বান্ধব নেতা হিসেব ব্যাপক পরিচিতি তার।

উল্লেখ্য যে, ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের তফসিল ঘোষনার আভাস দিয়েছেন নির্বাচন কমিশন। তবে তফসিল ঘোষনার আগেই ক্ষমতাসীন দল আওয়ামীলীগ নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র পদের জন্য দলীয় মনোনয়ন ফরম বিক্রি শুরু করেছে। ১ ডিসেম্বর পর্যন্ত মনোনয়ন ফরম বিক্রি ও জমা নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ঠরা। ৩ ডিসেম্বর বহুল আলোচিত নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে নৌকার প্রার্থী কে হচ্ছেন তা ঘোষনা করবে আওয়ামীলীগ। সিটি নির্বাচনকে ঘিরে নারায়ণগঞ্জবাসীর দৃষ্টি এখন কেন্দ্রের দিকে। কে হচ্ছেন আওয়ামীলীগের মেয়র প্রার্থী? তা জানতে উদগ্রিব সবাই।