আবরার হত্যাকাণ্ডের আন্দোলনে না.গঞ্জের প্রগতিশীল ছাত্র জোটের সংহতি

0

লাইভ নারায়ণগঞ্জ: বুয়েট শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদের হত্যাকাণ্ডকে কেন্দ্র করে এই আন্দোলনের সাথে সংহতি জানিয়েছেন নারায়ণগঞ্জ প্রগতিশীল ছাত্র জোট। দলটির নেতাকর্মীরা বিচারের দাবিতে নগরীতে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছেন।

মঙ্গলবার (৮ অক্টোবর) সকালে চাষাঢ়া শহীদ মিনারে এ কর্মসূচী পালন করা হয়।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন, সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্ট জেলা সভাপতি সুলতানা আক্তার, সাধারণ সম্পাদক বিল্লাল হোসেন, বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন জেলা সভাপতি সুমাইয়া সেতু প্রমুখ।

সুমাইয়া সেতু বলেন, যখন বিশ্বজিৎকে কুপিয়ে হত্যা, হাফিজুলকে হত্যা, নারায়ণগঞ্জের মেধাবী ছাত্র ত্বকীকে হত্যা করা হয়েছিলো। তখনও আমরা হয় শহীদ মিনারে কিংবা প্রেসক্লাবের সামনে এসে দাঁড়িয়েছি। কিন্তু লাশের মিছিল থামছে না, ধীরে ধীরে বাড়ছে। আমরা যদি তাদের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়তে পারতাম, বিশ্বজিৎ কিংবা হাফিজুল হত্যার খুনিদের বিচার করতে পারতাম। তাহলে আবরার হত্যা হতো না। নুসরাত কিংবা ত্বকীর নাম লাশের মিছিলে যুক্ত হত না।

সুলতানা আক্তার বলেন, প্রতিরাতে ভাবি ঘুম থেকে উঠে আমি ঠিক থাকবো কিনা, আমি বেচে থাকবো কিনা। নাকি ওই সন্ত্রাসী বাহিনীর দ্বারা নির্যাতনের শিকার হবো। আমার কোনো না কোনো ভাই, বোন নির্যাতনের শিকার হবে। সেই আতঙ্ক নিয়ে ভোর হয়। প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে যেখানে দেশের সর্বোচ্চ মেধাবীরা লেখাপড়া করে। যারা আগামী দিনের দেশের ভবিষ্যৎ, অথচ তাদের অবস্থা আজ কি। আবরারকে সন্ধ্যার পর নিয়ে যাওয়া হয়। রাত তিনটায় খবর আসে সে মারা গেছে। যখন আবরারকে খুজে পাওয়া যাচ্ছিল না, এবং পরে ওর লাশ পাওয়া যায় তখন ওই বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য বিশ্ববিদ্যালয়ে ঢুকতে দেয়নি। এমনকি তিনি খোঁজ পর্যন্ত নেননি।

0