আমরা অর্থনৈতিক সংকটের দিকে যাচ্ছি: মোহাম্মদ হাতেম

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, লাইভ নারায়ণগঞ্জ: তৈরি পোশাক শিল্প মালিকদের শীর্ষ সংগঠন বিকেএমইএ’র নির্বাহী সভাপতি মোহাম্মদ হাতেম বলেছেন, ইউক্রেন রাশিয়ার যুদ্ধে কারণে রপ্তানির যে গ্রোথ হচ্ছিলো এটাও কিন্তু একটা চ্যালেঞ্জের মধ্যে পড়েছে। গতকাল একটা আন্তর্জাতিক জরিপে দেখলাম সারা বিশ্বের ৬০ ভাগ বড় বড় কোম্পানির সিইওরা আসংঙ্কা করছে আগামী ১২ থেকে ১৮ মাসের মধ্যে একটা ভয়াবহ অর্থনৈতিক সংকট হতে যাচ্ছে। আবার কিছু সংখ্যক সিইওরা বলছে এটা এখনি শুরু হয়ে গেছে। আর শুরু যে হয়ে গেছে এটা আমরা টের পাচ্ছি। কারণ আমাদের ক্রেতারা কিন্তু গত কিছু দিন এক্সপোর্টের যে অর্ডার প্লেস করা শুরু করেছিলো বা যে ইনকোয়ায়রি দিচ্ছিলো সেটা কিন্তু এখন হটাৎ করে কমে আসছে।

দেশের বেসরকারি টোলিভিশনের এক টক-শোতে মোহাম্মদ হাতেম এসব কথা বলেন।

মোহাম্মদ হাতেম বলেন, একটার পর একটা দুর্যোগের মধ্য দিয়ে আমাদের যেতে হচ্ছে। কোভিড পরিস্থিতি একটা পর্যায়ে কমে এসেছিল, তখন হয়তো ভেবেছিলাম আমরা সবাই সুস্থ হয়ে কাজে নেমে পরেছি। এদিকে ইউক্রেন রাশিয়ার যুদ্ধ সারা বিশ্বের অর্থনিতিকে একটা টাল মাটাল পরিস্থিতিতে নিয়ে গেছে। এর মধ্যে আবার আমাদের দেশে ভয়াবহ বন্যা। আমরা যেটা দেখছি স্মরণকালে মনে হয় এত বড় বন্যা আর কখনো হয়নি। সব কিছু মিলিয়েই কিন্তু আমরা ভালো অবস্থানে নেই।

তিনি বলেন, তারা বলছে আমাদের সেল কমে গিয়েছে, অর্থাৎ একটা অর্থনৈতিক মন্দার মধ্যে পরেছে। কিছুদিন আগে ইউএস তাদের ডলারের ইনভেস্টমেন্ট এর বিপরিতে তাদের ইন্টারেস্ট রেট বাড়িয়েছে। এই সব কিছু মিলিয়েই কিন্তু আমরা একটা সংকটের দিকে যাচ্ছি।

দেশেল অন্যতম এই ব্যবসায়ী নেতা আরও বলেন, আমাদের ডলার সংকট, রেমিটেন্স কমছে, রিজার্ভ কমছে সব মিলিকে একটা অশনি সংকেত আমরা দেখছি। আজ আমাদের পদ্মা সেতু উদ্বোধন হতে যাচ্ছে। বাংলাদেশের কয়েকটা মেগা প্রজেক্ট এর কাজ সম্পন্য হতে যাচ্ছে, এতে আমরা একটু আশার আলো দেখতে পাচ্ছি। তবে আমাদের ধারণা, মাননিয় প্রধানমন্ত্রী যে ভাবে একক ভাবে নেতৃত্ব দিয়ে দেশটাকে অর্থনৈতিক সমৃদ্ধির দিকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন যদি আমাদের সবার সম্মিলিত সহযোগিতা থাকলে আমরা হয়তো এই সংকটটাকে কাটিয়ে উঠতে পারবো।

আমরা যদি রপ্তানি খাতকে বিবেচনা করি তা হলে প্রথমে আমি বলবো সারা বিশ্বে অর্থনৈতিক মন্দা। তখন জ্বালানি তেলের দাম বেড়েছে, গ্যাসের দাম বাড়লো, গত বছর বিদ্যুতের দাম বেড়েছে। কোন জিনিসটার দাম বাড়েনি? আমাদের উৎপাদন ব্যায় বেড়েছে।

তিনি বলেন, এই যে সব কিছুর দাম বাড়লো তার মানে কি আমার প্রফিটটা কি বেড়ে গেলো? এনবিয়ার তো মনে করছে তাই। আমাদের সোর্স টেক্স ছিলো পয়েন্ট ৫। এটি ডাবল করে ১ পারসেন্ট করে দেয়া হলো। কিন্তু সেখানে আবার আইনের মাধ্যমে আমাদের নির্যাতিরে ব্যবস্থা করা হলে। কারণ এডভান্স ইনকামটেক্স কেটে নেয়া হচ্ছে তার মানে কি? পরবর্তিতে আমি রিটার্ন দাখিল করবো যে আমার কাছে এই পরিমান টেক্স না হয়ে থকলে তা ফেরত চাইবো। কিন্তু সেখানে রির্টানের কোন ব্যবস্থা নাই এবং সমন্নয়য়ের ও কোন ব্যবস্থা নাই। এই যে অত্যচার এই যে নিয়ম আমরাতো মনে করি আমাদের উপর বে আইনি ভাবে অত্যাচার করা হচ্ছে।