শয়তান-অসভ্য মানুষের কথায় থামবো না: খোরশেদ

0

স্টাফ করেসপন্ডেস্ট, লাইভ নারায়ণগঞ্জ: আমরা টেলিভিশনে দেখতে পাই, কেউ মারা গেলে করোনায় আত্মীয়-স্বজন সামনে আসে না। পাড়া-প্রতিবেশিও সামনে আসে না। এমতাবস্থায় দাফন কাফনে সমস্যা হচ্ছিলো। তখন আমি আগ্রহ প্রকাশ করি আমাদের স্বেচ্ছাসেবকদের নিয়ে, আমরা এই দাফন করতে চাই। সেটা ছিল সম্পূর্ণই মানবিক কারণে এবং আল্লাহকে খুশি করার জন্য।

৩ মে (রবিবার) দুপুরে ফেসবুক লাইভে এসে এমনটাই জানালেন বর্তমান সময়ের সবচেয়ে আলোচিত সেই ‘মানবিক খোরশেদ’।

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের ১৩নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মাকছুদুল আলম খন্দকার খোরশেদ দুপুরে লাইভে থাকবেন সেকথা আগেই জানিয়ে দিয়েছিলেন স্যোশাল মিডিয়াতে তার নিজেস্ব আইডিতে।

বার্তায় খোরশেদ বলেন, আমি আপনাদের কাছে আজকে অনেকদিন পরে কয়েকটি জরুরি বিষয় শেয়ার করার জন্য উপস্থিত হয়েছি। আমরা করোনা বিষয়ে অনেক আগে থেকেই( জানুয়ারির মাঝামাঝি থেকেই) ফেসবুকে বিভিন্ন ধরনের পোস্ট দিয়ে, পোস্টার বানিয়ে, মানুষকে সচেতন করার চেষ্টা করেছিলাম। পর্যায়ক্রমে বাংলাদেশে প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হওয়ার পরে আমরা লিফলেট তৈরি করি এবং সেগুলি প্রচার করি, বিজ্ঞাপন দেই। মসজিদে মন্দিরে আলোচনা করি।

করোনা বীর খোরশেদ বলেন, একটা মানুষ মুসলমান কিংবা হিন্দু যেই হউক, মৃত্যুর পরে সে সম্মানের সাথে সমাহিত হবে এটা আমাদের নৈতিক দায়িত্ব। এ সঙ্কটায়নের জন্য আমরা সরকারিভাবে ডিসি এবং মেয়র মহোদয়ের কাছে আবেদন করি। ইতিমধ্যে লন্ডনের একজন ডাক্তার লাইভে এসে আমাদের প্রশিক্ষণ দেন, আমরা ওয়াটার এরিয়ার কাছে প্রশিক্ষন নেই। এবং ধর্মীয় বিধি-বিধানগুলো সকলের কাছে থেকে জানার চেষ্টা করি।

তিনি বলেন, আমাদের সিকিউরিটি সিস্টেম, আমাদের যে নিরাপত্তা পোষাক, এগুলি আমরা বিভিন্নভাবে (ইপিউএল ফাউন্ডেশন, টাইম টু গিব, আইক্যান) বিভিন্ন ফাউন্ডেশন সহায়তা করে। আমরা ৮এপ্রিল থেকে কাজ শুরু করি, আজ পর্যন্ত আমরা ৩৭জনকে দাফন এবং সৎকার করেছি। এরমধ্যে ৬জন ছিল হিন্দু ভাই-বোন, ৩১জন মুসলিম এবং এর মধ্যে ৫জন আছেন যারা স্বাভাবিক ভাবেই মৃত্যুবরণ করেছেন। আর বাকি ৩২জন তারা করোনা উপসর্গ নিয়ে এবং অনেকেই করোনা পজেটিভ হয়ে বিভিন্ন হসপিটালে ইন্তেকাল করেছেন।

খোরশেদ সকলের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে জানান, আমরা এই কাজটি শুরু করার পরে ব্যাপক সাড়া পাই। আল্লাহর রহমতে, আপনারা আমাদের অনেক ভালোবাসা দিয়েছেন, সমর্থন দিয়েছেন এবং আমাদের ব্যাপক পরিচিতি গড়ে উঠে। আপনাদের ভালোবাসায় এবং আল্লাহর রহমতে আজও পর্যন্ত আমাদের টিম সুস্থ আছে এবং যতদিন আমার অসুস্থ না হয়ে পড়ি ততদিন এই কাজটা আমরা করতে চাই।

অনেকটা ক্ষোভ প্রকাশ করে খোরশেদ জানান, আমি এখন একটা খ্যাতির বিড়ম্বনার মধ্যে পড়ে গেছি। অনেকেই এটাকে শত্রুতা মনে করছেন। কেউ রাজনৈতিক কাজ মনে করছেন, কেউ মনে করছেন নির্বাচনী কাজ। অনেকেরই ব্যক্তিগত আক্রোশের শিকার হচ্ছি। বিনা কারণে বিতর্কিত করছে। নগ্ন রাজনীতি শুরু করেছে। যেটা খুবই লজ্জার। এখন ভালো কাজ করতে এসে আমরা নিজেকে লজ্জিত মনে করছি।

তবে, কঠিন দৃঢ়তায় খোরশেদ স্পষ্টভাবে জানিয়ে দিয়েছেন, “আমরা ২-৪টা শয়তানের কথায়, ২-৪টা অসভ্য মানুষের কথায় থামবো না। যেহেতু, আমাদের উদ্দেশ্যে মহত, একমাত্র মানবসেবা এবং আল্লাহকে রাজি খুশি করানো। অতএব, আমাকে মেরে ফেলা না পর্যন্ত আমাকে এভাবে অপ্রচার করে দমন করা যাবে না। এটা আমি আমার প্রতিপক্ষের প্রতি সবিনয়ে বলতে চাই। আর আমরা যেন সবাই, আল্লাহকে খুশি করার চেষ্টা করি”।

 

এলএন/এমএইচ-এইচএস/০৫০৪-০৩

0