আমি বোকা হয়েই থাকতে চাই: এমপি খোকা

0

লাইভ নারায়ণগঞ্জ: নারায়ণগঞ্জ-৩ আসনের ( সোনারগাঁ ) সংসদ সদস্য লিয়াকত হোসেন খোকা বলেছেন, আল্লাহর হুকুম ব্যতিত আমি সংসদ সদস্য নির্বাচিত হইনি। আমার দল, আমার কর্মী এরা একটি উসিলা। এই সোনারগাঁয়ের প্রতিটা মানুষ আল্লাহর প্রকৃত বান্দা। এই বান্দাদেরকে দেখে রাখার জন্য, এই বান্দাদের হাসি মুখে রাখার জন্যই আমাকে এইখানে এই দায়িত্বটা দিয়েছেন।

বুধবার (৩০ ডিসেম্বর) বিকেলে পৌরসভার উদ্ধবগঞ্জ শাহাপুর এলাকায় পৌরসভার ৮ ও ৯ নং ওয়ার্ডের ১০টি মাটির রাস্তা ও ২টি পাকা ঘাটলার উদ্বোধন এবং করোনা ভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

এমপি খোকা বলেন, স্বাধীনতার ৫০ বছর পর এই সোনারগাঁয়ে যে উন্নয়ন হওয়ার কথা ছিলো তা হচ্ছে না। আমি খুঁজে খুঁজে দেখেছি, আমার মানুষের সমস্যা গুলো কি। আমি সোনারগাঁয়ের প্রতিটি মানুষের মুখে হাসি ফুটানোর জন্য রাত দিন চেষ্টা করেছি। অনেকে বলে আমি নাকি এমপি হয়ে বিদেশে বাড়ি করেছি। অনেকে বলে সোনারগাঁয়ের এমপি কোটি কোটি টাকার মালিক হয়েছে। আমি শুধু এতটুকুই বলি, আমি শুধু সোনারগাঁয়ের মানুষের দোয়া কামিয়েছি এবং এটাই আমার সবচেয়ে বড় অর্জন। সোনারগাঁয়ের মানুষের জন্য কাজ করে আমি কখনো ক্লান্ত মনে করি না, মনে করি আর একটু সময় দিলে কাজটি হয়তো সুন্দর ভাবে হয়ে যাবে।

এমপি খোকা আরো বলেন, এমপি হওয়ার আগে আমি সব শ্রেনির, পেশার মানুষের সাথে থেকেছি, তাদের বাসায় গিয়েছি। সোনারগাঁয়ের এমপি হয়ে কাজ করবো এ চিন্তা আমার কখনোই ছিলো না। এমপি হওয়ার পর সবার আগে আমি দেখেছি আগের যে এমপি ছিলো, তাদের সাথে সাধারন মানুষের সম্পর্ক কতটুকু ছিলো। আগে আমি ঢাকায় থাকতাম। আমাকে কেউ বলেছিলো যে সোনারগাঁয়ের আগের এমপি নাকি ঢাকায় থাকতো। অনেক মানুষ তাদের সমস্যার সমাধান করতে ঢাকা যেতে পারত না। তাই এমপি হওয়ার পর আমি নারায়ণগঞ্জ চলে এসেছি। কারন এখানের মানুষ যাতে আমাকে তাদের বিপদের সময় পাশে পায়। আগের এমপি যারা ছিলেন তাদের সাথে দেখা করতে নাকি তাদের পরিবারের লোকজনের সাথে আগে দেখা করতে হতো। তার পর তাদের সাহায্যে সেই এমপির সাথে দেখা করার সুযোগ পেতো। আমার কাছে যদি কেউ অন্য কোন মানুষের সাহায্যে আসেন, তাহলে তার কাজ আমি করবো না। আপনাদের অধিকার আছে আমার সাথে সরাসরি দেখা করার, আমার সাথে কথা বলার। আমি কারো মত চালাক হয়ে থাকতে চাইনা। আমি সাধারন মানুষের সাথে বসবো, তাদের সাথে কথা বলবো, তাদের সাথে খাবো। আমি বোকার মতো হয়েই সবার মাঝে থাকতে চাই। আমি এমপির পরিচয়ে সোনারগাঁয়ের মাটিতে বেচে থাকতে চাই না।

তিনি আরো বলেন, আমরা যারা সংসদ সদস্য আছি ,আমরা যারা গুরুত্ব পুর্ন দায়িত্বে রয়েছি, আমাদের কাজ জনগনের সমস্যা গুলো সরকারের নিকট তুলে ধরা। এই সোনারগাঁয়ে আগে কোন ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন ছিলো না। আমি তিন টি ফায়ার সার্ভিসের স্টেশনের আবেদন দিয়েছি। এবং এর মধ্যে দুইটি ইতি মধ্যেই হয়ে গেছে। আমি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে আবেদন করেছিলাম স্কুলের জন্য ,সেই আবেদনের পরিপ্রক্ষিতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সারা দেশে ১৫ টি স্কুলের অনুমোদন দিয়েছেন। এবং এর মধ্যে একটি সোনারগাঁয়ে। যতদিন এই দায়িত্ব পালন করবো ,ততদিন সোনারগাঁয়ের মানুষের কল্যানে কাজ করে যাবো।

সোনারগাঁও পৌরসভার মেয়র সাদেকুর রহমানের সভাপতিত্বে সভায় উপস্থিত ছিলেন, সাবেক মেয়র সাইদুর রহমান মোল্লা, জাতীয় মহিলা সংস্থার সোনারগাঁ উপজেলা শাখার চেয়ারম্যান ডালিয়া লিয়াকত, জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য আবু নাঈম ইকবাল, পৌর নাগরিক কমিটির যুগ্ন সম্পাদক মোতালেব মিয়া স্বপন, পৌর নাগরিক কমিটির সহ সভাপতি আনোয়ার হোসেন, পৌর নাগরিক কমিটির সহ সভাপতি রেজাউল করিম, পৌর নাগরিক কমিটির সহ সভাপতি লিয়াকত আলী, সহ সভাপতি গরীবে নেওয়াজ, সহ সভাপতি মোহাম্মদ আলী, অর্থ সম্পাদক জাকির ভুঁইয়া, সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ শাহীন মিয়া, কাউন্সিলর জাহেদা আক্তার মনি, কাউন্সিলর মোঃ দুলাল মিয়া, কাউন্সিলর মোঃ রফিকুল ইসলাম, কাউন্সিলর মোঃফারুক আহমেদ তপন, কাউন্সিলর মোঃ মনিরুজ্জামান মধু, কাউন্সিলর পারভীন আক্তার, কাউন্সিলর শাহজালাল, সাবেক কাউন্সিলর রোকসানা আক্তার, সাবেক কাউন্সিলর জসিম উদ্দিন, পৌর নাগরিক কমিটির কার্যকরী সদস্য খালেক ভুইয়াসহ আরো অনেকে।

0