আল্লাহরস্তে ক্ষমা করে দিন: শামীম ওসমান

0

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, লাইভ নারায়ণগঞ্জ: ‘আজ আপনারা সবাই আমার আব্বা, আম্মা ও ভাইয়ের জন্য মন থেকে দোয়া করবেন। আল্লাহর ঘরে দাঁড়িয়ে বলছি- তারা অনন্ত ভালো মানুষ ছিলেন। আল্লাহকে মেনেছেন। আল্লাহর পথে চলেছেন। আর আমাদের চলতে শিখিয়েছেন। মানুষের সুখের জন্য কাজ করতে শিখিয়েছেন। সে জন্যই আমরা মানুষের জন্য কাজ করে সে সুখ-শান্তিটা পাই। নিজের জন্য ও পকেট বাড়ি করার জন্য আমরা রাজনীতিটা করি না। আমরা চেষ্টা করি মানুষকে খুশি করার মধ্যে দিয়ে আল্লাহকে খুশি করতে।’

বৃহস্পতিবার (২০ ফেব্রুয়ারি) বিকালে নগরীর চাষাঢ়ায় একেএম শামসুজ্জোহার শাহাদাৎ বার্ষিকীতে মা-বাবার জন্য দোয়া চেয়ে এ কথা গুলো বলছিলেন একেএম শামীম ওসমান।
এসময় আওয়ামী লীগ- জাতীয়পার্টি ও অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

তার ভাষ্য মতে, ‘নারায়ণগঞ্জে ধনী পরিবার হলেও বাবা মা আমাদের জন্য কিছু রেখে যায়নি। আমাদের পরিবার অভাব-অনাটন দেখেছে। দুঃখ-কষ্ট দেখেছেন। এ মসজিদের ভিতরেই আমার বড় বোনের বিবাহ হয়েছে। এ রকম হাজার হাজার বিয়ে ও দোয়া মাহফিল হওয়ার তৌফিক যেন এ মসজিদের হয়। আল্লাহ কখন তৌফিক দেন আর নিয়ে যান; এটা এক মাত্র আল্লাহই জানেন। এবং আল্লাহ রিজিক দিয়েও পরীক্ষা করে। আবার রিজিক নিয়েও পরীক্ষা করে। আমাদের উচিৎ এ পরীক্ষায় পাশ করা।’

শামীম ওসমান বলেন, ‘নারায়ণগঞ্জের মানুষ আমাদের জন্য অনেক কিছু করেছে। এ মহল্লাবাসী সবচেয়ে বেশি আমাদের জন্য করেছে। তাই আমরা মনে করি, এলাকার প্রতিটা বাড়িঘর আমাদের বাড়ি ঘর। প্রতিটা পরিবার, আমাদের পরিবার। তাই এ পরিবার হিসেবে দাবি রেখেই প্রতিটা বছর আমরা আপনাদের কাছে এসে কষ্ট দেই, তা ক্ষমা করবেন। আর আমার মায়ের একটা নির্দেশ ছিল। আমরা আব্বার ও আম্মার যেন একই দিনে দোয়া মাহফিল হয়। আলাদা আলাদা যেন না হয়। আমি তার নির্দেশটা পালন করি। একজন সন্তানের কর্তব্য প্রতিটা নামাজে, দোয়াতে বাবা মার জন্য দোয়া কামনা করা। এটাই বাবা মা পাওয়া ও চাওয়া। মৃত্যুরপর কেউ কিন্তু ক্ষমা চাইতে পারে না এবং ক্ষমা চাওয়ার সুযোগ পায় না। তাই আমার ও আমার পরিবারের পক্ষ থেকে যদি আগামীকাল না থাকি, তাই আমি অগ্রমি সবার কাছে ক্ষমা চেয়ে নিচ্ছি। আল্লাহরস্তে ক্ষমা করে দিন। আল্লাহকে খুশি করে, হাজির নাজির রেখে নবীজির যে পথ দেখিয়েছেন, সে পথ অনুসরণ করে যাতে আমরা এ দুনিয়া থেকে যেতে পারি।’

শামীম ওসমান আরও বলেন, ‘আমরা দুনিয়াতে অল্প কিছু দিনের জন্য এসেছি, পরীক্ষা দিতে। এ পরীক্ষা শেষ হলে একদিন আমাদের সকলেরই চলে যেতে হবে। কেউ ভালো রেজাল্ট নিয়ে যাবো। আবার কেউ খারাপ রেজাল্ট নিয়ে যাবো। মনে প্রাণে বিশ্বাস করি এক মূহুর্তে বিশ্বাস নাই, যে কোন সময় চলে যাবো। আর আল্লাহ নিজেই বলেছেন, তোমরা ক্ষমা চাও। আমি অবশ্যয় ক্ষমা করে দিবো। তাই আমি অনুরোধ করবো আমরাও সবাই সবার কাছে ক্ষমা চাবো।’

0