আশংকা প্রকাশ নয়, ইতিবাচক নারায়ণগঞ্জ চাই: এসপি

লাইভ নারায়ণগঞ্জ: নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপার (এসপি) মোহাম্মদ জায়েদুল আলম বলেছেন, নারায়ণগঞ্জ জেলার অন্যতম একটি প্রতিষ্ঠান নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন। আপনাদের জেলায় বিগত ২বছর যাবত পুলিশ সুপারের দ্বায়িত্ব পালন করছি। কেউ বলতে পারবে না যে, পুলিশ কারো পক্ষ নিয়ে কাজ করেছে। ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে তিনটি ধাপে হয়েছিলো। আপনারা শংঙ্কাবোধ করেছিলেন। অনেকে বলেছিলেন, এই নির্বাচনে অনেক ধরণের ঘটনা ঘটবে। আল্লাহর রহমতে আপনাদের সহযোগীতায় আমরা একটি সুন্দর সুষ্ঠ নির্বাচন সম্পন্ন করতে পেরেছি। আর এটা সম্ভব হয়েছে শুধুমাত্র আপনাদের সহযোগীতার জন্য।

রবিবার (২ জানুয়ারি) সকালে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন (এনসিসি) নির্বাচনের অংশ নেয়া মেয়র, কাউন্সিলর ও সংরক্ষিত কাউন্সিলর প্রার্থীদের সাথে নির্বাচন কমিশনের মতবিনিময় সভায় তিনি এসব কথা বলেন তিনি।

এসপি জায়েদুল আলম বলেন, আপনারা জানেন- এই সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে ভোটার সংখ্যা ৫ লাখ ১৭হাজার ৩শ’ ৫১টি অথাৎ সোয়া ৫লাখ ভোট। কিন্তু সিটি কর্পোরেশন এলাকায় কমপক্ষে ২০লাখ মানুষ বসবাস করে। ভোটার মাত্র সোয়া ৫লাখ। নির্বাচনে মেয়র, কাউন্সিলর ও সংরক্ষিত মহিলা আসনে মোট প্রার্থী ১৯০জন। আমি মনে করি সিটি কর্পোরেশনের ২০লাখ মানুষের দুঃখ, কষ্ট, আনন্দ সব কিছু নির্ভর করে এই ১৯০জনের উপর। আসুন আপনারা ১৯০জন ও আমাদের পুলিশ প্রশাসনের সহায়তায় এই নির্বাচন কমিশনের অধীনে একটি সুষ্ঠু নিরপেক্ষ নির্বাচন উপহার দেই এই ২০লাখ মানুষকে। যাদি পারি তাহলে নারায়ণগঞ্জে আরও একটি ইতিহাস আমরা ধরে রাখবো। আমরা ইতিবাচক নারায়ণগঞ্জ চাই, কোন হানাহানি চাই না, আমরা অতীতের মতো এই নির্বাচনকে ঘিরে কোন আশংকা প্রকাশ করতে চাই না। আমাদের পক্ষ থেকে শতভাগ নিরপেক্ষতা থাকবে। ভোটে কেউ কাউকে বাধা সৃষ্টি করবেন না। নয়তো আমরা আমাদের করণীয় বুজিয়ে দেবো।

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের রিটানিং অফিসার মাহফুজা আক্তারের সভাপতিত্বে মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশনার মো. রফিকুল ইসলাম। বিশেষ অতিথি হিসেবে ছিলেন, নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসক মো. মোস্তাইন বিল্লাহ, জেলা নির্বাচন অফিসার মতিয়ুর রহমান।

মতবিনিময় সভায় স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী তৈমূর আলম খন্দকার, ইসলামী আন্দোলনের প্রার্থী মাসুম বিল্লাহ, বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টির প্রার্থী মো. রাশেদ ফেরদৌস, খেলাফত মজলিসের প্রার্থী এ বি এম সিরাজুল মামুন, বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলনের প্রার্থী জসিম উদ্দিন ও স্বতন্ত্র প্রার্থী কামরুর বাবু সহ বিভিন্ন ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থীরা উপস্থিত ছিলেন। তবে, আলোচিত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী উপস্থিত ছিলেন না।