ইনুর বক্তব্যে বিএনপিতে সমালোচনা ও নিন্দার ঝড়!

0

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, লাইভ নারায়ণগঞ্জ: বিএনপিকে নিয়ে জাসদ সভাপতি সাবেক মন্ত্রী হাসানুল হক ইনুর বক্তব্যকে কেন্দ্র করে নারায়ণগঞ্জ বিএনপি কঠোর সমালোচনা করে প্রতিবাদ জানিয়েছে। দলটিকে রাজাকরের নিয়ন্ত্রিত পাকিস্থানের উকিল হিসেবে আখ্যায়ীত করায় তীব্র নিন্দা জানিয়েছে নারায়ণগঞ্জ বিএনপির বিভিন্ন অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা।
শনিবার (১৮ জানুয়ারি) জেলা জাসদের ত্রি-বার্ষিক সম্মেললে প্রধান অতিথির বক্তেব্যে জাসদ সভাপতি সাবেক মন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেন, বিএনপি-জামায়াত চক্র অশান্তির পাঁয়তার করছে। আমি মনে করি বিএনপি ভুল পথে হেটে রাজাকারদের নিয়ন্ত্রণে। বিএনপি আজ শুধু মুখে স্বাধীনতার কথা বলে, আর রাজাকর জঙ্গিদের সঙ্গ নিয়ে চলে। পাকিস্তানের পক্ষ নিয়ে ওকালতি করে। কিন্তু বাস্তবে তার হচ্ছে গণতন্ত্রের মুখোশধারী।

সাবেক মন্ত্রী ইনুর এমন বক্তব্যে ফুঁসে উঠেছে নারায়ণগঞ্জ বিএনপি। নিজ দলের বিরুদ্ধে এমন অপমান জনক বক্তব্যের প্রতিবাদের দলটির বিভিন্ন অঙ্গসংগঠনের নেতারা লাইভ নারায়ণগঞ্জকে তাদের প্রতিক্রিয়ায় জানান, ‘ইনু আওয়ামীলীগের আস্থা অর্জন করতে দলালীতে নেমেছে’।

হাসানুল হক ইনুর বক্তব্য প্রসঙ্গে বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার বলেন, আওয়ামীলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য শেখ সেলিম বলেছেন, বঙ্গবন্ধু হত্যার প্রেক্ষাপট তৈরি করেছে এই জাসদ। গণবাহিনির নামে এই দলটি তৎকালীণ সময়ে ৬০ হাজার নিরহ মানুষ হত্যা করেছে। ইতিহাস স্বাক্ষী ওই গণদলের অন্যতম নেতা হচ্ছে এই হাসানুল হক ইনু। শেখ সেলিম আরো বলেছেন, আওয়ামীলীগের সাথে জাসদ তথাকথিত ইনুকে জড়ানোর জের একদিন আওয়ামীলীগকেই বহন করতে হবে। সেই হাসানুল হক ইনু আওয়ামীলীগে নিজের অবস্থানে অনিশ্চয়তা রক্ষার্থে এসব স্বাক্ষীকে ধামাচাপা দেওয়ার জন্য বিএনপিকে জড়িয়ে উল্টোপাল্টা বলছে। মুক্তিযোদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল ইনুর কথায় কোনো গুরুত্ব দেয় না। সেই সাথে বাংলাদেশের জনগনও তার অবান্তর কথায় কান দেয় না।

নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপি সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক মামুন মহমুদ বলেন, স্বার্থের আঘাতে জাসদের রূপ পাল্টাতে সময় লাগে না। অতীতে এরা আওয়ামীলীগের বিরোধিতা করে দেশে অশান্তি কায়েম করেছ। এখন আবার আওয়ামীলীগের আস্থা অর্জন করতে দলালীতে নেমে বিএনপির বিরুদ্ধে মিথ্যাচার করছে। একটি আদর্শ রাজনৈতিক সংগঠন হিসেবে এরা কখনো জনগণের আস্থ অর্জন করতে পারেনি, আর পারবেও না। ইতিহাসে এরা সর্বকাল দালাল হিসেবেই চিহ্নিত থেকে যাবে।

মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক এটিএম কামাল বলেন, ৭৫-এর অনাকাক্সিক্ষত ঘটানার জাসদের ভূমিকা জাতি দেখেছে। সকলেরই জানা হাসানুল হক ইনু এক বহুরূপি মানুষের নাম। তার মুখে এসব কথা মানায় না। ইনুর এসব অবাঞ্চিত কথা জনগণের মনে রাখে না। বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল স্বাধীনতার স্বপক্ষ বা বিপক্ষের দল সেই বিষয়ে তাদের সার্টিফিকেট আমাদের দরকার নেই । আমাদের দলের প্রতিষ্ঠাতা স্বাধীনতার ঘোষক শহিদ জিয়াউর রহমান খোদ স্বাধীনতা যুদ্ধের একজন সেক্টর কমান্ডার।

মহানগর বিএনপির সিনিয়র সভাপতি অ্যাডভেকেট সাখাওয়াত হোসেন খান বলেন, মন্ত্রিত্ব হারিয়ে ইনু সাহেব ফের মন্ত্রিত্ব পাবার আশায় আওয়ামলীগকে তুষ্ট করতে এমন মিথ্যাচার করে যাচ্ছে। এমন উদ্ভট নেতাদের উদ্ভট মন্তব্যের জন্য আজ সাধারণের মাঝে দলটির কোন গ্রহণযোগ্যতা নেই। দেশের বেশিরভাগ মুক্তিযোদ্ধাই এখন জাতিয়তাবাদী দলের আওতাভুক্ত। আসলে স্বয়ং আওয়ামীলীগই এখন একটি রাজাকার নিয়ন্ত্রিত দল। সম্প্রতি প্রকাশিত রাজাকারদের তালিকা তারই জলজ্যান্ত স্বাক্ষী।

১৩নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও নারায়ণগঞ্জ মহানগর যুবদলের সভাপতি মাকসুদুল আলম খন্দকার খোরশেদ বলেন, ইনু হচ্ছে ছাঁপোষা রাজনৈতিক টোকাই। তার কথা আমলে নেওয়ার মতো কিছু নেই। এগারো হাজার রাজাকারের লিস্টে আওয়ামীলীগেরই ৮ হাজার রাজাকার সদস্যের প্রমাণ পাওয়া গেছে। ইনুর মতো টোকাইয়ের কাছে কোন প্রকার সার্টিফিকেট জনগণ আশাও করে না।

0