ঈদ উপলক্ষে না.গঞ্জে বিশেষ ফোর্স ‘হোন্ডা মোবাইল’

0

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট,লাইভ নারায়ণগঞ্জ: রমজান ও ঈদ উপলক্ষে জনসাধারণের জন্যে বিশেষ মোবাইল ফোর্স গঠন করেছে নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশ। মোটরযানে করে এই পুলিশ ফোর্স জেলার বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে নিয়োজিত থাকবে। ঈদ পর্যন্ত সড়কে বহাল থাকবে এটি।

এমনটাই জানিয়েছেন নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপার হারুন অর রশীদ। বৃহস্পতিবার (১৬ মে) দুপুর ১টায় জেলার কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে পুলিশ সুপার মোবাইল ফোর্সেটির উদ্বোধন করেন। তিনি এ ফোর্সকে ‘মোবাইল ফোর্স’ আখ্যা দিয়েছেন।

 

উদ্বোধনের সময় তিনি বলেন, শহরে নাগরিকদের ভোগান্তি কমাতে, যে কোন অপরাধ সংঘটিত হলে তাৎক্ষনিক ব্যবস্থা নিতে পুলিশের ১৬টি ‘হোন্ডা মোবাইল’ সার্ভিস চালু করা হয়েছে। নগরীর প্রতিটি এলাকায় এটিম মোহড়া দিবে। ফতুল্লা, সিদ্ধিরগঞ্জ, সদর, সাইনবোর্ড থেকে শুরু করে প্রতিটি এলাকায় এরা কাজ করবে। যেখানেই সমস্যা হবে তারা তাৎক্ষনিক ব্যবস্থা নিবে।’

পুলিশ সুপার হারুন অর রশীদ বলেন,জনগণকে স্বস্তি দেয়াই আমাদের প্রধান কাজ। নারায়ণগঞ্জ একটি গুরুত্বপূর্ণ জেলা। নারায়ণগঞ্জ থেকে সিলেট, চিটাগাংসহ মহাসড়ক দিয়ে বিভিন্ন গাড়ি যাতায়াত করে থাকে। ঈদকে কেন্দ্র করে কাঁচপুর, ভুলতা গাউছিয়া এলাকাসহ বিভিন্ন এলাকায় যানজট সৃষ্টি হয়। যার ফলে রমজান মাসে আমাদের অতিরিক্ত জনবল দরকার পড়ে। আমরাও সবকিছুর দিকে লক্ষ্য রেখে বিশেষ উদ্যোগ গ্রহণ করেছি।’

 

তিনি বলেন,ঈদকে ঘিরে কিছু অসাধু চক্র ডাকাতি, ছিনতাইয়ের মতো ঘটনা ঘটায়। আমরা ইতিমধ্যে মহিলা ছিনতাইকারীসহ ১৩ জন ছিনতাইকারী ও চারজন ডাকাতকে গ্রেফতার করেছি। ঈদ আসার আগে যে ছিনতাইকারীদের উপদ্রব বেড়ে যায় সেটা যেন না হয় আমরা কাজ করছি। এর পাশা পাশি যানজট নিরসনে যান চলাচলের ক্ষেত্রে আমরা নির্ভিঘ্নে কাজ করে যাচ্ছি।

তিনি আরও বলেন, আমরা ঈদের দিন পর্যন্ত ধারাবাহিকভাবে কাজ করবো।সাধারন মানুষ ক্রেতা এবং ব্যবসায়ীরা যেন নিভিঘ্নে কেনা বেচা করতে পারে তার জন্য আমাদের অতিরিক্ত এসপি থেকে শুরু করে প্রত্যেকটি থানা ওসি মাঠে থাকবেন। নারায়ণগঞ্জের ব্যবসায়ীরা যেন কোন ক্রমেই ছিনতাই কারি চাদাবাজের কবলে না পড়ে সেদিকে আমাদেও বিশেষ লক্ষ্য থাকবে।

জেলার সকল পুলিশ, আনসার ও কমিউনিটি পুলিশ সম্বন্বয় করে যানজটনিরসনের লক্ষ্যে কাজ করবে। যানজট নিরসনের লক্ষ্যে সড়ক ও মহাসড়কে জনসাধারণের স্বাভাবিকচলাচল নিশ্চিতকল্পে জেলা বিশেষশাখা, নারায়ণগঞ্জ কর্তৃক বিশেষপ্রোগ্রাম করা হয়েছে। নারায়ণগঞ্জ জেলার সকল সড়ক ও মহাসড়ক গুলোকে চারটি সেক্টরে ভাগকরা হয়েছে। প্রতিটি সেক্টরকে ২ টিকরে সব সেক্টরে ভাগ করা হয়েছে। উক্ত প্রোগ্রামে জেলা পুলিশ ও ট্রাফিক বিভাগ এবং আনসার ও কমিউনিটি পুলিশ সম্বন্বয় করে তিনটি পালায় (১ম পালা ০৮.০০-১৬.০০ টা, ২য় পালা ১৬.০০- ২৪.০০ টা এবং ৩য় পালা ০০-০৮.০০ টা পর্যন্ত) কাজ করছে।

এ সময় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) মো. মনিরুল ইসলাম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) আব্দুল্লাহ আল মামুন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ডিএসবি) মো. নূরে আলম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ডিবি) সুবাস চন্দ্র সাহা, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ক অঞ্চল) মেহেদী ইমরান সিদ্দিকী, সদর মডেল থানা ওসি কামরুল ইসলাম, সিদ্ধিরগঞ্জ থানা পুলিশের ভারপপ্রপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহীন শাহ্ পারভেজ, জেলা পুলিশের বিশেষ শাখার কর্মকর্তা (ডিআইও-২) সাজ্জাদ রোমন সহ আরও অনেকে উপস্থিত ছিলেন।

0