‘উড়াল সড়ক’ বা ‘চার লেন’ হবে পঞ্চবটি-মুন্সিগঞ্জ সড়কে!

0

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, লাইভ নারায়ণগঞ্জ:
ঢাকা থেকে নারায়ণগঞ্জের পঞ্চবটি হয়ে মুন্সিগঞ্জ পর্যন্ত দূরত্ব মাত্র ২৫ কিলোমিটার। তবে এ সড়ক পার হতেই ৩ থেকে ৫ ঘন্টা লেগে যায়। সড়কটি সরু হওয়ায় এখান দিয়ে যাত্রিবাহী বাস ও পণ্যবাহী গাড়ি স্বাভাবিক গতিতে চলতে পারে না। এ দুর্ভোগ অনেক পুরনো।

ঢাকা থেকে সড়ক পথে মুন্সিগঞ্জ যেতে এই রাস্তাটিই প্রথম চালু হয়। ওই সময়ে পঞ্চবটি থেকে মুক্তারপুর পর্যন্ত তেমন ঘনবসতি ছিলো না। দূরদর্শিতার পরিচয় না দিয়ে তিন জেলার এই সংযোগ সড়কটি খুব সরু করে নির্মাণ করা হয় বলে মনে করেন স্থানীয়রা।
এই সড়ক হওয়ার পর আশপাশের এলাকায় দ্রুত বসতি বাড়তে শুরু করে। এ সড়কের পাশে শাসনগাঁয়ে গড়ে উঠে বিসিক শিল্প নগরী। যেখানে কয়েক শ’ গার্মেন্ট-নিটিং কারখানা আছে। সৈয়দপুর থেকে মুক্তারপুর পর্যন্ত রয়েছে কয়েকটি সিমেন্ট কারখানা। এছাড়া সড়কের দু’ধারে বিভিন্ন এলাকায় গার্মেন্টসহ বিভিন্ন শিল্প প্রতিষ্ঠান রয়েছে। এসব কারনে মানুষ যেমন বেড়েছে তেমনি বেড়েছে যানবাহনও।
বিশেষ করে এ সড়কে ব্যাটারি চালিত ইজি বাইকের দৌরাত্ম বেশী। এছাড়া রয়েছে রিকশা, ভ্যান গাড়ি, প্রাইভেট কার, মোটর সাইকেল। সরু সড়কে এত যানবাহন থাকলেও লেন একটাই। যার জন্য যাত্রিবাহী বাস ও পণ্যবাহী গাড়িগুলোকে পঞ্চবটি থেকে মুক্তারপুর যেতে অসংখ্য বার ব্রেক কষতে হয়। এ কারনে এ পথে যেতে দীর্ঘ সময় লেগে যায়। এতে করে মানুষের যেমন কর্মঘন্টার অপচয় হয় তেমনি পণ্য আনা নেয়ার ক্ষেত্রেও অতিরিক্ত সময় লাগে ও ব্যয় বাড়ে।
মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী ফজিলাতুননেসা ইন্দিরার কাছে এ দুঃখের কথা জানিয়েছেন মুন্সিগঞ্জের মানুষ। মঙ্গলবার মিরকাদিম পৌরসভায় তাকে দেয়া সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, গুলিস্তান থেকে মুন্সিগঞ্জের দূরত্ব মাত্র ২৫ কিলো মিটার। অথচ সড়কটি সরু ও খানাখন্দে ভরে থাকায় ৩ থেকে ৫ ঘন্টা সময় লাগে। সড়কপথে যাতায়াত সহজ করতে তারা এ সড়কে চার লেন অথবা উড়াল সড়ক নির্মাণ করে দেয়ার জন্য মন্ত্রীর কাছে দাবি করেন।
জবাবে ফজিলাতুননেসা ইন্দিরা বলেন, দেশের সব জায়গার মতো মুন্সিগঞ্জেও উন্নয়নের ছোঁয়া লেগেছে। মুন্সিগঞ্জবাসীর দীর্ঘ দিনের এ দাবির কথা সংসদে বলেছি। তিনি আশ্বাস দেন, মানুষের দুর্ভোগ যেন কমে এ সড়কটি এমনভাবে তৈরী করা হবে।

0