না.গঞ্জ সিটি করপোরেশন’র কাছে উপেক্ষিত `তারুণ্যে’র দাবি

0

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, লাইভ নারায়ণগঞ্জ: নারায়ণগঞ্জ পৌরসভা থেকে সিটি করপোরেশন হয়েছে এক দশক। নগরবাসীকে এজন্য প্রতিবছর পূর্বের তুলনায় কয়েক গুণ করসহ বিভিন্ন খরচ বৃদ্ধি করতে হয়েছে। নগর ভবনের আয় বেড়েছে ব্যাপক, ব্যায়ের খাতও বেড়েছে। হাজার কোটি টাকার ছুঁই ছুঁই বাজেট হচ্ছে প্রতি বছর। শত শত কোটি টাকার উন্নয়ন প্রকল্প চলমান থাকলে এ নারায়ণগঞ্জের জনদুভোর্গ লাগবে নেই তেমন উদ্যোগ সিটি করপোরেশনের। নগরীর তরুণ সমাজের দাবি অনেক ক্ষেত্রে উপেক্ষিত। সাধারণ মানুষের কথা যেন নগর ভবনে পৌঁছায়ই না। নগরীর বিভিন্ন উন্নয়ন মূলক কাজের অনিয়ম এর কথা যেমন উঠে, তেমনি নানা সমস্যা সমাধানের উপায় ও দাবি গুলোও আলোচিত হয় সর্বত্র। তরুণদের দীর্ঘ দিনের দাবির অন্যতম হলো- চাষাড়া চত্ব্র এলাকায় ফুট ওভার ব্রীজ নির্মান। এ দাবি কবে পূরণ হবে, তা জানা নেই নগরবাসীর।

বানিজ্যের জেলা নারায়ণগঞ্জের মূল শহরটি খুব একটি বড় নয়। শহরে প্রতিদিন বিভিন্ন জেলা থেকে প্রচুর মানুষ যেমন আসে, তেমনী নিজ শহরের বাসিন্দাদের নানা কাজে দিনভর ব্যস্ত থাকে সড়ক গুলো। এর মধ্যে সর্বাধিক যানজট সৃস্টি হয় চাষাড়া গোল চত্বরে। এ চত্বরের আসে পাশে রয়েছে বেশ কিছু শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, আছে ধর্মীও প্রতিষ্ঠান, আর নগরীর মূল বিপনী বিতান গুলোও এলাকায়। এমন গুরুত্বপূর্ণ এলাকার সড়কে দিনভর পরিবহনের হার ব্যপক। কিন্তু এ সড়ক পারাপারে শিশু-নারীসহ সবাইকে পড়তে হয় চরম ভোগান্তীতে। তাই নগরবাসী এ সমস্যা সমাধান চেয়ে আসছে দীর্ঘ দিন। আরা তরুণ সমাজ স্যোশাল মিডিয়াতে সারা বছরই এ নিয়ে নানা পোস্ট করেন, মন্তব্য করেন, দাবি জানান একটি ফুট ওভার ব্রীজ নির্মানের।

গত অর্থ বছরের বাজেটে এ নিয়ে হয়তো বরাদ্দ থাকবে ভেবে ছিলো তরুনরা। কারন, বাজেট ঘোষনার আগে এ বিষয়ে তাদের জোড়ালে আওয়াজ ছিলো। কিন্তু সেই আওয়াজের তোক্কা করেনি নগরের দায়িত্বরতা, এমনটা জানিয়ে অনেকইে ক্ষোভ প্রকাশ করেন। আসছে, সোমবার (১৩ সেপ্টেম্বর) আগামী অর্থ বছরের এনসিসি বাজেট ঘোষনা করা হবে। এবারও কি নিরাশ হতে হবে নগরবাসীকে, অপেক্ষায় থাকতে হবে আরও কয়েক দিন।

চাষাড়া শহীদ মিনারের সামনের রাস্তা পার হতে চাচ্ছিল স্কুলে পড়ুয়া ইমরুল কবির। আর একটু হলেই প্রাণ হারাতে হতো! ভাগ্য ভাল, দ্রæত গতিতে ছুটে আসা প্রাইভেট কারটির ড্রাইভার জোরে ব্রেক কষাতে এ যাত্রায় বেঁচে গেছে সে। আজ না হয় বাঁচা গেল; কাল? তাকে যে প্রতিদিনই এভাবে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে রাস্তা পার হতে হয়।

পেশায় শিক্ষক চাষাড়ার এক বাসিন্দা নাম পরিচয় প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, ‘দেখুন, নারায়ণগঞ্জের অন্যতম ব্যস্ত সড়ক চাষাড়া এলাকায়। এর আশেপাশে রয়েছে অসংখ শপিংমল, স্কুল, শহীদ মিনার ও হাজার হাজার মানুষের কর্মসংস্থানের বিষয়ও জড়িত। পাশাপাশি এ সড়ক দিয়ে প্রতিনিয়ত চলাচল করে জেলার ও দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে আসা অসংখ ভারি যানবাহন। তবে ব্যস্ত এ সড়কে নেই কোন ফুট ওভার ব্রীজ। এতে জীবনের ঝুঁকি নিয়েই দৈনিক রাস্তা পারাপর করে অসংখ মানুষ। মনে হয়, এ নগর এক অভিভাবকহীন।’

তরুনদের পাশাপাশি ফুট ওভার ব্রীজ নির্মানের জন্য মেয়র বরাবর আবেদনও করেছিলেন ১৩নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর এবং ওয়াকিং ফর বেটার নারায়ণগঞ্জ এর প্রধান সমন্বয়কারী মাকসুদুল আলম খন্দকার খোরশেদ।

তবে এতো কিছুর পরেও নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন পক্ষ থেকে এখনও কোন কার্যকর ব্যবস্থা নিতে দেখা যায়নি।

জানাগেছে, গত বছরের অক্টোবরে নারায়ণগঞ্জ সিটি কোর্পরেশনের ৭৫৫ কোটি ৭৩ লাখ টাকার বাজেট ঘোষণা করা হয়। যেখানে ব্রীজ, কালভার্ট নির্মাণ, যানজট নিরসনসহ বেশ কিছু খাতে বিশেষ বরাদ্দ রাখা হয়েছিলো। জিপিপির প্রজেক্টে চাষাড়া ফুট ওভার ব্রীজের অনুমতির জন্য ২ বার পাঠানো হয়েছে।

এ দিকে চাষাড়া ফুট ওভার ব্রীজের জন্য অনুমোদন চলে এসেছে বলে জানান এনসিসি ১২ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর শওকত হাসেম শকু। তিনি বলেন, দীর্ঘদিন ধরে এ বিষয়ে দাবি জানানো হচ্ছে তাও সত্য এবং আমরা চেষ্টা করছি তাও সত্য। আমি যতটা জানি এটা অনুমোদন হয়ে গেছে। শুধু কোথায় হবে সেটা নির্ধারণ করা বাকী। আমাদের বাজেট অনুষ্ঠান এখনো হয়নি তো। চাষাড়ায় যাতে ফুট ওভার ব্রীজটা হয় সেজন্য আমি ওয়ার্ড কাউন্সিলর হিসেবে অবশ্যই ভুমিকা রাখবো।

অপর দিকে চাষাড়া ফুট ওভার ব্রীজের জন্য অনুমোদন আসার বিষয়ে কিছু জানেন না বলেছেন এনসিসি ১৩, ১৪, ১৫ নং ওয়ার্ডের সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর শারমীন হাবিব বিন্নী। তিনি বলেন, এটি অবশ্যই দীর্ঘদিনের একটি সমস্যা। আমরা এ বিষয়ে গুরুত্ব প্রদান করছি। তবে, ফুট ওভার ব্রীজ নির্মানের জন্য কোন অনুমতি আসছে এরকম কিছুই আমার জানা নেই। যদি আসতো তাহলে আমার জানার কথা।

বিষয়ে নিশ্চিত হতে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের সিইও আবুল আমিনকে একাধিকবার ফোন করলেও কথা বলা সম্ভব হয়নি।

0