এনসিসি’র পরিচ্ছন্নকর্মীদের উদাসিনতায় শাহী মসজিদ এলাকা এখন ময়লাময়

0

বন্দর করেসপন্ডেন্ট, লাইভ নারায়ণগঞ্জ:  নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের পরিচ্ছন্নকর্মীদের উদাসিনতায় ২১নং ওয়ার্ডের শাহীমসজিদ এলাকাটি যেন ময়লা-আবর্জনা একমাত্র স্থান হয়ে দাড়িয়েছে। নাসিকের পরিচ্ছন্নকর্মীদের একাধিকবার বললেও তারা কোন কর্ণপাত করেনি। যার কারনে শাহীমসজিদের প্রধান সড়কে ড্রেনের পাশে বিভিন্ন দোকান ও বাসাবাড়ীর ময়লায় সয়লাভ হয়ে যায়। সড়কের পাশে ময়লা-আবর্জণা অপসারন না করার কারনে স্কুলগামী শিক্ষার্থী,মুসল্লী ও পথচারীরা দুর্গন্ধে ওই সড়ক দিয়ে চলাচলে মারাতœকভাবে স্বাস্থ্যঝুকিতে পড়ছে। আর প্রধান সড়কের মোড় এলাকায় লোভী বাড়িওয়ালারা মুর্গীর দোকান ভাড়া দেওয়ায় আরো অস্বাস্থ্যকর পরিবেশের সৃষ্টি হয়েছে। আর এই মুর্গীর দোকানীরা বেশি বেচাকেনার লোভে প্রধান সড়কে দোকান দিয়ে মুর্গী কাটা রক্ত,বর্জ্য সড়কের ড্রেনের পাশে ফেলে রাখে। নাসিকের পরিচ্ছন্নকর্মীরা প্রতিদিন না আসায় এ আবর্জনা আরো নোংরা হয়ে দূর্গন্ধ ছড়াতে থাকে। ফলে ওই পথ দিয়ে শিশু শিক্ষার্থী,পথচারী ও মুসল্লীসহ সাধারন মানুষের চলাচলে চরম বেঘাত সৃষ্টি হয়। এতে করে বিভিন্ন রোগের প্রার্দুভাব দেখা দিয়েছে।

গত বুধবার দুপুরে এনসিসির ২১নং ওয়ার্ড শাহীমসজিদ এলাকায় গিয়ে এ চিত্র পরিলক্ষিত হয়।

এ ব্যাপারে শাহীমসজিদ এলাকার নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ব্যাক্তি জানান,সিটি কর্পোরেশনের পক্ষ থেকে নামকাওয়াস্তে পরিচ্ছন্ন অভিযান করলেও পরিচ্ছন্নকর্মীরা সবসময় উদাসিনভাবে কাজ করে। তারা সঠিকভাবে ময়লা অপসারন করেনা। যার কারনে জনসাধারনকে বিপাকে পড়তে হয়।

এ ব্যাপারে স্থানীয় কাউন্সিলর হান্নান সরকারের সাথে আলাপকালে তিনি জানান,আমি সবসময় নাসিকের পরিচ্ছন্নকর্মী দিয়ে আমার ওয়ার্ডকে পরিস্কার রাখার চেষ্টা করি। গত মঙ্গলবার আমি নিজেই রাস্তা পরিস্কার ও মশক নিধণ করতে নেমে পড়েছি। আসলে পরিচ্ছন্নকর্মী চাহিদার তুলনায় কম থাকায় সাময়িক সমস্যাগুলো হচ্ছে। আমার ওয়ার্ডবাসীকে ধৈর্য্য ধারন করার অনুরোধ করছি। তবে ওয়ার্ডবাসীদের চাহিদা শতভাগ পূরণ করতে হয়ত পারবনা তবে ওয়ার্ডবাসী অচিরেই নাসিকের সকল প্রকার সুবিধা ভোগ করবে ইনশাআল্লাহ।

এ অবস্থা থেকে পরিত্রান পেতে নাসিক মেয়র ডা. সেলিনা হায়াত আইভির হস্তক্ষেপ কামনা করছে এনসিসির ২১নং ওয়ার্ডবাসী ।

0