কঠোর অবস্থানে পুলিশ-প্রশাসন, সুষ্ঠু নির্বাচন উপহার দিতে চায়

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, লাইভ নারায়ণগঞ্জ: আগামী ১৬ জানুয়ারি (রবিবার) অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন। এ নির্বাচনকে ঘিরে নানান অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটতে পারে বলেও মনে করছেন অনেকেই। তবে এবারের নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ করতে বদ্ধ পরিকর নারায়ণগঞ্জের পুলিশ প্রশাসন।
জানা গেছে, নারায়ণগঞ্জ সিটিতে মোট ভোটর ৫ লাখ ১৭ হাজার ৩৬১জন যাতে পুরুষ ভোটার ২ লাখ ৫৯ হাজার ৮৩৯জন, ২ লাখ ৫৭ হাজার ৫১৮ ও তৃতীয় লিঙ্গ ৪ জন। সিটি নির্বাচনে মোট ভোট কেন্দ্র রয়েছে ১৮৭টি এবং ভোট কক্ষ রয়েছে ১ হাজার ৩০১টি, এর মধ্যে অস্থায়ী ভোট কক্ষ রয়েছে ২৫টি।

এবারের নির্বাচনে মোট ৭টি দল অংশগ্রহন করেছে। মেয়র পদে নির্বাচন করছেন ৭জন। সাধারণ কাউন্সিলর পদে ১৪৮ জন এবং সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদে ৩৪ জন নির্বাচনে অংশগ্রহন করছেন।

তবে সিটি এলাকায় মোট ভোটর ৫ লাখের একটি বেশি হলেও এখানে বসবাস করে প্রায় ত্রিশ লাখের বেশি মানুষ। তাই নির্বাচনে সুষ্ঠ পরিবেশ বজায় রাখতে অনেকটা চাপের মধ্যে রয়েছে পুলিশ প্রশাসন। তাই এবার পুলিশের নিরাপত্তায় কিরোকম এবং প্রমাসনের ভুমিকা কি সেটিই আসল বিষয়।

নির্বাচনের দিন আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কেমন ভুমিকায় থাকবে এবং পুলিশের উপস্থিতি কেমন থাকবে এ বিষয়ে নারায়ণগঞ্জ জেলার পুলিশ সুপার জানিয়েছেন, এই নির্বাচনে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী পর্যাপ্ত থাকবে। একটি প্রতিষ্ঠানে কমপক্ষে ৪-৫টি টিম থাকবে। আর একটি টিমে কমপক্ষে ৪-৫টি পুলিশ সদস্য ও ২০-২২ জন আনসার থাকবে। তাহলে আপনারা বুঝতে পারছেন একটি প্রতিষ্ঠানে ২৫-৩০ জন পুলিশ ও একশত’র উপরে আনসার সদস্য থাকবে। এটা তো ছিলো শুধু ভোট কেন্দ্রের ভিতরে। এছাড়া প্রতিটি ওয়ার্ডে আমার তিনটি করে টিম ফোর্স থাকবে। একটি বিজিবির টিম থাকবে, একটি র‌্যবের টিম থাকবে ও আর একটি পুলিশের টিম থাকবে।

তিনি আরও জানান, নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনকে কেন্দ্র করে পুলিশ প্রশাসন জিরো টলারেন্স নীতিতে আছে। পুলিশ কোন নির্দিষ্ট প্রার্থী বা কারও পক্ষে বিপক্ষে কাজ করে না। পুলিশ বাহিনী সম্পূর্ণভাবে নিরপেক্ষ দৃষ্টিকোণ নিয়ে নির্বাচনকে সুষ্ঠু, অবাধ এবং গ্রহণযোগ্য করার জন্য যা যা করণীয় সেই কাজ করে থাকে। আমরাও তাই-ই করছি।

এদিকে নির্বাচনের দিন মাঠ পর্যায়ে কাজ করার জন্য ৩০ জন ম্যাজিস্ট্রেটকে নিয়োগ দেয়া হয়েছে। নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসক জানয়েছেন, নির্বাচনে ভোট কেন্দ্রের নিচ্ছিদ্র নিরাপত্তা প্রদানে সকল ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। যাতে ভোটারগণ নির্বিঘ্নে তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারেন। যেকোন মূল্যে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে আইন-শৃঙ্খলা স্বাভাবিক রাখতে মোবাইল কোর্ট পরিচালনাসহ প্রয়োজনীয় সকল কার্যক্রম সর্বোচ্চ সতর্কতার সাথে চলমান আছে।

তিনি আরও জানান, জনগন যাকে খুশি তাকে দিতে পারবেন। এর জন্য যা যা করা দরকার করবো। এরই মধ্যে নয়জন ম্যাজিস্ট্রেট কাজ করছেন। নির্বাচনের আগে আরও ৩০ জন ম্যাজিস্ট্রেট আসবে। প্রতিটি ওয়ার্ডে ম্যাজিস্ট্রেট থাকবে।