করোনা পরীক্ষা শুরু হলো না.গঞ্জে, প্রথম দিনেই ৩ জন

0

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, লাইভ নারায়ণগঞ্জ: কোভিড–১৯ রোগের পরীক্ষা এখন নারায়ণগঞ্জে। কাউকে করোনা আগ্রান্ত রোগী সন্দেহ হলেই নমুনা সংগ্রহ করা হবে।

গত ৩১ মার্চ থেকে এ কার্যক্রম শুরু করে জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ। এতে রোগের পরীক্ষার তত্বাবধায়ন করছেন জেলা সিভিল সার্জন নিজেই।

প্রথম দিনেই কোভিড-১৯ করোনা ভাইরাসের সন্দেহভাজন ৩ জনকে পরীক্ষা করা হয়। পরীক্ষার রির্পোট নেগেটিভ পাওয়া যায়।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে আনতে রোগের পরীক্ষার ওপর গুরুত্ব দিয়ে আসছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। তবে দেশে পরীক্ষা নিয়ে নানা জটিলতার খবর পাওয়া যাচ্ছে। অনেকের অভিযোগ, বারবার অনুরোধ করার পরও আইইডিসিআর পরীক্ষার ব্যবস্থা করতে পারছে না। পরীক্ষার সুযোগ পেলেও পরীক্ষার ফলাফল জানতে পারছেন না। এমন অভিযোগের পর ৩০ মার্চ নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাব সভাপতি অ্যাড. মাহবুবুর রহমান মাসুম নারায়ণগঞ্জবাসীর পক্ষ থেকে জেলার মধ্যেই করোনা আক্রান্তের পরীক্ষা, নমুনা সংগ্রহের দাবি জানিয়ে সংবাদ সম্মেলন করেছিলেন।

নারায়ণগঞ্জ অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মোহাম্মদ সেলিম রেজা জানান, ‘নারায়ণগঞ্জ জেলায় কোভিড-১৯ করোনা ভাইরাসে সর্ব শেষ ৩ জন সন্দেহভাজন রোগীর নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। তাদের রির্পোট নেগেটিভ পাওয়া গেছে।’

নারায়ণগঞ্জ জেলা সিভিল সার্জন ডা. ইমতিয়াজ আহম্মেদ জানিয়েছেন, স্বাস্থ্য অধিদফতরের রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (আইইডিসিআর) থেকে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে কীভাবে নমুনা সংগ্রহ করতে হবে। সেভাবেই আমরা নমুনা সংগ্রহ করে ঢাকায় পাঠাচ্ছি।

এদিকে, নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. জাহিদুল ইসলাম জানিয়েছেন, যারা কোয়ারেন্টাইনে আছেন তাদের স্বাস্থ্যের খবর নিচ্ছি প্রতিদিন দুবেলা। তাদের মধ্যে যদি কারো করোনা আক্রান্তের উপসর্গ পাওয়া যায় কেবল মাত্র তাদের থেকেই নমুনা সংগ্রহ করা হবে। এছাড়া হাসপাতাল থেকে যদি কাউকে করোনা আক্রান্ত হিসেবে সন্দেহ করা হয় তার নমুনাও নেব আমরা। এছাড়া আমাদের কন্ট্রোলরুমে কেউ যদি সন্দিহান হয়ে যোগাযোগ করেন তাহলে তার সাথে আমরা কথা বলবো। সরাসরি দেখা করে তার উপসর্গগুলো সম্পর্কে নিশ্চিত হবো। যদি মনে হয় তিনি আক্রান্ত হতে পারেন, তাহলেই তার নমুনা সংগ্রহ করা হবে। অন্যথায় না।

ডা. জাহিদুল ইসলাম আরও জানিয়েছেন, আইইডিসিআর আমাদেরকে জানিয়েছেন এ পর্যন্ত তারা নারায়ণগঞ্জের ৯ জনের নমুনা সংগ্রহ করেছিলন। তাদের মধ্যে তিনজনের মধ্যে পজেটিভ পাওয়া যায়। যাদের দুজন আগে সুস্থ হয়েছিলেন। অন্যজনও এখনও সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন।

0