কাউন্সিলর আশার বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা কেন নয়; জানতে চায় আদালত

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, লাইভ নারায়ণগঞ্জ: ২৩ নং ওয়ার্ডের প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী সাইফুদ্দিন আহমেদ দুলাল প্রধানের করা অভিযোগে কাউন্সিলর আবুল কাউসার আশার বিরুদ্ধে কেন অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞার আদেশ প্রদান করা হবে না; তা জানতে চেয়েছে আদালত। আগামী ২১ কার্যদিবসের মধ্যে কারণ দর্শানোর নির্দেশও দেওয়া হয়েছে।

নারায়ণগঞ্জ যুগ্ম জেলা জজ ১ম আদালতের বিচারক এসএম মাসুদ জামান বুধবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) এ আদেশ দেয়া হয়। (মামলা নং-০৩/২২)

এর আগে দুলাল প্রধান তার প্রতিদ্বন্দ্বী ২ প্রার্থী আবুল কাউসার আশা, হান্নান ও নবীগঞ্জ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের কেন্দ্রের প্রিজাইডিং অফিসারসহ বেশ কয়েকজনের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা করেন।

অভিযোগে উল্লেখ করা হয়, গত ১৬ জানুয়ারি নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। নির্বাচনে ২৩ নং ওয়ার্ডের নবীগঞ্জ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ২টি কেন্দ্রে প্রিজাইডিং অফিসারের সহয়তায় অর্থের বিনিময়ে সূক্ষ্ম কারচুপি ও অবৈধভাবে পরাজিত করানোর অভিযোগ তুলেন সাবেক কাউন্সিলর দুলাল প্রধান। অভিযোগ উঠে দুলাল প্রধানের লাটিম প্রতীকের পোলিং এজেন্টদের নানাভাবে স্বাক্ষর জাল করে ভোটের সংখ্যা পরিবর্তন করা হয়। এবং এর আগেও লাটিমের ভোটারদের কক্ষে প্রবেশ করতে দেয় নি আবুল কাউসার আশা ও তার সহযোগীরা। এতে করে পরিকল্পিত ভাবে দুলাল প্রধানকে পরাজিত করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেন।

এনিয়ে দুলাল প্রধান আদালতে কাউন্সিলর আবুল কাউসার আশার অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞা চেয়ে পিটিশন দায়ের করলে, আদালত তা আমলে নিয়ে কাউন্সিলর আশাসহ আরো ৩ জনকে কারণ দর্শানোর নির্দেশ দেয়।

কারণ দর্শানোর নোটিশ প্রাপ্তির কথা স্বীকার করে কাউন্সিলর আবুল কাউসার আশা জানান, ‘২১ দিনের মধ্যে আইনী ভাবেই জবাব দেওয়া হবে’।