কাশ্মিরীদের উপর নির্যাতন বন্ধের দাবিতে খেলাফত মজলিসের মানববন্ধন

0

প্রেস বিজ্ঞপ্তি: ভারত সরকার কর্তৃক কাশ্মীরকে মৃত্যুপুরিতে পরিণত করা হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন খেলাফত মজলিসের ঢাকা মহানগরী সভাপতি শেখ গোলাম আজগর। তিনি বলেছেন, আজ কাশ্মীরের মসজিদগুলো তালাবদ্ধ, গোটা কাশ্মীর জুড়ে কারফিউ জারি করা হয়েছে, মানুষদের বন্দি করে রাখা হয়েছে, ইন্টারনেট সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে সারা পৃথিবী থেকে কাশ্মীরকে বিচ্ছিন্ন রাখা হয়েছে। শুক্রবার ৩০ আগস্ট নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাব চত্বরে জেলা ও মহানগর খেলাফত মজলিসের উদ্যোগে কাশ্মিরীদের স্বায়ত্তশাসন ফিরিয়ে দেয়া এবং নির্যাতন বন্ধের দাবিতে মানববন্ধনে তিনি এসব কথা বলেন। জেলা সভাপতি এবিএম সিরাজুল মামুনের সভাপতিত্বে মানববন্ধনে প্রধান অতিথি হিসেবে শেখ গোলাম আজগর আরো বলেন, বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধ যেমন শুধুমাত্র এ দেশের আভ্যন্তরীণ বিষয় ছিল না, তেমনিভাবে কাশ্মীর ইস্যুও ভারতের আভ্যন্তরীণ বিষয় নয়। এসময় তিনি কাশ্মীরের সাধারণ মানুষদের স্বাধীনতার জন্য বাংলাদেশ সরকারকে সহায়তা করার আহ্বান জানান। পাশাপাশি দেশের সকল তৌহিদি জনতাকে কাশ্মীরের পক্ষে আওয়াজ তোলার প্রতিও আহ্বান জানান। তিনি আরো বলেন, ১৯৪৮ সালের জাতিসংঘ প্রস্তাবনা অনুযায়ী কাশ্মিরী জনগণের মতামতের ভিত্তিতেই গোলযোগপূর্ণ কাশ্মীর সমস্যার সমাধান করতে হবে। কিন্তু ভারত শক্তি প্রয়োগ করে কাশ্মিরীদের অধিকার খর্ব করতে যুগযুগ ধরে কাশ্মিরী মুসলমানদের উপর হত্যা, জুলুম, নির্যাতন চালিয়ে আসছে, যা আমরা মেনে নিতে পারি না। আমরা জালিমের বিরুদ্ধে মজলুমের পক্ষে আন্দোলন চালিয়ে যাবো।

খেলাফত মজলিসের মানববন্ধনে আরো বক্তব্য রাখেন, জেলা সেক্রেটারী মাওলানা আহমদ আলী, সাংগঠনিক সম্পাদক হাফেজ কবির হোসেন, মহানগরের সভাপতি ডাঃ শরীফ মোহাম্মদ মোসাদ্দেক, সহ-সভাপতি ইলিয়াস আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক শাহ আলম, জয়েন্ট সেক্রেটারী হাফেজ আওলাদ হোসেন, ফতুল্লা থানা সেক্রেটারী মোঃ মোস্তাফিজুর রহমান, এনায়েত ইউনিয়ন সভাপতি আব্দুল করিম মিন্টুসহ জেলা মহানগর ও স্থানীয় নেতৃবৃন্দ। মানববন্ধনে সমাপনী বক্তব্যে জেলা সভাপতি এবিএম সিরাজুল মামুন বলেন, ৩৭০ ধারা বাতিল করে ভারত কাশ্মিরীদের সাথে বিশ্বাস ঘাতকতা করেছে। এ বিশ্বাস ভঙ্গের পরিণাম ভারতের জন্যে শুভ হবে না। ঐহিতাসিকভাবে কাশ্মির ভারতের অংশ ছিলো না। যে শর্তের ভিত্তিতে কাশ্মিরকে ভারতের সাথে একিভূত করা হয় সংবিধান থেকে সেই ধারা বাতিল মানেই চুক্তি লঙ্ঘন। আজকে পুরো কাশ্মীরকে অবরুদ্ধ করে, ১৪৪ ধারা জারি করে, ইন্টারন্টে, মোবাইল নেটওয়ার্ক বন্ধ করে কাশ্মীরী জনগণের উপর ভয়াবহ জুলুম চালানো হচ্ছে। কাশ্মিরী মুসলমনাদের জীবন নিয়ে বিশ্ববাসী আজ গভীরভাবে শংকিত। কাশ্মীরে ভারতীয় আগ্রাসন বন্ধ করতে হবে। কাশ্মিরীদের অধিকার আদায় ও অবরুদ্ধ কাশ্মিরী জনগণকে রক্ষায় বিশ্ববাসীকে এগিয়ে আসতে হবে।

0