খাবার না খেয়ে পালিয়ে গেছি ভাষণ শুনতে: খোকন সাহা

0

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, লাইভ নারায়ণগঞ্জ: আমি আমার বক্তব্যের শুরুতেই শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করছি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ তার পরিবারের সকলকে। এছাড়াও আমি স্মরণ করছি লক্ষ শহীদ ভাই ও বোনদের। আমি শ্রদ্ধার সাথে আরও স্মরণ করছি নারায়ণগঞ্জের অন্যতম ভাষা সৈনিক আামার বড় ভাই সেলিম ওসমান এবং আমার বন্ধু শামীম ওসমানের মা নাগীনা জোহার কথা। আমি আরও শ্রদ্ধা জানাচ্ছি যে সকল পুলিশ ভাইয়েরা দেশের জন্য কাজ করতে গিয়ে শহীদ হয়েছেন।

ঐতিহাসিক ৭ই মার্চ ও বাংলাদেশে এলডিসি থেকে উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে জাতিসংঘের চুড়ান্ত সুপারিশপ্রাপ্তি উপলক্ষে রবিবার ( ৭ মার্চ ) বিকেলে সদর মডেল থানা প্রাঙ্গনে এক আলোচনা সভা আয়োজিত হয়। সেই সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্যে কথা বলেন নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক খোকন সাহা।

নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শাহ জামানের সভাপতিত্বে এসময় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর ) সুভাষ চন্দ্র সাহা।

এ সময় খোকন সাহা আরও বলেন, ১৯৭১ সালে এ দেশের পুলিশ ভাইয়েরা বঙ্গবন্ধুর নির্দেশে যুদ্ধ করেছিলো। এই পুলিশ বাহিনীরা বঙ্গবন্ধুকে ১৫ আগষ্ট পাহারা দিয়ে ছিলো। বর্তমানে পুলিশ বাহিনীকে বিতর্কিত করার জন্য একটি কুচক্রিমহল সড়যন্ত্র করে যাচ্ছে। পুলিশ এবং সেনাবাহিনীকে বিতর্কিত করতে চায় এরা। মুক্তিযুদ্ধে পুলিশ এবং সেনাবাহিনীরা গুরুত্বপুর্ন ভুমিকা পালন করেছিলো। ওই সময় তারা দেশের অসহায় মানুষের পাশে এসে দাড়িয়ে ছিলেন। পুলিশ সদস্যদের পাশে দেশের জনগন আগেও ছিলো ভবিষ্যতেও থাকবে। প্রিয় ভায়েরা পুলিশকে সহযোগীতা করলে সমাজের সন্ত্রাস, মাদকের মত অপরাধ অনেকটা কমে যাবে এবং সমাজ ভালো মানুষের বসবাস যোগ্য হয়ে উঠবে।

৭ই মার্চের স্মৃতি চরন করে খোকন সাহা বলেন, ৭ই মার্চ বঙ্গবন্ধু স্বাধীনতার ভাষণ দিয়েছিলেন সে দিন আমার বয়স ছিলো ১১ বছর। সেদিন নারায়ণগঞ্জে এমন কোনো পাড়া মহল্লার লোক ছিলো না যারা বঙ্গবন্ধুর ভাষণ শুনতে যান নাই। পথ চিনি না, আসার সময় পথ হাড়িয়ে ফেলছি। কখন এক ট্রাক ড্রাইভারকে জিজ্ঞেস করলাম নারায়ণগঞ্জের রাস্তা সে বললো এটা নারায়ণগঞ্জই যাচ্ছে, উঠে পরলাম ট্রাকে চলে আসলাম নারায়ণগঞ্জ। আমার মা আমাকে খাবার খেয়ে শুয়ে থাকতে বললো, খাবার খেলাম না পালিয়ে চলে গেলাম বঙ্গবন্ধুর ভাষণ শুনতে। সারা বিশ্বের শ্রেষ্ট ভাষণ হিসেবে এই ভাষণ স্বীকৃতি পেয়েছে।

তিনি আরও বলেন, ২০০১ এর কথা আমাকে ধানমন্ডি-১২ তে গ্রেফতার করতে চেয়েছিলো। তখন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমাকে রক্ষা করলেন এবং আমাকে জিজ্ঞেস করলেন তুমি এখানে কেন এসেছো? আমি বললাম আপনি আমার মায়ের মতো আপনি ডেকেছেন বলে আমি এসেছি। তিনি বললেন আমার গাড়িতে উঠে পর। আমরা উঠে পরলাম তিনি ৪০/৫০ টা গাড়ি নিয়ে আামদের ঢাকা শহর থেকে বের হতে সাহায্য করলেন। কতোটা মমতাবোধ তার কর্মীর জন্য। আর তার উন্নয়নের কথা বলতে গেলে আমাদের এখানের এডিসনাল এসপি (এডি. এসপি খ সার্কেল মাহিন ফরাজি) সাহেব বক্তব্যই রাখতে পারবেন না। শুধু এতটুকুই বলবো যত দিন এ দেশ শেখ হাসিনার নেতৃত্বে চলবে ততদিন এই দেশ উন্নয়নের মহাসড়কে এগিয়ে যেতে থাকবে।

এ সময় সদর মডেল থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মো. মুস্তাফিজুর রহমানের সঞ্চালনায় আও উপস্থিত ছিলেন, নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের ১৮নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মোঃ কবির হোসাইন, ১৭নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মোঃ আব্দুল করিম বাবু, বিশিষ্ঠ ব্যবসায়ী ও সমাজ সেবক ফজর আলীসহ আরও অনেকে।

0