গণপিটুনির সেই মামলার বিরুদ্ধে সদর দপ্তর ও ডিআইজি’র কাছে অভিযোগ

0

সিদ্ধিরগঞ্জ করেসপন্ডেন্ট, লাইভ নারায়ণগঞ্জ: গণপিটুনির দুটি পৃথক ঘটনায় সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় দায়ের হওয়া ৯৫জনের নামে মামলার বিরুদ্ধে এবার পুলিশ সদর দপ্তর ও ঢাকা রেঞ্জের ডিআইজি কার্যালয়ে লিখিত অভিযোগ দেয়া হয়েছে। এতে সিদ্ধিরগঞ্জ থানার দুই পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে বেশ কিছু অনিয়ম -দুর্নীতির কথা উল্লেখ্য রয়েছে বলে জানা যায়।

ঘটনার আটদিন পর শনিবার (২৭ জুলাই) পুলিশ সদর দপ্তর ও রেঞ্জ ডিআইজি কার্যালয়ে ভুক্তভোগীরা ওই অভিযোগ জমা দেন।

গত ২০ জুলাই সিদ্ধিরগঞ্জের মিজমিজি আল-আমিন নগর এলাকায় ছেলে ধরা সন্দেহে গণপিটুনীতে বাক প্রতিবন্ধী যুবক সিরাজ নিহত হয়। একই দিন মানসিক প্রতিবন্ধী শারমিন নামের এক নারী আহত হন। এই দুই ঘটনায় দুটি পৃথক মামলার দায়ের করা হয়।

সোমবার (২৯ জুলাই) দুপুরে জোবায়ের আহমেদ মুনসুরের স্বাক্ষরিত দায়ের করা অভিযোগপত্র স্থানীয় সাংবাদিকদের কাছে পৌঁছে।

ওই অভিযোগে বলা হয়, গণপিটুনির ঘটনায় দায়ের করা মামলায় যাদের আসামী করা হয়েছে সবাই সমাজের প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ি, দানবীর, শিক্ষানুরাগি, আওয়ামী লীগ,যুবলীগ ও স্বেচ্ছাসেবক লীগের নেতাকর্মী। সিদ্ধিরগঞ্জ থানার পুলিশ অফিসার সেলিম মিয়া এবং উপ-পরিদর্শক শাখাওয়াত হোসেন মৃধা আর্থিক ফায়দা লুটের জন্য এবং ব্যবসায়ীদের হয়রানীর জন্য সুকৌশলে উক্ত মামলাটি করা হয়েছে।

অভিযোগে আরো বলা হয়, ওসি তদন্ত সেলিম মিয়া ৬/৭ মাস আগে সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় যোগদানের পর বিভিন্ন ব্যবসায়ীদের দেখা করে চা খাওয়ার দাওয়াত দেন। যে ব্যবসায়ীরা তার সাথে দেখা করেন নাই তারাই আজ ওই দুটি মামলার আসামী হয়েছে। এবং অন্যদের হুমকী দিচ্ছে যে, তার সাথে দেখা না করলে বিভিন্ন মামলা দিয়ে আসামী করা হবে।

ওসি তদন্ত সেলিম মিয়ার ব্যাক্তিগত একটি হাইয়েছ গাড়ি (ঢাকা-মেট্রো-চ-১৯-৪১৮৮) রয়েছে। ওই গাড়ি নিয়ে প্রতি রাতে থানার বিভিন্ন এলাকায় ঘুরে এবং নিরীহ লোকদের কাছ থেকে টাকা পয়সা হাতিয়ে নেয় বলেও অভিযোগে উল্লেখ করা হয়। এনসিসি ৭নং ওয়ার্ডের মো: সজু নামে এক ব্যক্তিকে আটকে রেখে শারীরিক নির্যাতন করে ১০ লক্ষ টাকা আদায়ের কথাও উল্লেখ করা হয় অভিযোগটিতে।

এই বিষয়ে সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ওসি তদন্ত সেলিম মিয়া জানান, অভিযোগের বিষয়ে কিছু জানা নাই। যদি কেউ দিয়ে থাকে ভিত্তিহীন, বানোয়াট।
ব্যাক্তিগত গাড়ির বিষয়ে গাড়ি থাকার বিষয়টি অস্বীকার করেন তিনি।

0