গায়ে কেরোসিন ঢেলে ইতালী প্রবাসীর আত্মহত্যা

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, লাইভ নারায়ণণগঞ্জ: ফতুল্লায় পারিবারিক কলহের জেরে নিজের গায়ে আগুন দেয় এক ইটালী প্রবাসী। তাৎক্ষণিক তাকে ঢাকা শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে ভর্তি করা হয়। সোমবার (৩ অক্টোবর) দুপুরে চিকিৎসাধীনবস্থায় মৃত্যু বরণ করেন তিনি।

নিহত প্রবাসীর নাম হানিফ (৪৫)। সে মুন্সিগঞ্জের লৌহজং উপজেলার হলদিয়া ইউনিয়নের কাজির পাগলা এলাকার জয়নাল শেখের ছেলে। তবে এ বিষয়ে নিহতের ভাই ও নিহতের শশুর বাড়ির লোকজন তথ্য প্রদানে অনিহা প্রকাশ করে।

জানা যায়, রবিবার (২ অক্টোবর) ফতুল্লার পঞ্চবটির বন বিভাগ এলাকায় পাঁচতলা কলোনীতে, নিজের শরীরে কেরোসিন তেল ঢেলে আগুন ধরিয়ে প্রবাসী হানিফ। পঞ্চবটি কলোনীর মোসলেহ উদ্দিনের মেয়ে তানিয়া আক্তারকে ১৪ বছর পূর্বে বিয়ে করেন হানিফ। তাদের সংসারে তাফসি আল হাসান ৭বছর বয়সের একটি পুত্র সন্তান আছে। বিয়ের পর হানিফ ইটালী চলে গিয়ে ছিলেন। কয়েক বছর পরপর তিনি দেশে আসতেন। এবারও দেড় বছর পূর্বে হানিফ ইটালী থেকে দেশে ফিরেছে। কিন্তু তার স্ত্রীর সঙ্গে দেড় বছরেও একবার সরাসরি সাক্ষাত হয়নি। শ্বশুর বাড়িতে আসলেই স্ত্রীকে দেখতে পেতেন না হানিফ। এক পর্যায়ে তার শিশু সন্তানকে সঙ্গে নিয়ে যেতে চাইলে শ্বশুর বাড়ির লোকজন বাধা দেয়। এনিয়ে বাগবিতন্ডার এক পর্যায়ে হানিফ আশপাশের লোকজনদের জানান। এরপর শশুর বাড়িতে একটি রুমে নিজের শরীরে কেরোসিন তেল ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয়। এতে তার পুরো শরীর দগ্ধ হয়। তখন আশপাশের লোকজন এগিয়ে এসে আশঙ্কাজনক অবস্থায় হানিফকে হাসপাতালে নিয়ে যায়।

জানতে চাইলে নিহতের ভাই কামাল হোসেন বলেন, আজ কিছুই বলবো না। সময় হলে বলবো বলে ফোন কেটে দেয়।

এ বিষয়ে ফতুল্লা মডেল থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) আনোয়ার হোসেন মোল্লা জানান, বিষয়টি তদন্ত করে বলতে পারবো। লাশ ঢাকা মেডিকেলে রয়েছে।

ফতুল্লা মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শেখ রিজাউল হক দিপু বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। এবিষয়ে মামলা হবে।