‘ছেলে ধরা’ গুজব ঠেকাতে মাইকিং

0

সোনারগাঁ করেসপন্ডেন্ট, লাইভ নারায়ণগঞ্জ: সোনারগাঁয়ে সারাদেশের ন্যায় হঠাৎ ছেলে ধরা আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে। গুজব ঠেকাতে সোনারগাঁ থানা পুলিশের নির্দেশে প্রতিটি এলাকায় চলছে মাইকিং।

ছেলে ধরা বিষয়টি গুজব হলেও সোনারগাঁয়ের ছোট শীলমান্দি ও পিরোজপুরসহ কয়েকটি গ্রামে ছেলে ধরার অভিযোগ উঠেছে । যতটা না সত্যি তার চেয়ে বেশী গুজব রটছে প্রতিদিন-প্রতিনিয়ত। মানুষ বুঝে না বুঝে এ রটনা রটিয়ে চলছে। যা নিয়ে বিষ্মিত ও ক্ষুব্দ সোনারগাঁ উপজেলাবাসী।

সূত্রমতে, কিছু দিন যাবত পদ্মাসেতু নিয়ে একটি গুজব ছড়াচ্ছে কুচক্রি মহল। তারা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহার করে প্রচার করছে, পদ্মা সেতুর পাইলিং কাজ শেষ করা যাচ্ছে না এ জন্য মানুষের মাথা লাগবে।

সচেতন মহলের মতে, আইন প্রয়োগকারী সংস্থাকে এখনি কঠোর হাতে এসব দমন করতে হবে। পাশাপাশি প্রয়োজনে নুতন আইন করে এইসব গুজব রটনাকারী, তাদের পেছনের কারিগর ও গণপিটুনির শাস্তি সর্বোচ্চ করতে হবে। তবেই পিছু হটবে ষড়যন্ত্রকারীরা।

এবিষয়ে সোনারগাঁ থানার ভারপ্রপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মনিরুজ্জামান বলেন, ছেলে ধরা অপরাধ, গণপিটুনি জঘন্য অপরাধ। আর আমরা তা বন্ধ করতে সোনারগাঁ উপজেলার প্রত্যেকটি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানদের ও পৌরসভার মেয়রকে বলেছি প্রতিটি এলাকায় মাইকিং করে জানিয়ে দেয়া হচ্ছে, ছেলে ধরাকে কেন্দ্র করে আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি অবনতি ঘটানোর চেষ্টা করবেন না। কোন গুজবে কান দিবেন না। আইন নিজের হাতে তুলে নিবেন না। আপনারা কাউকে সন্দেহ করলে পুলিশকে জানাবেন।

রোববার (২১ জুলাই) দুপুরে ‘ছেলে ধরা’ গুজব ছড়ানোকে কেন্দ্র করে এক ব্রিফিংয়ে পুলিশ সুপার হারুন অর রশিদ বলেন- একটি গোষ্ঠী এই ছেলে ধরাকে কেন্দ্র করে আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি অবনতি ঘটানোর চেষ্টা করছে। তাই গুজবে কান দিবেন না। আইন নিজের হাতে তুলে নিবেন না। আপনারা কাউকে সন্দেহ করলে পুলিশকে জানাবেন।

জেলা পুলিশ সুত্রে জানা যায়, গতশনিবার সিদ্ধিরগঞ্জে ৩০ বছরের এক যুবক গণপিটুনিতে মারা গেছে, সে বাক প্রতিবন্ধী ছিল। ছেলে ধরা বিষয়টি গুজব ছিল। ঐ ঘটনায় মামলা রুজু করা হয়েছে। এই গুজবে ফতুল্লায় একটি মহিলাকে মারপিঠের ঘটনাও গঠেছে। সিদ্ধিরগঞ্জ ও ফতুল্লার ঘটনায় মামলা হয়েছে এবং ১৪ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

0