জানাজার নামাজ পড়ালেন ছোট শিশুটি

0

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, লাইভ নারায়ণগঞ্জ: মাইকে ঘোষনা ‘ব্যারিস্টার রফিক সাহেবের বাবা উমুক ইন্তেকাল করেছে’। এরপরই কেউ কেউ ভেঙ্গে পড়েছে কান্নায়। এরই মধ্যে ময়দানে আনা হয়ে গেছে লাশও। কিছুক্ষনের মধ্যে ইমাম সাহেব পড়ান শুরু করলেন জানাজার নামাজ। সব কিছু ঠিক ঠাকই চলছিল। বিপত্তি বাঁধলো জানাজার মধ্যে হঠাৎ হাউ মাউ করে কান্নার শব্দে। নামাজ শেষে ইমাম সাহেব জিজ্ঞাস করলেন কান্না কেন? উত্তরে ব্যারিস্টার রফিক সাহেব কান্না জড়িত কন্ঠে বলছিলেন, আমি এত পড়া লেখা করেছি, কিন্তু জানাজার নামাজ পড়তে পাড়ছি না।

শুক্রবার (১৩ নভেম্বর) সকাল ১০টার দিকে জেলা সরকারি গণগ্রন্থাগারে ছোট ছোট শিশু শিক্ষার্থীদের অভিনয়ে পরিচালিত একটি নাটিকার দৃশ্য ছিল এটি। চাষাঢ়ার জামতলা এলাকায় অবস্থিত দারুল ফাতাহ একাডেমির ফলাফল প্রকাশ ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে ওই প্রতিষ্ঠানটির শিক্ষার্থীরা নাটকটিতে অভিনয় করছিল।

এর আগে, গল্প, ইসলামী সংগীত, ইসলামী সাহিত্য ও কবিতা পাঠের আসর হয়েছে।

প্রতিষ্ঠানটির পরিচালনা পরিষদের সভাপতি মাও. মো. ওমর ফারুক’র সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানটিতে প্রধান অতিথি ছিলেন বিশ্বাস গ্রুপের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ সুমন।

বিশেষ অতিথি ছিলেন বিশিষ্ট ব্যবসায়ী মান্নান বেপারী, মো. সাইদ হোসেন ও জুলফিকর আলী।

বক্তব্য রাখছে প্রতিষ্ঠানটির পরিচালক মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন

অনুষ্ঠানটির দ্বিতীয় পর্বে অভিভাবক সিরাজ হোসেন জানান, বর্তমানে যারা জেনারেল লাইনে লেখাপড়া করে তাদের শুধু জেনারেল নিয়েই অভিজ্ঞতা থাকে। কিন্তু ধর্মীয় জ্ঞান থাকে না। এখানে (দারুল ফাতাহ একাডেমি) ধর্মীয় শিক্ষার পাশাপাশি বাংলা ও ইংরেজি পড়ানো হচ্ছে। তাই আমি আমার সন্তানকে এই প্রতিষ্ঠানে ভর্তি করে গর্বিত।

এসময় আরেক জন অভিভাবিকা বলছিলেন, দারুল ফাতাহ একাডেমিতে পড়িয়ে তার সন্তানের যতেষ্ঠ উন্নতি হয়েছে।

পতিষ্ঠানটির পরিচালক মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন বলেন, ধর্মীয় শিক্ষার পাশাপাশি প্রতিটি শিক্ষার্থীকে আধুনিক শিক্ষায় শিক্ষিত করে মানবীয় গুনাবলীর উৎকর্ষ সাধনের মাধ্যমে সুনাগরিক হিসেবে গড়ে তোলাই হচ্ছে আমাদের উদ্দেশ্য। সেই লক্ষ্যকে সামনে রেখে ২০১৫ সাল থেকে আমরা চেষ্টা করে যাচ্ছে শিক্ষার্থীদের সুন্দর ভবিষ্যতের শ্রেষ্ঠ নির্মাতা হতে।

প্রসঙ্গত, প্রাইভেট স্কুল এসোসিয়েশন কর্তৃক আয়োজিত ২০১৮ সালের বৃত্তি পরীক্ষায় প্রতিষ্ঠানটি থেকে বৃত্তি পেয়েছে ৬ জন শিক্ষার্থী।

0