জুমাতুল বিদায় মুসল্লিদের ঢল, চো‌খের জ‌লে আ‌মিন ধ্ব‌নি

0

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, লাইভ নারায়ণগঞ্জ: ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে এবং করোনা ভাইরাস থেকে মুক্তি কামনায় শুক্রবার (২২ মে) শিল্প নগরী নারায়ণগঞ্জে পবিত্র জুমাতুল বিদা পালিত হয়েছে।

এর আগে, এই রমজানে প্রথম জুমার দিন অতিবাহিত হলেও করোনা সংক্রামণের ঝুঁকির কারণে অনধিক ১০ জন জুমা আদায় বন্ধ ছিল মসজিদগুলোতে। তাই ধর্মপ্রাণ মুসলমানরা রমজানের শেষ জুমায় শামিল হন।

জুমার আজানের পর শহরের চাষাঢ়া নূর মসজিদ, বাইতুল আমান জামে মসজিদ, ডিআইটি জামে মসজিদ, মাসদাইর কবরস্থান মসজিদসহ বিভিন্ন মসজিদে নামাজে উপচেপড়া ভিড় লক্ষ্য করা যায়। মসজিদের নামাজের সারি চলে আসে সড়কেও। প্রতিটি মসজিদেই ছিল সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখায় চেষ্টা। সরকারি নির্দেশনাগুলো মেনেই প্রতিটি মসজিদে নামাজ আদায় হয়েছে বলে জানা গেছে।

দেওভোগ বড় মসজিদ ও নুর মসজিদ

জুমাতুল বিদার খুতবায় উচ্চারিত হয় ‘আলবিদা, আল বিদা, ইয়া শাহর রামাদান। অর্থাৎ বিদায়, বিদায় হে মাহে রমজান। জুমার দুই রাকাত নামাজ শেষে নারায়ণগঞ্জসহ গোটা দেশ ও জাতির সুখ, সমৃদ্ধি, কল্যাণ ও মুসলিম উম্মাহর ঐক্য ও শান্তি এবং কল্যাণ কামনা করে বিশেষ মোনাজাত করা হয়। দোয়া করা হয় বছরের বাকী দিনগুলোতে যেন পাপ ও অকল্যাণ থেকে মুক্ত থাকা যায়। বর্তমান সময়ে সাড়া বিশ্বে চলা মহামারি করোনা ভাইরাস থেকেও মুক্তি চাওয়া হয়। এ সময় আমিন ধ্ব‌নিতে মুখরিত হয় প্রতিটি মসজিদের আশপাশের এলাকা।

রহমত, বরকত, মাগফিরাত ও নাজাতের মাস রমজানের শেষ জুমা অত্যন্ত গুরুত্ব সহকারে পালন করে থাকেন ধর্মপ্রাণ মুসলমানরা। একইসঙ্গে এদিনকে আল কুদস দিবস হিসেবেও অভিহিত করা হয়।

ইসলামী চিন্তাবিদদের মতে, রমজান মাসের সর্বোত্তম বা উৎকৃষ্ট দিবস হলো জুমাতুল বিদা। রমজান মাসের শেষ শুক্রবার অথবা শেষ জুমাবারের দিন জুমাতুল বিদা হিসেবে মুসলিম বিশ্বে পরিচিত। এ মাসের শেষ জুমার দিন পালিত হয় আল কুদ্স দিবস। তাই দিনটির গুরুত্ব ও তাৎপর্য অপরিসীম।স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, লাইভ নারায়ণগঞ্জ: ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে এবং করোনা ভাইরাস থেকে মুক্তি কামনায় শুক্রবার (২২ মে) শিল্প নগরী নারায়ণগঞ্জে পবিত্র জুমাতুল বিদা পালিত হয়েছে।এর আগে, এই রমজানে প্রথম জুমার দিন অতিবাহিত হলেও করোনা সংক্রামণের ঝুঁকির কারণে অনধিক ১০ জন জুমা আদায় বন্ধ ছিল মসজিদগুলোতে। তাই ধর্মপ্রাণ মুসলমানরা রমজানের শেষ জুমায় শামিল হন।

জুমার আজানের পর শহরের চাষাঢ়া নূর মসজিদ, বাইতুল আমান জামে মসজিদ, ডিআইটি জামে মসজিদ, মাসদাইর কবরস্থান মসজিদসহ বিভিন্ন মসজিদে নামাজে উপচেপড়া ভিড় লক্ষ্য করা যায়। মসজিদের নামাজের সারি চলে আসে সড়কেও। প্রতিটি মসজিদেই ছিল সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখায় চেষ্টা। সরকারি নির্দেশনাগুলো মেনেই প্রতিটি মসজিদে নামাজ আদায় হয়েছে বলে জানা গেছে।

জুমাতুল বিদার খুতবায় উচ্চারিত হয় ‘আলবিদা, আল বিদা, ইয়া শাহর রামাদান। অর্থাৎ বিদায়, বিদায় হে মাহে রমজান। জুমার দুই রাকাত নামাজ শেষে নারায়ণগঞ্জসহ গোটা দেশ ও জাতির সুখ, সমৃদ্ধি, কল্যাণ ও মুসলিম উম্মাহর ঐক্য ও শান্তি এবং কল্যাণ কামনা করে বিশেষ মোনাজাত করা হয়। দোয়া করা হয় বছরের বাকী দিনগুলোতে যেন পাপ ও অকল্যাণ থেকে মুক্ত থাকা যায়। বর্তমান সময়ে সাড়া বিশ্বে চলা মহামারি করোনা ভাইরাস থেকেও মুক্তি চাওয়া হয়। এ সময় আমিন ধ্ব‌নিতে মুখরিত হয় প্রতিটি মসজিদের আশপাশের এলাকা।

রহমত, বরকত, মাগফিরাত ও নাজাতের মাস রমজানের শেষ জুমা অত্যন্ত গুরুত্ব সহকারে পালন করে থাকেন ধর্মপ্রাণ মুসলমানরা। একইসঙ্গে এদিনকে আল কুদস দিবস হিসেবেও অভিহিত করা হয়।

ইসলামী চিন্তাবিদদের মতে, রমজান মাসের সর্বোত্তম বা উৎকৃষ্ট দিবস হলো জুমাতুল বিদা। রমজান মাসের শেষ শুক্রবার অথবা শেষ জুমাবারের দিন জুমাতুল বিদা হিসেবে মুসলিম বিশ্বে পরিচিত। এ মাসের শেষ জুমার দিন পালিত হয় আল কুদ্স দিবস। তাই দিনটির গুরুত্ব ও তাৎপর্য অপরিসীম।

0