জেএমবির শীর্ষ জঙ্গি নাগঞ্জ আদালতে, সাক্ষ্যগ্রহণ ২৫ মার্চ

0

লাইভ নারায়ণগঞ্জ: জেএমবির সাবেক প্রধান মাওলানা সাইদুর রহমান ওরফে সাইফুর রহমান আইয়ুব ও মো. আমির হোসেনের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য গ্রহণের তারিখ আবারও পিছিয়েছে।


বুধবার ( ২০ জানুয়ারি ) সন্ত্রাস বিরোধী একটি মামলায় তাদের বিরুদ্ধে সাক্ষ্যগ্রহণের দিনধার্য ছিলো। তবে, কোনো সাক্ষী এদিন হাজির না হওয়াতে আগামী ২৫ মার্চ সাক্ষ্য গ্রহণের নতুন দিন ধার্য করেছেন সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট শেখ রাজিয়া সুলতানার আদালত।

এর আগে (১৯ জানুয়ারী) সকালের দিকে কাশিপুর কারাগার থেকে জেএমবির ওই দুইজনকে কড়া নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে নারায়ণগঞ্জের আদালতে নিয়ে আসা হয়। তাদেরকে ঘিরে এদিন আদালত পাড়ায় নিরাপত্তা ব্যবস্থাও জোরদার ছিলো।

দেশকে অস্থিতিশীল করার চেষ্টার অভিযোগে ঢাকার কদমতলী থানায় সাইদুর রহমানের বিরুদ্ধে মামলা হয়। অভিযোগপত্র দায়েরের পর ২০১১ সালের ১৬ জানুয়ারি থেকে বিচার কাজ শুরু হয়। আদালত রাষ্ট্রপক্ষের পাঁচজনের সাক্ষ্য গ্রহণ করে। তারপর প্রক্রিয়াগত ত্রুটির কারণে এক সময়ের এই মোস্ট ওয়ান্টেড আসামির কার্যক্রম থেমে যায়।

“সন্ত্রাস বিরোধী আইনে হওয়া মামলার কাজ শুরু করতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অনুমতি নেওয়ার বাধ্যবাধকতা আছে। অনুমতি না নিয়েই মামলার কাজ শুরু হয়। ক্রুটিটির বিষয় চোখে পড়ায়, মাঝপথে বিচার আটকে যায়। নতুন করে বিচার শুরুর দুই মাসের মাথায় আজ (বৃহস্পতিবার) রায় হলো,” বেনারকে বলেন মনজুর মওলা।

জানা গেছে, ২০১৫ সালের ৮ সেপ্টেম্বর নতুন করে নথি পাঠানো হলে পরের বছরের ২৬ আগস্ট অনুমোদন দেয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। এরপর ২০১৭ সালের এপ্রিলে সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু হয়। রাষ্ট্রপক্ষে ১৫ জনের সাক্ষ্য গ্রহণ করা হয়। একই বছরের ৮ মে সাইদুর রহমানের আত্মপক্ষ সমর্থনের শুনানি শেষ হয়।

সাইদুর রহমানের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসবিরোধী আইনে শিবগঞ্জ থানা ও কদমতলী থানায় মামলা আছে। অপর একটি মামলায় তার যাবজ্জীবন কারাদণ্ড হয়। এই মামলার অপর আসামি আবদুল্লাহ হেল কাফি জামালপুর থানার একটি মামলার আসামি।

উল্লেখ্য, ২০০৫ সালে ১৭ আগস্ট একযােগে সারা দেশে বোমা হামলার পরপরই শামীমকে সন্ত্রীক গ্রেফতার করা হয়। সাইদুরের মেয়ে শিরিনের স্বামী জেএমবির প্রতিষ্ঠাকালীন সময়ের সামরিক শাখার প্রধান আতাউর রহমান সানী।

0