ডিএনডির মধ্যে পাউবি, এনসিসি এবং সেনাবাহিনীর কাজ আলাদা আলাদা: মেজর হায়দার

0

লাইভ নারায়নগঞ্জ: নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জে ডিএনডি (ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ-ডেমরা) প্রকল্পের উন্নয়ন ও অগ্রগতি শীর্ষক মতবিনিময় সভা করেছেন ১৯ ইঞ্জিনিয়ারিং কনস্ট্রাকশন ব্যাটালিয়নের মেজর সৈয়দ মোস্তাকীন হায়দার।

বুধবার (৪ মার্চ) দুপুরে সিদ্ধিরগঞ্জের ওয়াপদা কলোনির সেনা ক্যাম্পে এ মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সভায় মেজর সৈয়দ মোস্তাকীন হায়দার ডিএনডি প্রকল্পের বিভিন্ন উচ্ছেদ, ময়লা-আবর্জনা পরিস্কার, খাল খনন, নতুন পাম্প হাউস স্থাপনসহ বিভিন্ন কর্মকা তুলে ধরেন। ৯৩ কিলোমিটার খালের মধ্যে ৮৮ কিলেমিটার খালের অস্তিত্ব তারা পেয়েছেন বলে জানান।

হায়দার জানান, উচ্চ আদালতে রিট থাকার কারনে হাতে গোনা কয়েকটি স্থাপনা ভাঙা হয়নি। হাতিরঝিলের আদলে এই ডিএনডির উন্নয়নমূলক কাজ চলছে।

তিনি আরও বলেন, ডিএনডির মধ্যে পানি উন্নয়ন বোর্ড, নারায়ণগঞ্জ সিটি করপেরেশন এবং সেনাবাহিনীর কাজ আলাদা আলাদা। ডিএনডি প্রকল্পের সার্বিক অগ্রগতি হয়েছে ৭৫ শতাংশ। ২০১৭ সালের ৫ ডিসেম্বর ডিএনডির কাজ শুরু করে সেনাবাহিনী। ৫৫৮ কোটি টাকার এ কাজ বাড়ানো হয়েছে তাদের পেশকৃত বাজেট বরাদ্দ দিলে ২০২২ সালের জুন-জুলাই মাসে ডিএনডি প্রকল্পের কাজ শেষ হবে।

এদিকে, বিভিন্ন সংবাদকর্মী স্থানীয়দের অভিযোগের ভিত্তিতে মেজর সৈয়দ মোস্তাকীন হায়দারকে অবহিত করেন পানি উন্নয়ন বোর্ডের চিহ্নিত অধিগ্রহণভুক্ত জমির সীমানা পর্যন্ত অনেক স্থানের অবৈধ স্থাপনা ভাঙেনি পাউবোর দায়িত্ব প্রাপ্তরা।

এসময় উপস্থিত পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপসহকারী প্রকৌশলী মো. নিজাম উদ্দিন বলেন, আমরা উচ্ছেদ করতে গিয়ে কোনো কার্পণ্য করিনি। যেসব সীমানা দেওয়া জায়গার স্থাপনা ভাঙা হয়নি, সেগুলো পরে ভাঙা হবে। উচ্ছেদ কাজ এখনও শেষ হয়নি।

তিনি আরও বলেন, কেউ কেউ স্থাপনার ওপর উচ্চ আদালতে রিট করে রাখার কারণে আমরা ওই স্থাপনাগুলো উচ্ছেদ করতে পারছি না।

0