ধর্ম যার যার ‘লাটিম’ সবার: কাউন্সিলর প্রার্থী শকু

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, লাইভ নারায়ণগঞ্জ: নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে ১২নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর প্রার্থী (লাটিম মার্কা) শওকত হাসেম শকুর উঠান বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। রোববার (২ জানুয়ারি) বাদ আসর মিশনপাড়ায় এলাকাবাসীর পক্ষ থেকে এ উঠান বৈঠকের আয়োজন করা হয়।

অনুষ্ঠানে মিশনপাড়া এলাকার শতশত নারী-পুরুষ সমাবেত হয়ে কাউন্সিলর প্রার্থী শওকত হাসেম শকুর পক্ষে লাটিম মার্কায় স্লোগান দিয়ে মুখরিত করে তোলে পুরো এলাকা। এলাকাবাসী কাউন্সিলর প্রার্থী শকুর প্রতি গভীর ভালোবাসা দেখিয়ে বলেন, ওনার (শকু) এখানে আসার কোন দরকার নাই। উনি আমাদের জন্য যে উন্নয়ন করেছে তাতে আমাদের ওনার কাছে যাওয়া উচিত। আমরা সকলেই ১৬ তারিখ সকালে গিয়ে শকু ভাইয়ের লাটিম মার্কায় ভোট দিয়ে তাকে জয়যুক্ত করবো।

এলাকাবাসীর এতো ভালোবাসা দেখে আবেগি হয়ে উঠেন কাউন্সিলর প্রার্থী শওকত হাসেম শকু। এলাকাবাসীর উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, আপনাদের এতো ভালোবাসা দেখে আমি সত্যিই অবাক। আপনাদের জন্য আমি যতটুকু করেছি এই ভালোবাসার পরিমান তার চেয়ে বেশি। আপনাদের ভোটে জয়ী হলে এই ওয়ার্ডকে ডিজিটাল ভাবে গড়ে তোলার প্ল্যানিং আমি করে রেখেছি। সেই ২০০৩ সালে যখন আমি এখানে ছিলামও না তখন আপনারা আমাকে ভোট দিয়ে জয়ী করিয়েছিলেন। আপনাদের প্রতিটি বিষয়ে আমার ও আমার পরিবারের মুখস্থ।

কাউন্সিলর প্রার্থী শকু আরও বলেন, আপনাদের এই এলাকা অবহেলিত ছিল, এই এলাকা এখন বড় বড় ভবন নির্মাণ হচ্ছে। আমি চাই আপনাদের সহযোগীতায় এই মিশনপাড়া আরও উন্নত করে তুলতে। আপনারা এখানে একটি স্থান আমাকে নির্বাচন করে দেন, আমি নিজ অর্থায়নে এখানে একটি পাঠাগার করে দিবো। এবার আমাদের স্লোগান হবে দিন বদলের মার্কা, লাটিম মার্কা। গঠনমূলক আলোচনা হলে সেখান থেকে আমরা নতুনভাবে শুরু করতে পারি।

তিনি বলেন, মহামারী করোনা সময় আমি আপনাদের পাশে ছিলাম, আপনাদের ঘরের ঘরের খোজখবর নিয়েছি। এই ওয়ার্ডে রয়েছে খানপুর হাসপাতাল, সেটা সরকার করোনা হাসপাতালে রূপ দিয়েছিল। অনেকে রোগী ভর্তি ও মৃত রোগীদের সংগ্রহ গোসল দাফনে আমার টিম সব সময় দায়িত্ব পালন করেছে।

তিনি আরও বলেন, পুরো ১২নং ওয়ার্ডে আমরা অনেক কাজ করেছি। এমপি সেলিম ওসমান তার নিজস্ব ফান্ড থেকে প্রায় ১ কোটি টাকা আমাদের উন্নয়নের জন্য দিয়েছিলেন। সেগুলো আমরা এলইডি বাতি, সাবমারসিবল কলসহ নানা কাজ করেছি। নিজের ভোট এবার নিজে বের করে নিজেই দিব। আগে ভোটার স্লিপ দিতে হতো তার জন্য অপেক্ষা করতে হতো। আমার এ্যাপস চলে আসবে আপনাদের কাছে। এবার আমরা ডিজিটাল ওয়ার্ড করবো এটাই আমার অঙ্গীকার। যেমন ধর্ম যার যার উৎসব সবার, তেমনই ধর্ম যার যার লাটিম সবার। সবাই আমার জন্য দোয়া করবেন, যতদিন বেঁচে আছি আমি আপনাদের সেবা করবো, ভোট চাই আমার জন্য।

এসময় ব্যবসায়ী জাহিদ আহম্মেদের সভাপতিত্বে উপস্থিত ছিলেন, শকু’র সহধর্মিনী দিপা হাসেম, ফকরুল ইসলাম মজনু, মোঃ আরিফ দীপু, ইশবাল আহম্মেদ শ্যামল, সাবেক কমিশনার আজহার হোসেন, মোঃ আব্দুস সামাদ, জহির আহম্মেদ সোহেল, মোসলে উদ্দিন খোকন, তানসেন আহম্মেদ, মাহবুব আলী সুমন, জহির আহম্মেদ সোহেল, হুমায়ূণ কবির ভূইয়া, মোঃ মোতালেব, মোঃ আব্দুর জলিল, ফয়েজ উদ্দিন বাদল ও অহিদুর রহমান, ফারুক আহম্মেদ রিপন প্রমুখ।