ধলেশ্বরীর ওইপারে ফেলে দিবো: খোকন সাহা

0

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, লাইভ নারায়ণগঞ্জ: আজ পুরাতন বারের ১৬ লাখ টাকার কোনো হদিস নাই। আজাদ সাহেব ২০০৩ সালে বার থেকে ২ লাখ টাকা হাওলাত নিয়েছিলেন। আমি মোহসীন সাহেবকে অনুরোধ করবো আপনি নির্বাচিত হলে এই দুই লাখ টাকা আইনের মাধ্যমে বের করবেন। কারণ আইনজীবীদের টাকা কাউকে ব্যাক্তিগত ভাবে আত্মসাৎ করতে দিবো না।

মঙ্গলবার ( ২৬ জানুয়ারী ) দুপুরে নারায়ণগঞ্জ আদালত প্রাঙ্গনে আগামী ২৮ জানুয়ারী অনুষ্ঠিত নারায়ণগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির নির্বাচন উপলক্ষ্যে বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদ সমর্থিত সম্মিলিত আইনজীবী সমন্বয় পরিষদের মোহসীন-মাহাবুব প্যানেলের পক্ষে প্রচারণাকালে নারায়ণগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সাধারন সম্পাদক ও মহানগর আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক এড. খোকন সাহা এসব কথা বলেন।

এড. খোকন সাহা বলেন, গত নির্বাচন গুলোতে আমাদের প্রার্থীরা নির্বাচিত হয়ে প্রায় ১৪ কোটি টাকা জমিয়েছে এখন তাদের নজর পরেছে এই ১৪ কোটি টাকার উপরে। ২০১২ সালে ১ কোটি ৯৩ লাখ টাকা রেখে গেছিলাম গত ৮ বছরে আমার পরে ওরা এসে ১৪ কোটি টাকা জামিয়েছে। আমার মনে হয় না এদের ভোট দেয়া উচিৎ। আগামী ২৮ তারিখের নির্বাচনে আমরা বিকাল ৫ টার ভোট গননার পর দেখিয়ে দিতে চাই, যেভাবে বাংলার জনগণ মেডাম খালেদা জিয়াকে শীতলক্ষ্যায়, পদ্মায় নিক্ষেপ করেছে। আমরা নির্বাচনের ফলাফল নিয়ে ধলেশ্বরীর ওইপারে ফেলে দিবো। আমাদের কথা খুবই স্পষ্ট।

খোকন সাহা আরো বলেন, এই বিল্ডিং করেছে সেলিম ওসমান এই জায়গা দিয়েছেন শামীম ওসমান। কোনো টাকা লাগে নাই। একদিন দেখবেন বিনা পয়সায় আমরা একটা ১০ তলা বিল্ডিং করে ফেলবো। ২০০৫ সালে সরকারী টাকা আত্মসাৎ করে ৩৫ লাখ টাকা নিয়ে, ১৭ লাখ টাকার কাজ করে বাকি টাকার হিসেব দেয়নি। ৩য় তলা ভবন জামায়াত বিএনপির জন্য বরাদ্ধ রেখেছিলো। কিন্তু আমরা সেটা করি নাই। আমরা এ্ই ভবন পুরো উন্মুক্ত রেখেছিলাম। এখানে কারো পার্সোনাল চেম্বার হবে না। অন্তত মোহসীন মাহবুব থাকা কালীন আমরা এখানে কোনো পার্সোনাল চেম্বার করতে দিবো না।

জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক এই সাধারন সম্পাদক বলেন, এখানে আশার পূর্বে আমি দেখলাম আমার এক কালীন নেতা মিছিল নিয়ে যাচ্ছে। ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি বজলুর রহমান। এখন উনি বিএনপি জাতীয় দলের আইনজীবী ফোরামের সদস্য সচিব। আমার খারাপ লেগেছে মিছিলটা দেখে। রাজনীতি উনি করতেই পারে এটা তার নাগরীক অধিকার। আমরা এক সময় বজলু ভাইয়ের নেতৃত্ব গণতন্ত্রের জন্য সন্ত্রাস বিরোধী আন্দোলন করতাম, অনেক দিন উনার সাথে রাজ পথে ছিলাম।

ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি বজলুর রহমান কে উদ্দেশ্য করে খোকন সাহা বলেন, আজকে দেখলাম বজলু ভাই এমন পল্টি খেয়েছেন, উনি আজ আগুন সন্ত্রাসীদের নিয়ে মিছিল করছেন। যাই হোক আমার এককালীন নেতা বজলু ভাই, আপনি গণতন্ত্রের আন্দোলন করেছেন আমরাও করেছি। আমরা তো আপনার কাছে থেকে শিখেছি গণতন্ত্রিক চর্চা, গনতন্ত্র প্রতিষ্ঠা কিভাবে করতে হয়। আমরা আওয়ামীলীগ সেভাবেই কাজ করছি এবং আইনজীবী সমিতি সেভাবেই কাজ করে যাচ্ছে। আমরা আপনাদের আসস্থ করতে চাই নির্বাচন অবাধ সুষ্ঠু এবং নিরপেক্ষ হবে, এ নিয়ে কোনো ইস্যু চলবে না। বজলু ভাই থেকে যে রাজনীতি শিখেছি সেই রাজনীতি এইবার এই নির্বাচনে প্রয়োগ করতে চাই। আবার নির্বাচনের পরে বইলেন না নির্বাচন নিরপেক্ষ হয় নাই।

এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন, পিপি এড. ওয়াজেদ আলী খোকন, নারায়ণগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি এড. হাসান ফেরদৌস জুয়েল, মোহসীন-মাহাবুব প্যানেলের সকল প্রার্থীসহ সাধারন আইনজীবীরা।

0