‘নারায়ে তাকবীর আল্লাহু আকবার’ শ্লোগানে পাক বাহিনীকে খুশি করেছিলো: ভিপি বাদল

লাইভ নারায়ণগঞ্জ: সাম্প্রদায়িক সহিংসতার বিরুদ্ধে ‘সম্প্রীতি সমাবেশ ও শান্তি শোভাযাত্রা’কর্মসূচি পালন করেছে নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগ। মঙ্গলবার (১৯ অক্টোবর) ২নং রেলগেইট এলাকায় নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের কার্যলয়ে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।  

সমাবেশ শেষে বঙ্গবন্ধু সড়কে শতাধিক নেতাকর্মী নিয়ে ‘হিন্দু মুসলিম ভাই ভাই, উগ্রবাদীদের ঠাই নাই’ এই শ্লোগানকে সামনে রেখে একটি শোভাযাত্রা করে, কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে গিয়ে শেষ করেন নেতৃবৃন্দ।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন, নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবু হাসনাত মো. শহীদ বাদল (ভিপি বাদল), উপ প্রচার সম্পাদক নাছির উদ্দিন, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক এড. নুরুল হুদা, নারায়ণগঞ্জ জেলা শ্রমিক লীগের আহবায়ক আব্দুল কাদের, যুগ্ম আহবায়ক কামাল হোসেন, যুব শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক মোক্তার হোসেন, বঙ্গবন্ধু সৈনিক লীগের সভাপতি জসিম উদ্দিন, রূপগঞ্জ উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান ফেরদৌসী আলম নিলাসহ নেতৃবৃন্দ।

সমাবেশে নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবু হাসনাত মো. শহীদ বাদল (ভিপি বাদল) বলেন, এই সমাবেশের নাম সাম্প্রদায়ক সম্প্রীতি সমাবেশ। এখান থেকে আমরা দিক নির্দেশনা মেনে চলবো। বাংলাদেশকে অস্থতিশীল করার জন্য কিছু লোক আছে, যারা নাকি ধর্মকে নিয়ে ১৯৭১ সালের মতো যেমন ‘নারায়ে তাকবীর আল্লাহু আকবার’ এর মতো শ্লোগান দিয়ে পাকিস্তানী হানাদার বাহিনীদের খুশি করেছিলো। পাকিস্তানে দল গুলোর নাম ছিলো  জামায়েত ইসলাম, তারা সেই বাংলাদেশেকে সংগ্রাম করতে দেয় নাই। মুক্তিযোদ্ধাদের ঘর থেকে ডেকে এনে তাদের নির্যাতিত এবং হত্যা করে। বাংলার ঘরে ঘরে আমার মা বোনদের ইজ্জত লুন্ঠন করা হতো। ঐ রাজাকার আলবদলরা  ঘর থেকে বের করে এনে নির্যাতন করতো, ধর্মের নাম বিক্রি করে ধর্মকে কলঙ্কিত করেছে। ঐ রাজাকাররা উগ্রবাদীগোষ্ঠী।

তিনি বলেন, বাংলাদেশ হিন্দু, মুসলিম, বোদ্ধ, খ্রিস্টান সকলে ভাই ভাই। আমরা সবাই এক, একজন হিন্দুর হাত কাটলে যে রক্ত বের হবে, আমাদেরও তাই বের হবে।  হিন্দুদের দুই টা চোখ একটা নাক আমারও দুই টা চোখ একটা নাক। এইটা আল্লাহ বিধান, এইটা মেনে নিতে হবে। আমার ইসলাম ধর্ম তো বলে নাই হিন্দুরা তাদের ধর্মীয় উপাসনালয় করতে পারবে না। নারায়ণগঞ্জে কবরস্থান দেখলে বুঝবে, এক দিকে মুসলামনদের কবরস্থান অন্য দিকে হিন্দুদের শ্মশান এবং আরেক দিকে খ্রিস্টানদের কবর। এইটা নারায়ণগঞ্জে বিরল। সারা বাংলাদেশে আমরা হিন্দু মুসলিম সকলে এক সাথে বসবাস করি।