না.গঞ্জের জমি নিয়ে সরকারি দুই সংস্থা মুখোমুখি

0

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, লাইভ নারায়ণগঞ্জ: নারায়ণগঞ্জ রেল স্টেশন এলাকায় শীতলক্ষ্যার তীরবর্তী জমি। মালিক কে? এ নিয়ে বছর খানেক ধরে বিরোধ চলছে সরকারেরই দু’টি সংস্থা মধ্যে। একটি ‘বিআইডব্লিউটিএ’, আরেকটি ‘রেলওয়ে’। দুই সংস্থার চলমান বিরোধকে কেন্দ্র করে বাকযুদ্ধসহ হাতাহাতির ঘটনাসহ মসজিদের মিম্বার ও সীমানা পিলার ভেঙ্গে ফেলার ঘটনাও ঘটেছে।

তাদের বিরোধ নিস্পত্তির লক্ষ্যে ৫ সংস্থার সমন্বয়ে উচ্চ পর্যায়ের একটি কমিটি গঠন করা হয়। এরপরেও উভয়পক্ষের মধ্যকার বিরোধ নিস্পত্তির লক্ষণ নেই।

জমিটির মালিকানা বিরোধের নিস্পত্তি নিয়ে গত ১৫ সেপ্টেম্বর রেলপথ মন্ত্রণালয় ১৬ সেপ্টেম্বর বিআইডব্লিউটিএ’র সাথে সমস্যার নিরসণের লক্ষে আন্তঃমন্ত্রণালয়ের সভার তারিখ নির্ধারণ করেন। কিন্তু ‘অনিবার্য কারণ’ দেখিয়ে সেই সভা স্থগিত করা হয়। পরবর্তী তারিখ নির্ধারণ করা হয় ২০ সেপ্টেম্বর। কিন্তু পরবর্তীতে ১৬ সেপ্টেম্বর আরও একটি স্মারকে সেই ২০ সেপ্টেম্বরের সভাও স্থগিত করা হয়।

২০১৯ সালের ৩ ফেব্রুয়ারীতে নদীকে জীবন্ত সত্বা ঘোষণা করে রায় দেন হাইকোর্ট। এরপর গত বছরে শীতলক্ষ্যা নদীতে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ শেষে চলতি বছরের মাঝামাঝি সময়ে হাইকোর্টের নির্দেশে গ্লোবাল পজিশনিং সিস্টেম (জিপিএস) পদ্ধতিতে সিএস জরিপ মোতাবেক শীতলক্ষ্যা ও ধলেশ্বরী নদীর উভয়তীরে ২ হাজার ৪০০ টি নতুন সীমানা পিলার স্থাপন করার কাজ শুরু হয়। তবে গত অক্টোবরের শুরু নারায়ণগঞ্জ রেলস্টেশন সংলগ্ন এলাকায় ‘ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ সেকশনে বিদ্যমান মিটারগেজ রেল লাইনের সমান্তরাল একটি ডুয়েলগেজ রেল লাইন নির্মাণ’ শীর্ষক প্রকল্পের কাজ শুরু হলে দুই পক্ষের মধ্যে সৃষ্টি হয় বিরোধ। যার মধ্যে সীমানা পিলার ভেঙ্গে ফেলাসহ মসজিদের মিম্বারও ভেঙ্গে দেয়ার অভিযোগ ওঠে একটি সংস্থার বিরুদ্ধে।

পরে গত ১১ জানুয়ারী নৌ পরিবহন মন্ত্রনালয়ের উপ সচিব মো: আমিনুর রহমান একটি নোটিশ প্রেরণ করেন। যাতে উল্লেখ করা হয়, রেলপথ মন্ত্রনালয়, নৌ পরিবহন মন্ত্রনালয়, বাংলাদেশ রেলওয়ে, বিআইডব্লিউটিএ ও নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসনের প্রতিনিধির সমন্বয়ে গঠিত কমিটি সরেজমিনে শীতলক্ষ্যা নদীর ফোরশোর বা তীরভূমিসহ লীজকৃত সম্পত্তি জায়গা পরিদর্শন করবেন। কমিটি পরিদর্শন না করা পর্যন্ত উচ্ছেদ কার্যক্রম না করার জন্য নির্দেশক্রমে অনুরোধ করা হলো। ওই নোটিশের প্রেক্ষিতে ১৮ ফেব্রুয়ারী দুপুরে ঘটনাস্থলে পরিদর্শনে যান কমিটির সদস্যরা।

এ বিষয়ে বিআইডব্লিউটিএ’র নারায়ণগঞ্জ নদী বন্দরের যুগ্ম পরিচালক শেখ মাসুদ কামাল লাইভ নারায়ণগঞ্জকে বলেন, বিষয়টি অফিসিয়াল ইন্ট্রানাল ইস্যু। সভা কেন হয়নি, বা সমাধানের উপায় কি, এ সব নিয়ে এখনই কোন কথা গণমাধ্যমে বলতে চাচ্ছি না।

এ নিয়ে ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ সেকশনে বিদ্যমান মিটারগেজ রেল লাইনের সমান্তরাল একটি ডুয়েলগেজ রেল লাইন নির্মাণ প্রকল্পের পরিচালক মো. সেলিম রউফ লাইভ নারায়ণগঞ্জকে বলেন, স্থগিত সভাটি হবে নির্ধারিত স্থানটি পরিদর্শন শেষে। আশা করছি দ্রুত সমস্যার সমাধান হবে। সেই সাথে আমাদের চলমান প্রকল্পের আটকে যাওয়া অংশের কাজও শেষ হয়ে যাবে।

0