না.গঞ্জের মানুষকে ধমক দেয়, রাস্তা বন্ধ করে শোডাউন: তৈমূর

লাইভ নারায়ণগঞ্জ: ‘রাস্তা বন্ধ করে নির্বাচনী শোডাউন করার কোন বিধান নেই। এটা দেখার দায়িত্ব নির্বাচন কমিশনের, নারায়ণগঞ্জের ডিসি, এসপির। তারা এটা দেখে না। সরকারি প্রার্থী প্রতিদিন নির্বাচনী আচরনবিধি লঙ্ঘন করছে। সেটা তারা দেখে না। উল্টো আমার যারা নির্বাচনী এজেন্ট-কর্মী, তাদের ওপর প্রতিদিন পুলিশ ভয়ভীতি দেখাচ্ছে। এতে আমার নেতাকর্মীরা আরও ঐক্যবদ্ধ হচ্ছে। আমার এজেন্টরা যে কোন পরিস্থিতিতে কেন্দ্রে থাকবে এবং তারা রেজাল্ট নিয়ে আসবে’।

মাসদাইর বাজার বাইতুল আমান জামে মসজিদে শুক্রবার (১৪ জানুয়ারি) জুম্মার নামাজ আদায় শেষে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন (এনসিসি) নির্বাচনে স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে এ কথা বলেন।

তৈমূর আলম বলেছেন, লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড নেই। আমি ঢাকা থেকে লোক আনি না, নারায়ণগঞ্জের মানুষকে ধমক দেয়ার জন্য। তারা বলছে ঘুঘু দেখেছ ঘুঘুর ফাঁদ দেখো নি। আমি ২৪ ঘন্টার মধ্যে ঘুঘুর ফাঁদ দেখা শুরু করেছি। গ্রেফতার যে হচ্ছে না, এটা এসপি অস্বীকার করতে পারে না। বাড়ি বাড়ি গিয়ে আমার নেতাকর্মীদের হুমকি দেয়া হচ্ছে। টেলিফোনেও তাদের থ্রেড দেয়া হচ্ছে। এটা নির্বাচনের চরম আচরণবিধি লঙ্ঘন।

তিনি বলেন, এই এলাকা আমার নিজস্ব বাসস্থান। এই মসজিদটা আমার করা। এই এলাকার যে স্কুলগুলো দেখছেন সবগুলি স্কুল আমার মায়ের নামে করা। এই মুসলিম একাডেমি আমার করা। এই বাজার, সাধারণ দোকানদার যারা রাস্তায় দোকানদারি করত তাদের, ব্যবস্থা করে দিয়েছি। এখানে আমার একটা পানের দোকানও নেই। আমি এই মসজিদে দোয়া চেয়েছি। আমরা ধর্মভীরু লোক। মসজিদে দোয়া চাওয়ার অধিকার প্রতিটা লোকেরই আছে।

তিনি আরও বলেন, নারায়ণগঞ্জের জনগন তাদের মনের মত প্রার্থী খুঁজেছিল। তারা সে প্রার্থী পেয়েছে। জনগনও এ নির্বাচনে ব্যাপক সাড়া দিয়েছে। আমি স্বতন্ত্র প্রার্থী হলেও সকল দলের নেতাকর্মীরা আমার প্রতি তাদের সমর্থন প্রকাশ করছে। আপনারা দেখেছেন আমি স্বাস্থ্যবিধির কারনে সরকারি নির্দেশনা মেনে ছোট আকারে প্রচার করি। যখন আমি মিছিল করেছি তখন দেখেছেন ব্যপক সংখ্যক নেতাকর্মী ও জনসাধারণ আমার পাশে ছিল। গত পরশু আমাদের যে পথসভা হয়েছে, নারায়ণগঞ্জে স্মরণকালে এতবড় পথসভা হয়নি। আজকেও আমার একটা পথসভা আছে বন্দরে। আপনারা দেখবেন বিশাল পথসভা হবে।

তিনি বলেন, আমার প্রতিদ্বন্দ্বী সরকারের পৃষ্ঠপোষকতা নিয়ে নির্বাচন করছে। সরকারের যারা মেহমান আছেন তাদের বক্তব্য নানান জটিলতা সৃষ্টি করে। নারায়ণগঞ্জের মানুষকে ব্যাথা দিয়ে তারা এমন ভয়ভীতি দেখায়। গতকাল প্রশাসনের সাথে রুদ্ধদ্বার বৈঠক করেছে জাহাঙ্গীর কবির নানক। আমি মনে করি নির্বাচনকে প্রভাবিত করতে তারা এসব করছে।