না.গঞ্জের ৩ জনসহ ভারতে পাচার হওয়া ৩৮ শিশু ফিরবে আজ

0

লাইভ নারায়ণগঞ্জ: প্রতারণার মাধ্যমে বিভিন্ন সময় ভারতে পাচার হওয়া বাংলাদেশের ৩৮ শিশুকে ২৫ জানুয়ারী ( সোমবার ) দুপুরে ফেরত পাঠাবে ভারত। বেনাপোল চেকপোস্ট দিয়ে ভাল কাজের প্রতিশ্রুতিতে দিয়ে প্রতারণার শিকার সেই শিশুদের দেশে ফেরত পাঠানো হবে। পাচার ৩৮ শিশুর মধ্যে নারায়ণগঞ্জের রয়েছেন ৩ জন, তারা হলেন- রুনা আক্তার, নাসিমা ভূঁইয়া, সানজিদা আক্তার।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন কলকাতায় নিযুক্ত বাংলাদেশ ডেপুটি হাইকমিশনের মিনিস্টার (পলিটিক্যাল) বিএম জামাল হোসেন।

নারায়ণগঞ্জ ব্যতিত পাচার হওয়া বিভিন্ন জেলার বাকি শিশুরা হলেন- বাগেরহাটের শাহানাজ আক্তার, তৃষ্ণা মণ্ডল, আফসানা আক্তার, তুহিন হাওলাদার, ফারজানা আক্তার, সাহাজুল শেখ, মীম হাওলাদার, সোনা শেখ ও শাকিব, নড়াইলের আশা শেখ, রুকসানা মোল্লা, পপি রানী শিকদার, ফরিদপুরের রহিমা খান, বগুড়ার আদুরী খাতুন, কবিতা আক্তার, গাইবান্ধার সানজিদা বেগম, নীলফামারীর অনুপা বিবি, কক্সবাজারের রাফা মনি ও সুহান, খুলনার তীর্থ বিশ্বাস, মৌসুমি আক্তার, সোনালী খাতুন, বরিশালের সুমি আক্তার, যশোরের কিয়া খাতুন ও মাকসুদা বেগম, সাতক্ষীরার নূরজাহান, নরসিংদীর পাইরা বেগম, পাবনার পারভিন বেগম, সাতক্ষীরার রিক্তা, ঢাকা কেরানীগঞ্জের অজয় মণ্ডল, নোয়াখালীর শাকিল। ঝিনাইদহের দীপ-রঞ্জন বিশ্বাস, পিরোজপুরের রাজিব হাওলাদার, লক্ষ্মীপুরের রবিউল ইসলাম রনি ও কুড়িগ্রামের মোফাস্বেল হক।

জানা যায়, পাচার হওয়া শিশুরা সবাই দরিদ্র পরিবারের। বয়স ১০ থেকে ১৬ বছরের মধ্যে। এদের কাউকে ভালো কাজের প্রলোভন আবার কাউকে বেড়ানোর কথা বলে কৌশলে ভারতে পাচার করে দালাল চক্র। পরে সেখানে জোর পূর্বক বিভিন্ন ঝুঁকিপূর্ণ কাজে তাদের ব্যবহার করতে থাকে। এক পর্যায়ে এদের কেউ পালিয়ে পুলিশের হাতে ধরা দেয় আবার কাউকে পুলিশ পাচারকারীদের আস্তানা থেকে উদ্ধার করে। পরে এদের আশ্রয় হয় ভারতের বিভিন্ন সেবামূলক মানবাধিকার প্রতিষ্ঠানে। পরে দুই দেশের রাষ্ট্রীয় পর্যায়ে আইনি প্রক্রিয়া শেষে স্বদেশ প্রত্যবাসনে এরা দেশে ফেরার সুযোগ পায়। শিশুরা ফেরার পর বেনাপোল থেকে তাদেরকে আইনি সহায়তা ও কর্মসংস্থান সৃষ্টির জন্য এনজিও সংস্থা গ্রহণ করবে। পরে শিশুদের পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে বলে জানা গেছে। সূত্র: বাংলাদেশ প্রতিদিন

0