না.গঞ্জে শুরু হলো ‘বুলেট ট্রেন’র নির্মাণ কাজ (ভিডিওসহ)

0

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, লাইভ নারায়ণগঞ্জ: নারায়ণগঞ্জে শুরু হয়ে গেছে ঢাকা-চট্টগ্রামগামী বুলেট ট্রেনের রেল লাইনের কাজ। আগামী ২০২২ সাল নাগাদ শেষ হবে এই প্রকল্পটি। ফলে ২০২২ সাল থেকেই ঢাকা-চট্টগ্রামগামী যাত্রীরা পাচ্ছে বুলেট ট্রেন। এই সার্ভিস চালু হলে বর্তমানের ৬-৭ ঘণ্টার যাত্রা হয়ে যাবে মাত্র দেড় থেকে সর্বোচ্চ দুই ঘন্টার।

বুধবার (১৭ এপ্রিল) দুপুরে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন ও ফতুল্লার সীমান্তবর্তী স্থানে দুই চিনা ইঞ্জিনিয়ার ও বাংলাদেশের ৫ নির্মাণ কর্মীকে মাটির সয়েল টেস্ট করতে দেখা যায়।

না.গঞ্জে শুরু হলো ‘বুলেট ট্রেন’র নির্মাণ কাজ

না.গঞ্জে শুরু হলো ‘বুলেট ট্রেন’র নির্মাণ কাজ

Geplaatst door Live Narayanganj op Woensdag 17 april 2019

এসময় চিনা ইঞ্জিনিয়ারদেন সাথে কথা বলে জানা যায়, সম্ভাব্যতা যাচাই ও ডিজাইনের কাজ চলছে। শেষ করতে সময় লাগবে চলতি বছরের ডিসেম্বর পর্যন্ত। এর জন্য খরচ হবে ১০২ কোটি টাকা। বাংলাদেশ সরকার এই খরচ বহন করছে।

পরিকল্পনা অনুযায়ী, চলতি বছরের মে’র ৩১ তারিখ বাংলাদেশ রেলওয়ে চায়না রেলওয়ে ডিজাইন কর্পোরেশন ও মজুমদার এন্টারপ্রাইজের সাথে একটি চুক্তি করে। প্রস্তাবিত হাই-স্পিড ট্রেন লাইনের ডিজাইন ও সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের জন্য এই চুক্তি করা হয়। এই ট্রেন টঙ্গি-ভৈরব থেকে ভায়া হয়ে যাওয়ার পরিবর্তে নারায়াণগঞ্জ দিয়ে যাবে। বর্তমান ঢাকা-চট্টগ্রাম ট্রেন লাইনের দৈর্ঘ্য ৩২০ কিলোমিটার। তবে প্রস্তাবিত বুলেট ট্রেনের দৈর্ঘ্য হবে ২৩০ কিলোমিটার।

বাংলাদেশ রেলওয়ের অতিরিক্ত ডিরেক্টর জেনারেল (পরিকাঠামো) বলেন, “নতুন এই রুট ও ট্রেন চালু হলে তা রেলওয়ের আয় বাড়াতেও বেশ সহযোগিতা করবে”। এই ‘বুলেট ট্রেন’ চলবে ঘণ্টায় সর্বোচ্চ ২০০ কিলোমিটার গতিতে। বাংলাদেশের বর্তমান আন্ত:নগর ট্রেনগুলোর গতি ঘণ্টায় ৭০ কিলোমিটার।

বুলেট ট্রেনের কল্যাণে ইউরোপে ইতোমধ্যেই ট্রেন যাত্রা প্লেনের যাত্রার চেয়ে দ্রুত গতির। প্রতিবেশি ভারতেও এখন অনেক চালু হয়েছে বুলেট ট্রেন। বাংলাদেশেও অবশেষে আসছে বুলেট ট্রেন। বুলেট ট্রেনের এই প্রকল্প আগামী ২০২২ সাল নাগাদ শেষ হবে। ফলে ২০২২ সাল থেকেই ঢাকা-চট্টগ্রামগামী যাত্রীরা পাচ্ছে বুলেট ট্রেন।

0