না.গঞ্জ জাপা: মহামারি সহনীয় হলেই নির্বাচন নিয়ে সিদ্ধান্ত

0

গোলাম রাব্বি, লাইভ নারায়ণগঞ্জ: নারায়ণগঞ্জের আসন্ন নির্বাচন গুলো নিয়ে এখনই কিছু ভাবছে না বাংলাদেশের অন্যতম রাজনৈতিক দল জাতীয় পার্টিও নারায়ণগঞ্জের নীতিনির্ধারকরা। করোনাভাইরাসের মহামারি সহনীয় পর্যায়ে আসলেই নির্বাচন নিয়ে সিদ্ধান্তে যাবে দলটি। তবে, সে ক্ষেত্রেও করোনার এই দুঃসময়ে জনগণের জন্য কাজ করেছে; এমন লোকদেরকে বেছে নেওয়া হবে।

নির্বাচন কমিশন থেকে ডিসেম্বরের মধ্যে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন, পৌরসভা, ইউপি, জেলা পরিষদসহ অন্যান্য নির্বাচনের ঘোষণার পরপরই দলটির জেলা পর্যায়ের শীর্ষ নেতারা এমন কথাই জানান।

তবে, নির্বাচনের ক্ষণগণনার খবর ছড়িয়ে পরার সাথে রাজনৈতিক দল গুলোর সম্ভাব্য প্রার্থীরা কেন্দ্রীয় ও জেলার শীর্ষ নেতাদের সাথে যোগাযোগ বাড়িয়ে দিয়েছে বলে জানা গেছে।

২০১৬ সালের ২২ ডিসেম্বর নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। প্রথম সভা হয় ২০১৭ সালের ১৮ ফেব্রুয়ারি । সেই হিসেবে এই সিটি করপোরেশনের মেয়াদ শেষ হচ্ছে ২০২২ সালে ৭ ফেব্রুয়ারি।

নিয়ম অনুযায়ী, মেয়াদ শেষ হওয়ার ১৮০ দিনের পূর্ববর্তী সময়ে নির্বাচন আয়োজন করতে হয়। সে হিসেবে গত ১১ আগষ্ট থেকে ক্ষণগণনা চলছে। আর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের সময় গত জুন মাসেই শেষ হয়েছে। করোনাভাইরাসের কারণে সময়সীমা বাড়ানো হয়েছিল।
২৩ আগষ্ট ইসি সচিব হুমায়ুন কবীর খোন্দকার জানান, ডিসেম্বরের মধ্যে নারারণগঞ্জ সিটি করপোরেশন, পৌরসভা, ইউপি, জেলা পরিষদসহ অন্যান্য নির্বাচন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কমিশন। সেপ্টেম্বরের প্রথম সপ্তাহে কমিশন সভায় এ বিষয়ে আলোচনা হবে।

এ নিয়ে জানতে চাইলে জাতীয়পার্টি থেকে নির্বাচিত নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সংসদ সদস্য একেএম সেলিম ওসমান বলেন, ‘মাত্র তো নির্বাচনের ঘোষণা দিয়েছে। তাছাড়া করোনার সংক্রমন পরিস্থিডু স¦াভাবিক না হওয়া পর্যন্ত জাতীয় পার্টির পক্ষ থেকে আমরা কোন প্রস্তুতি নিবো না। সেপ্টেম্বর মাস দেখে, পরিস্থিতি বুঝে, তারপর সিদ্ধান্ত নিবো। নির্বাচন করার জন্য ৭ দিন সময়ই যথেষ্ট। এখনই আমরা কাউকে উদ্বুদ্ধ করতে চাই না। কাউকে কথাও দিতে চাই না। সবাই কাজ করুক। করোনা পরিস্থিতি সহনীয় পর্যায়ে আসুক। তখন দেখা যাবে। তবে, যারা করোনা পরিস্থিতিতে ভালো কাজ করবে, জাতীয়পার্টি থেকে তাদেরকে সমর্থন দেওয়ার চেষ্টা করবো। আমার আপন লোক হলেও উনি যদি শুধু নির্বাচন নিয়ে থাকে, তাহলে হবে না। আমার নিজের নির্বাচনের ক্ষেত্রেও একই হবে। জনগণ যাকে ভালোবাসবে ইউনিয়ন পরিষদ, জেলা পরিষদ বা সিটি করপোরেশন নির্বাচন, যাই হোক না কেন, তাঁর জন্য আমি জাতীয় পার্টির হয়ে সমর্থন দিতে চেষ্টা করবো।’

তবে, নারায়ণগঞ্জ জেলা জাতীয় পার্টির আহবায়ক সানাউল্লাহ সানু বলেন, বিগত সময়ে আমরা ছিলাম দলীয় ভাবে, ইনশাহল্লাহ এবারও থাকবো। দলীয় ভাবে নির্বাচনে অংশ গ্রহন করবো। আমার প্রস্তুত আছি প্রার্থী দেয়ার জন্য। নির্বচন নিয়ে আমরা ইতিমধ্যে প্রত্যাকটি ইউনিয়নে সভা করেছি। বন্দর, কলাগাছিয়া, মুছাপুর, ধামগর ইউনিয়ন গুলোতে নির্বাচনী সভা করেছি। কিছুদিনের মধ্যে মদনপুর ইউনিয়নেও সভা করবো। জনগন নির্বাচনের অপেক্ষায় আছে আর আমরা নির্বাচন নিয়ে আশাবাদী এটি ভালোভাবে সম্পন্ন হবে।

0