পুলিশের সাথে সমাজের মানুষেরও পরিবর্তন হতে হবে: এডি.এসপি ইমরান

0

লাইভ নারায়ণগঞ্জ: কোন কারন ছাড়া আজকে রাত ১১টার পর থেকে যদি কোন তরুনদের রাস্তায় আড্ডা মারতে দেখা যায় তাহলে তাদের থানায় ধরে আনা হবে। উপযুক্ত কারন ছাড়া রাস্তায় ঘুরাঘুরি করতে দেখলেও থানায় আনা হবে।

বুধবার (৩ মার্চ) বিকেলে নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানার ওপেন হাউজ ডে’তে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন নারায়ণগঞ্জ অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ক সার্কেল) মেহেদী ইমরান সিদ্দিকী।

নারায়ণগঞ্জ অতিরিক্ত পুলিশ সুপার(প্রশাসন)মোহাম্মদ মোস্তাফিজুর রহমানের জরুরি কাজে ব্যস্ত থাকায় প্রধান অতিথি হিসেবে তিনি উপস্থিত ছিলেন।

মেহেদী ইমরান সিদ্দিকী বলেন, পুলিশ যে সব কিছু চাইলে পারে তা কিন্তু না। ১৯৭১ সালে পুলিশ যেমন আপনাদের সহযোগীতায় দেশকে স্বাধীন করেছে ঠিক তেমনে এখন আপনাদের সহযোগীতা পেলে দেশকে আমরা মাদকমুক্ত হিসেবে গড়ে তুলবো। ৭১ সালের এই মার্চ মাসেই লক্ষ লক্ষ শহীদেরা জীবন দিয়ে আমাদের রক্ষা করেছে আর আমাদের সমাজের গুটি কয়েকজন মাদক ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে আমরা ব্যবস্থা নিতে পারবো না। আপনাদের এলাকায় কেউ যদি মাদক বিক্রি করে, মাদক সেবন করে আমাদের জানান আমরা আপনাদের নাম ও ফোন নাম্বার পর্যন্ত গোপন রাখা হবে আপনাদের নিরাপত্তার স্বার্থে।তাই আপনাদের এলাকায় যেই মাদক বিক্রি করে আমাদের জানান।

তিনি আরো বলেন, পুলিশ পরিবর্তনের সাথে সাথে সমাজের মানুষের পরিবর্তন হতে হবে। এখন থানায় আসলে কারো কোন টাকা লাগে না, কেউ টাকা চায় না অভিযোগ করতে এটা আমাদের ভালো লাগছে। থানায় আমাদের অফিসাররাও এখন কোন টাকা নিচ্ছে না। যদি কেউ চায় তাহলে আমাদের জানান। নারায়ণগঞ্জ জেলায় ভ্রাম্যমাণ লোকের সংখ্যা বেশি। তাই এখানে অপরাধ ঘটে বেশি। তাই আপনার বাসায় কাকে ভাড়া দিচ্ছেন তার সকল তথ্য নিয়ে রাখবেন এবং বাসাবাড়ী,দোকানপাটে সিসি ক্যামেরা লাগাবেন। গুজব সৃষ্টিকারী থেকে সচেতন থাকতে হবে। আপনে চিন্তা করবেন ১০ বছর আগে এবং ১০ বছর পরে দেশের কি কি উন্নতি হয়েছে।গুজব সৃষ্টিকারীদের বিরুদ্ধে আপনেরা রুখে দাঁড়াবেন।

মেহেদী ইমরান সিদ্দিকী আরো বলেন, পুলিশ যেমন ঝুঁকি নিয়ে কাজ করে তেমনি সাংবাদিকরাও ঝুঁকি নিয়ে কাজ করে। করোনার মহামারিতে নারায়ণগঞ্জ জেলায় প্রথম করোনা ভাইরাসের রোগী পাওয়া যায়। তখন আমাদের কাছে কোন প্রটেকশনের জন্য হেন্ড গ্লাবস, মাস্ক, পিপিই কোন কিছু ছিলো না। তবুও আমরা এই মহামারিতে কাজ করেছি। কাজ করার সময় আমাদেরই এক সদস্য রফিকুল মারা গেছে। তাছাড়া পুলিশের পাশাপাশি সাংবাদিকরাও কাজ করেছে অনেক।

সভাপতির বক্তব্যে মোঃ শাহ জামান বলেন, আমরা ফুটপাতে হকারদের বসতে দিবো না এটার চ্যালেঞ্জ নিয়েছি। কারন ফুটপাতে বিভিন্ন ছিনতাই, চুরির মাত্রা বেড়ে গেছে। এছাড়া মহিলাদের গায়েও হাত দেওয়া হয়। আমরা নারায়ণগঞ্জ পুলিশ সুপার জায়েদুল আলম স্যারের নেতৃত্বে নারায়ণগঞ্জ জেলায় আমরা কাজ করতে চাই। নারায়ণগঞ্জ জেলায় অনেক ইতিহাস আছে। আমাদের নারায়ণগঞ্জ জেলা বিদেশের মানুষও জানে। আমরা তা থেকে বের হয়ে আসতে চাই।

সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ শাহ জামানের সভাপতিত্বে আরও উপস্থিত ছিলেন নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মোঃ মোস্তাফিজুর রহমান, অপারেশন কাজী মাসুদ রানা, গোগনগর ইউপি ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান মোঃ নূর হোসেন সওদাগর প্রমূখ।

0