পূর্ব শত্রুতার জেড়ে ২ কিশোরীকে অপহরণ, দেড় ঘন্টায় র‌্যাবের হাতে উদ্ধার

0

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, লাইভ নারায়ণগঞ্জ: রূপগঞ্জে বিশেষ অভিযান চালিয়ে অপহরণকারী চক্রের ৩ সদস্যকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-১। সেই সাথে গ্রেফতারকৃতদের দ্বারা অপহৃত ২ কিশোরীকেও উদ্ধার করা হয়। মঙ্গলবার (২৮ মে) দুপুর সাড়ে ১২টায় রূপগঞ্জের চাঁন টেক্সটাইল এর সামনে থেকে তাদের উদ্ধার করা হয়।

গ্রেফতারকৃতরা হলো রূপগঞ্জের কেন্দুয়া খালপাড়ের মোঃ তাহাজুদ্দিনের সন্তান মোঃ আজিজুল হক (৩৯), ইসলামপুরের (ফকিরপাড়া) মোঃ জসিম উদ্দিন (২৩), পূবেরগাঁও এর মোঃ মফিজ উদ্দিনের সন্তান মোঃ জজ মিয়া (৩৫)।

সিপিসি-৩ এর কোম্পানী কমান্ডার মেজর আবদুল্লাহ আল মেহেদীর স্বাক্ষরিত এক বার্তায় এ তথ্য জানানো হয়। বার্তায় আরও উল্লেখ করা হয়, ২৮ মে সকাল সাড়ে ১০ টার দিকে রূুপগঞ্জ থানার চাঁন টেক্সটাইল এর সামনে হতে সংঘবদ্ধ অপহরণকারী চক্রের সদস্যরা একটি সিএনজি যোগে ২ কিশোরীকে অপহরণ করে। উক্ত অপহরণের সংবাদ পেয়ে তাৎক্ষনিক র‌্যাব-১ এর একটি আভিযানিক দল অপহৃত ভিকটিমদ্বয়কে উদ্ধারের লক্ষ্যে অভিযান শুরু করে। প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে র‌্যাবের আভিযানিক দলটি নারায়ণগঞ্জ জেলার রূপগঞ্জ থানার পূর্বকালাদি গ্রামের লস্কার বাড়ীরটেক নামক এলাকায় অভিযান চালিয়ে দুপুর সোয়া ১২ টার দিকে অপহরণকারীদের গ্রেফতার করা হয়। আভিযানিক দলটি উক্ত সময় অপহরণকারীদের হেফাজতে থাকা অপহৃত ভিকটিম কেন্দুয়া খালপাড়ের মো. সামছুল হকের সন্তান শারমিন সুলতানা (১৭), মোঃ দেলোয়ার হোসেনের সন্তান মোসা. অনন্যা আক্তারকে (১৪) উদ্ধারসহ অপহরণের কাজে ব্যবহৃত ০১টি সিএনজি (রেজিঃ নং নারায়নগঞ্জ থ-১১-৫১৭৩) এবং দেশীয় অস্ত্র ০১টি ধারালো চাকু ও ০১টি ধারালো ক্ষুর জব্দ করা হয়।

ঘটনার বিবরণে জানা যায়, অপহৃত ভিকটিমদ্বয় ২৮ মে সকালে সময় নারায়গঞ্জের রুপগঞ্জ থানাধীন কেন্দুয়া গ্রামস্থ নিজ বাড়ী হতে বের হয়ে কাঞ্চন বাজারস্থ একটি কম্পিউটার প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে প্রশিক্ষণ শেষে ঈদের কেনাকাটা করার উদ্দেশ্যে রুপগঞ্জ থানাধীন গাউছিয়া এলাকায় গমণের পথে রুপগঞ্জ থানাধীন চাঁন টেক্সটাইল এর সামনে পৌঁছালে অনুমান সকাল সাড়ে ১০ টায় পূর্ব হতেই ওৎপেতে থাকা বর্ণিত অপহরণকারী সক্রিয় সদস্যরা জোরপূর্বক দেশীয় অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে ভিকটিমদ্বয়কে একটি সিএনজিতে তুলে নিয়ে অপহরণ করে নিয়ে যায়। উল্লেখ্য, অপহরণকারী চক্রের প্রথম সদস্য মোঃ আজিজুল হক ভিকটিমদ্বয়ের পরিবারের সাথে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে অপহৃত ভিকটিম শারমিন সুলতানার সহোদর ছোট বোনকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। উক্ত ঘটনায় ভিকটিমের পরিবার রুপগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করে। উক্ত দায়েরকৃত মামলা তুলে নেয়ার জন্য ভিকটিমের পরিবারকে ধৃত ১নং ব্যক্তি মোঃ আজিজুল হক বিভিন্ন সময় হুমকী ধামকী সহ ক্ষয়ক্ষতি সাধনের অপচেষ্টা চালিয়ে আসছিল। এরই সূত্র ধরে গ্রেফতারকৃত ব্যক্তিরা ২৮ মে সকাল সাড়ে ১০টায় যাত্রাপথে বর্ণিত ভিকটিমদ্বয়কে চোখ-মুখ বেঁধে জোরপূর্বক একটি সিএনজিতে তুলে নিয়ে উক্ত সিএনজি’র ভেতরে শারীরিকভাবে নির্যাতন করে দেশীয় ধারালো অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে অপহরণ করে।

গ্রেফতারকৃত ব্যক্তিরা প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানায়, পূর্ব শত্রুতার জের ধরে গ্রেফতারকৃত ব্যক্তিরা পরস্পর যোগসাজসে মোটা অংকের মুক্তিপণ আদায়, ভিকটিমদের পরিবারকে হেনস্থা করা সহ ধৃত ১নং ব্যক্তি মোঃ আজিজুল হকের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত মামলা সমূহ প্রত্যাহারের জন্য চাপ প্রয়োগের উদ্দেশ্যে পূর্বপরিকল্পিতভাবে উক্ত ভিকটিম কিশোরীদ্বয়কে জোরপূর্বক অপহরণ করে। অপহরণকারী চক্রের গ্রেফতারকৃত ১নং ব্যক্তি মোঃ আজিজুল হকের বিরুদ্ধে রুপগঞ্জ থানায় খুন, ধর্ষণ ও অপহরণসহ একাধিক মামলা এবং চক্রের ২নং ব্যক্তি মোঃ জসিম উদ্দিন (২৩) এর বিরুদ্ধে রুপগঞ্জ থানায় অপহরণ মামলা রয়েছে। এ ব্যাপারে আইনগত ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন।

0