পেম্পাসের অজুহাতে ঘরে প্রবেশ, অতঃপর ধর্ষণ

0

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, লাইভ নারায়ণগঞ্জ: স্বামীর সাথে অভিমান করে স্ত্রী চলে যায় আন্ট্রির বাসায়। স্বামী স্ত্রীর কাছ থেকে বাঁচ্চার পেম্পাস আনতে পাঠায় স্ত্রীর প্রেমিককে। পেম্পাস আনতে গিয়ে খালি বাসা পেয়ে জোড়পূর্বক ধর্ষণ করেন প্রেমিকাকে।

মঙ্গলবার (১৬ মার্চ) সকালে বন্দর থানায় এ অভিযোগ তুলে নারী ও শিশু নির্যাতন মামলা দায়ের করেন এক মহিলা।

ধর্ষনের অভিযুক্ত আসামি হলেন- বন্দর থানার সোনাকান্দা এনায়েতনগর (নয়াপাড়া প্রধান বাড়ী) এলাকার কোমর উদ্দিন এর ছেলে মো. হেমী ওরফে আব্দুল্লাহ (২৭)।

মামলা সূত্রে জানা যায়, সোমবার (১৫ মার্চ) রাত ৮ টার সময় স্বামীরসাথে পারিবারিক বিষয়ে ঝগড়া-বিবাদ হওয়ায় বাদীনি অভিমান করে তার বন্দর একরামপুর ইস্পাহানী আন্ট্রি মোসা. রুবিনার বাড়িতে চলে যায়। তারপর বাদীনিকে আসামি হেমী ফোন দিয়ে স্বামীর সাথে ঝগড়ার বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করে। একপর্যায় বাদীনিকে বলে তার স্বামী সুমন (ছন্মনাম) তাকে বলেছে বাদীনির কাছ থেকে বাচ্চার জন্য পেম্পাস নিয়ে আসতে। তখন বাদীনি হেমীকে পেম্পাস নিয়ে যাওয়ার কথা বলে। তারপর হেমী বাচ্চার পেম্পোস নিতে আসে। এসময় বাসায় কেই না থাকায় বাদীনির ইচ্ছার বিরূদ্ধে তাকে জোড়পূর্বক ধর্ষণ করেছেন। পরে ভিকটিম বাদী হয়ে বন্দর থানায় ধর্ষন মামলা দায়ের করেন। মামলা নং ২৭(৩)২০।

পুলিশের তদন্তে জানা গেছে, বাদীনির সাথে আসামি হেমীর দীর্ঘদিন যাবত প্রেমের সম্পর্ক।

প্রাথমিক তদন্তে জানা যায়, ধর্ষণের মূল্য রহস্য উদঘাটন ও পারিপাশ্বিক বিষয় সঠিক তথ্য অনুসন্ধ্যানের লক্ষে আসামি হেমীকে ১ দিনের রিমান্ডে নেওয়া হয়েছে।

এবিষয়ে কোর্ট পুলিশ পরিদর্শক মো. আসাদুজ্জাম বলেন, দুপুরে আসামির বিরূদ্ধে ৭ দিনের রিমান্ড চেয়ে আদালতে উঠালে পরে শুনানি শেষে সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রিট নুরুন নাহার ইয়াসমিনের আদালত আসামির ১ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করে।

0