প্রচারণাসহ অব্যবস্থাপনার অভি‌যোগ: জমে ওঠেনি বেচাকেনা, মেলা ছাড়ছে উদ্যোক্তারা

0

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, লাইভ নারায়ণগঞ্জ: বস্তায় ভর্তি মালামাল। পিকআপ ভ্যান চালকের সহযোগীতায় উঠাচ্ছেন একজন নারীকর্মী। পাশে দাঁড়িয়ে দেখিয়ে দিচ্ছিলেন শবাব লেদারের সিইও মাকসুদা খাতুন।

একই ভাবে সিএনজিতে মালামাল উঠাচ্ছেন মাহবুবা জামদানী হাউজের সাবির আহম্মেদ। ডেমরা বিসিকের ঠিকানায় মালামাল নিতে এনেছেন সিএনজি ভাড়া করে। এরই মধ্যে দুজন চলেও গেছেন।

শবাব লেদার কিংবা মাহবুবা জামদানী হাউজ নয়, মেলা সমাপ্তি হওয়ার ৪ দিন পূর্বেই বেচাকেনা ভালো না হওয়ায় চলে গেছেন প্রায় ১০টি স্টলের লোকজন। অনেক স্টল বন্ধ করে রেখেছেন। আর এ জন্য ব্যবস্থাপনাকে দায়ী করছেন তারা।

শবাব লেদারের সিইও মাকসুদা খাতুন বলেন, ‘প্রয়োজনে ঢাকা থেকে চট্টগ্রামে গিয়ে কোন মেলায় অংশগ্রহণ করবো। কিন্তু নারায়ণগঞ্জে আর কখন মেলাতে আসবো না।’

গত ২২ ফেব্রুয়ারি থেকে ২৮ ফেব্রুয়ারি ৭ দিন ব্যাপি ক্ষুদ্র ও মাঝারী শিল্প উদ্যোক্তাদের অংশগ্রহণে নারায়ণগঞ্জ পৌর ওসমানী স্টেডিয়ামে মেলা শুরু হয়। মাইক্রো, ক্ষুদ্র ও মাঝারী শিল্প উদ্যোক্তাদের উৎপাদিত পণ্যের প্রচার, প্রসার, বিক্রয় এবং বাজার সম্প্রসারণের লক্ষে এসএমই ফাউন্ডেশন এ মেলার আয়োজন করেছে। মেলার সার্বিক ব্যবস্থাপনায় রয়েছে নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসক, নারায়ণগঞ্জ বিসিক, নারায়ণগঞ্জ চেম্বার ও নাসিব।

মেলার তৃতীয় দিন ২৪ ফেব্রুয়ারি দুপুরে গিয়ে দেখা যায়, প্রায় ৫২টি স্টলের মধ্যে ১৩ স্টলই শূণ্য। এর মধ্যে জেলা প্রশাসন ও নারায়ণগঞ্জ বিসিকের বরাদ্দকৃত স্টলেও কাউকে খুঁজে পাওয়া যায়নি। আর কিছু স্টল বন্ধ রয়েছে। আর যে সকল স্টল চালু, সে গুলোতেও মানুষ নেই।

মেলায় চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে অংশ নেওয়া ‘পায়েল নকশি’র প্রোপ্রাইটর শেখ মোস্তারী জানান, মেলা প্রাঙ্গণ একেতো ভিতরে, তার উপর প্রচারণাও নেই। তাই ক্রেতা তো দূরে থাক দর্শনার্থীও নেই।

নারায়ণগঞ্জ শিশু একাডেমির বই বিক্রেতা কামাল হোসেন বলেন, ‘প্রথম দিন ২৩০ টাকা বিক্রি হয়েছিল। দ্বিতীয় দিন বিক্রি হয়েছে ৫৫ টাকা আর আজ তো এখনও বিক্রি করতেই পারি নি।’

আর ঢাকার বিসিক থেকে অংশ নেওয়া দুই উদ্যোক্ততা এটুজেড হানির খন্দকার মমিনুজ্জামান ও বিপ্লব আদর্শ মৌ-খামারের নাহিদুল ইসলাম বিপ্লব জানান, মেলা প্রাঙ্গণ চাষাঢ়ার আশপাশে থাকলে হয়তো এ অবস্থার সৃষ্টি হতো না। মেলাটি শহর থেকে একটু দূরে হওয়ায় ক্রেতা নেই বলেই চলে। এছাড়া আয়োজকরাও দায়িত্বহীন। কোন রকম সহযোগীতায় তাদের পাশে পাওয়া যাচ্ছে না।

0