প্রধানমন্ত্রীর ছবিতে বাজে মন্তব্য, আসামি রিমান্ডে

0

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, লাইভ নারায়ণগঞ্জ: সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের একটি মামলায় একজনকে ২ দিনের রিমান্ডের আদেশ দিয়েছে আদালত।
রিমান্ডপ্রাপ্ত আসামি হলো- লক্ষীপুর জেলার যাদিয়া (টুকা মিয়া পাটোয়ারী বাড়ী) এলাকার মৃত. মোহাম্মদুল্লাহ পাটোয়ারীর ছেলে মো. আমির হোসেন পাটোয়ারী (৫৭)।
বুধবার (৩০ অক্টোবর) সকালে আসামিকে ৭ দিনের রিমান্ড চেয়ে আদালতে উঠায় পুলিশ। পরে শুনানি শেষে সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. আফতাবুজ্জামান এর আদালত এ রিমান্ড মঞ্জুর করেন।
মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায় যে, ২০১৮ সালের ১ ডিসেম্বর দুপুর ১ টার সময় ‘আমির হোসাইন’ নামের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুক আইডি দিয়ে “ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার যাহার উপরে ওয়াও একি!! কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রডোর সাথে পার্কেল মধ্যে নির্জনে সরাসরি চুমু চুমি চলেছে। বাংলার অবৈধ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা” লিখে একটি ছবি শেয়ার করে। এছাড়াও ২০১৮ সালের ২৫ অক্টোবর রাত সাড়ে ১০ টার সময় প্রধানমন্ত্রীর ছেলে সজীব ওয়াজেদ জয় সাহেবের একটি ছবি যাহার উপরে “আসুন অবৈধ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ব্যাংক হ্যাকার ছেলের মুুখে উন্নয়নের গল্প শুনি”। আবার ১৮ নভেম্বর রাত পৌনে ১ টার সময় প্রধানমন্ত্রীর দুইটি ছবির উপরে ‘বৌদি না সৌদি? ভোট এলে সৌদি ভোট শেষে বৌদি-এমএমহোলি’। আবার ১৩ ডিসেম্বর রাত পৌনে ৯ টার সময় মাননয়ি মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এর একটি ইডিট করা ছবির উপরে ‘ধানের শীষের জোয়ারে কাউয়া যাবে কবরে-এমএমহোলি,। ১৩ ডিসেম্বর রাত পৌনে ৯ টার সময় পুলিশের টিমের একটি ছবির উপরে ‘দেখুন আমার দেশের সরকারী কুক্তা বাহিনীর কাজ’। ২০১৯ সালের ১১ মে রাত ১১ টার সময় প্রধানমন্ত্রী ও তার পুত্রবধুর ইডিট করা অশ্লীল ছবির উপরে ‘দয়া করে শোনেন সবাই, আমরা স্বার্থের জন্য দেশ প্রেম ঈমান দুইটাই হারাচ্ছি’। গত ৪ সেক্টোম্বর সকাল ৮ টার সময় প্রধানমন্ত্রী ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মুদির একটি ছবির উপরে ‘হাসিনা: এভাবে তাকিওনা তুমি ভেবে লজ্জা লাগে, মৌদি: শহীদ হয়ে যাবো, তবুও চোখ সরাবো না। এই সব লিখা ছবিগুলো শেয়ার করে।
প্রাথমিক তদন্তে জানা যায় যে, আসামি তাহার ফেইসবুক আইডি দিয়ে প্রধানমন্ত্রীসহ বিভিন্ন গন্যমান্য ব্যক্তি ও পুলিশের বিভিন্ন ছবি ইডিট করে আজেবাজে ছবি পোষ্ট করে থাকে। তাকে এই সকল আজেবাজে পোষ্ট করতে না করায় সে ক্ষিপ্ত হয়ে বিভিন্ন ধরণের ভয়-ভীতি প্রদর্শন করে বাদী নোমান হোসেনকে। আসামির বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগের সত্যতার প্রমাণ পাওয়া গেছে। তাই মামলার সুষ্ঠু তদন্ত ও মূল রহস্য উৎঘাটনের লক্ষে আসামীকে ২ দিনের রিমান্ডে নেওয়া হচ্ছে।
এবিষয়ে কোর্ট পরিদর্শক মো. আব্দুল হাই বলেন, আসামি ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলার সাথে জড়িত। তাই মামলার সুষ্ঠু তদন্তের স্বার্থে বিজ্ঞ আদালতের নির্দেশে আসামিকে ২ দিনের রিমান্ডে নেওয়া হয়েছে।

0