ফতুল্লায় বৃদ্ধা খুন, মেয়ের জামাই আটক

0
লাইভ নারায়ণগঞ্জ: ফতুল্লায় সম্পত্তি বিক্রির বিষয়কে কেন্দ্রে করে রহিমা বেগমে (৭৮) নামের এক বৃদ্ধ নারীকে শ্বাসরোধ করে হত্যার ঘটনায় নিহতের ছোট ছেলে মো. মহসিন একটি হত্যা মামলায় দায়ের করেন। সেই মামলায় শাশুড়িকে হত্যা করার সন্দেহে মেয়ের জামাই মো. হানিফকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। গ্রেপ্তার শেষে আসামীর বিরুদ্ধে রিমান্ডের আবেদন করলে আদালত ২ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

বুধবার (৪ আগস্ট) বিকেলে আসামীর বিরুদ্ধে ৫ দিনের রিমান্ডের আবেদন করেন পুলিশ। পরে শুনানি শেষে সিনিয়র জুডিশিয়াল আহম্মেদ হুমায়ূন কবীর এর আদালত এ আদেশ দেন। এ বিষয়টি নিশ্চিত করেন কোর্ট পুলিশের এএসআই মো. শাহীন। এর আগে, ফতুল্লা কাশিপুর হাটখোলা এলাকায় ২ আগষ্ট এ হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটেছে।

মামলা সূত্রে জানা যায়, নিহত রহিমা বেগমকে দেখাশুনা ও ভরণ পোষণ করত মো. মহসিন। মহসিন দীর্ঘদিন যাবৎ লিভার সমস্যায় ভুগছিলেন। যার কারণে ১ বছর আগে তার পৈত্রিক সম্পত্তি তারই বড় বোন নাছিমা বেগমের কাছে বিক্রি করে মহসিন। গত ২১ জুলাই সন্ধ্যা সাড়ে ৭ টায় জমি বিক্রি সংক্রান্ত টাকা পয়সার লেনদেন নিয়ে মায়ের সাথে মনোমালিন্য হয় মহসিনের। এরপর মায়ের সাথে রাগ করে বাসা থেকে বের হয়ে কর্মস্থল কাশিপুর জসিমের ভাংগারির দোকানে থাকতেন। ২ আগস্ট সকাল সাড়ে ৮ টায় তার ভাতিজা তাকে সেই কর্মস্থলে এসে জানায়, তার মা রহিমা বেগম তার ঘরে মৃত অবস্থায় পরে আছে। খবর পেয়ে সেখানে পৌছিয়ে দেখে তার মায়ের বুকের উপর বালিশ ও গলায় জড়না পেঁচানো অজ্ঞাতনামা কে বা কারা তার মাকে হত্যা করেছে বলে ফতুল্লা থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন মহসিন।

সেই মামলায় রহিমা বেগমকে হত্যা করার সন্দেহে নাছিমা বেগমের স্বামী হানিফকে আটক করেছে পুলিশ মামলা সংক্রান্ত জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তাকে ২ দিনের রিমান্ডে নেওয়া হচ্ছে।

নিহতের বড় ছেলে মোস্তফা বলেন, আমরা তিন ভাই ও বোন। নাছিমা তার স্বামীসহ আমরা একই বাড়িতে থাকি। কিছু দিন যাবৎ সম্পত্তি বিক্রি বিষয়ে ছোট ভাই ও বোন নাছিমার মধ্যে চলছিলো ঝামেলা। যার কারণে মহসিনের সাথে নিহতের মনোমালিন্য হয়। রাগ করে মহসিন বাসা থেকে বের হয়ে যায়। ২ তারিখে কে বা কারা আমার মাকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করেছে।

0