ফতুল্লায় সাব্বির ব্যর্থ, মুশফিকের ব্যাটে রান

0

আগের দিন রাজশাহী বিভাগের হয়ে বোলিং ঝলক দেখিয়েছেন তাইজুল ইসলাম ও শফিউল ইসলাম। দ্বিতীয় দিনে ব্যাট হাতে একই দলের মুশফিকুর রহিম খেললেন ৭৫ রানের দুর্দান্ত ইনিংস। অধিনায়ক জহুরুল ইসলামের ব্যাটেও দেখা দিল ফিফটি। তবে দিন শেষে ঢাকা-রাজশাহী দুই দলই প্রায় সমান অবস্থানে আছে।

জাতীয় ক্রিকেট লিগের টায়ার-১ এর ম্যাচে ফতুল্লায় শুক্রবার (১১ অক্টোবর) প্রথম দিনের ৩ উইকেট হাতে রেখে ১৪৩ রান নিয়ে ব্যাটিংয়ে নামে ঢাকা বিভাগ। কিন্তু দিনের শুরুতেই নাজমুল ইসলামকে শুন্য রানে বিদায় করে দেন ফরহাদ রেজা।

এরপরের দুই ব্যাটসম্যান সুমন খান (১০) ও সালাউদ্দিন শাকিলের (৫) বিদায় করেন শফিকুল ও ফরহাদ। তবে আগের দিন ১২ রানে অপরাজিত থাকা তাইবুর রহমান ফিফটি তুলে নিয়ে অপরাজিত থাকেন ৮৮ রানে। ২৪০ রান শেষ হয় ঢাকার প্রথম ইনিংস।

বল হাতে রাজশাহী বিভাগের তাইজুল নিয়েছেন ৪ উইকেট। ৩ উইকেটের নিয়েছেন শফিউল ইসলাম। ২টি উইকেট গেছে ফরহাদ রেজার দখলে বাকি উইকেট শফিকুলের।

জবাবে দলীয় ১৪ রানেই ৩ উইকেট হারিয়ে বিপাকে পড়ে গিয়েছিল দলটি। তবে সেখান থেকে দলকে টেনে তুলেছেন মুশফিক ও জহুরুল। দুজনে ১২১ রান যোগ করার পর মুশফিককে রকিবুল হাসানের ক্যাচে পরিণত করে বিদায় করেন শুভাগত হোম। তবে বিদায়ের আগে ১১৬ বলে ৭ চার ও ৩ ছক্কায় ৭৫ রানের দারুণ এক ইনিংস খেলেছেন মুশফিক।

ছবি: শোয়েব মিথুনমুশফিক বিদায় নেওয়ার পর আবারও ব্যাটিং বিপর্যয়ে পড়ে রাজশাহী। ব্যাট হাতে ব্যর্থ হন সাব্বির রহমান (১১) ও শাখির হোসেন (৪)। তবে টেল এন্ডার ব্যাটসম্যান ফরহাদ রেজাকে নিয়ে বাকি দিন পার করে দেন ৫৭ রানে অপরাজিত থাকা জহুরুল। ফরহাদ অপরাজিত আছেন ১৪ রান নিয়ে। দ্বিতীয় দিন শেষে নিজেদের প্রথম ইনিংসে রাজশাহীর সংগ্রহ ৬ উইকেট হারিয়ে ১৭৩ রান। ঢাকার চেয়ে এখনও ৬৭ রানে পিছিয়ে রাজশাহী।

বল হাতে ঢাকার সুমন খান ২২ ওভারে মাত্র ৪০ রান খরচে তুলে নিয়েছেন ৩ উইকেট। ১টি করে উইকেট গেছে সালাউদ্দিন, নাজমুল ও শুভাগত’র দখলে।

এদিকে টায়ার-১ এর অন্য ম্যাচে খুলনায় স্বাগতিক দলের বিপক্ষে দ্বিতীয় দিনের খেলা শেষে ৫ উইকেট হারিয়ে ১৬৯ রান সংগ্রহ করেছে রংপুর বিভাগ। প্রথম দিন বৃষ্টিতে ভেসে যাওয়ার পর দ্বিতীয় দিনেও পুরো সময় খেলা সম্ভব হয়নি। এদিন ব্যাট হাতে রংপুরের হয়ে সর্বোচ্চ ৪৮ রান করেছেন নাঈম ইসলাম। দিন শেষে ৪০ রানে তানবির হায়দার এবং ৩১ রানে অপরাজিত আছেন শুভ।

0