বাজারে এখনও বিক্রি হচ্ছে নিষিদ্ধ সেই ৫২ খাদ্যপণ্য!

0

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট,লাইভ নারায়ণগঞ্জ: বিএসটিআইর মানের পরীক্ষায় অনুত্তীর্ণ ১৮ টি কোম্পানির ৫২টি খাদ্যপণ্য বিক্রি বন্ধ করার নির্দেশ দিয়েছে হাই কোর্ট। এই আদেশ বাস্তবায়ন করতে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর এবং বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষকে আদেশ দেন আদালত। কিন্তু এ নির্দেশনার দুই দিন পরও নগরীর বাজারে পাওয়া যাচ্ছে সেই ৫২ ভেজাল খাদ্যপণ্য।

মঙ্গলবার (১৪ মে) সরেজমিনে নগরীর দ্বিগুবাবুর বাজারে গিয়ে দেখা যায়, বিভিন্ন মুদি দোকানে এখনও বিক্রি হচ্ছে এই নিষিদ্ধ পণ্যগুলো। শুধু দ্বিগু বাবুর বাজার নয়, নগরীর টান বাজার, নিতাইগঞ্জ, বউবাজারসহ বেশ কয়েকটি এলাকায় এসব পণ্যের মজুদ দেখা যায়।
এ ব্যাপারে দ্বিগু বাবুর বাজারের মুদি দোকানী রামকৃষ্ণ বলেন, কোম্পানির লোক এসে আমাদের কিছু জানায় নি এখনও। তাই পণ্যগুলো আমরা বিক্রি করছি।

পাশের আরেক দোকানী চন্দন গুপ্ত বলেন, কোম্পানির লোক এসে আমাদের বলেছে, তাদের পণ্য নাকি ঠিক আছে, সেই পণ্য বিক্রি করা যাবে। আমরা এখন ঠিক কী করব বুঝে উঠতে পারছি না।

বাজারে নিষিদ্ধ খাদ্য পণ্য বিক্রির ব্যাপারে নারায়ণগঞ্জ জেলা ভোক্তা অধিকার সহকারি পরিচালক আসিফ আল আজাদ বলেন, মহামান্য হাই কোর্ট যেহেতু নিষেধ প্রদান করেছেন সে হিসেবে অবশ্যই ব্যবস্থা নিতে হবে। তবে নির্দিষ্ট একটি প্রক্রিয়াধীন নিয়মে ব্যবস্থা নিতে হবে। হেড অফিস থেকে আমাদের দিক নির্দেশনা দিবে, আমরা সেই আদেশের অপেক্ষায় আছি। নির্দেশ পাওয়ার সাথে সাথে আমরা ব্যবস্থা নিব।

আদালত কর্তৃক নির্দেশিত ভেজালযুক্ত পণ্যগুলো হলো:

সরিষার তেল- সিটি অয়েল মিলের তীর, গ্রিন ব্লিসিং ভেজিটেবল অয়েল কোম্পানির জিবি, বাংলাদেশ এডিবল অয়েলের রূপচাঁদা, শবনম ভেজিটেবল অয়েলের পুষ্টি ব্র্যান্ডগুলো।

লবণের মধ্যে রয়েছে- এসিআই, মোল্লা সল্ট, মধুমতি, দাদা সুপার, তিন তীর, মদিনা, স্টারশিপ, তাজ ও নূর স্পেশাল ব্র্যান্ডগুলো।মসলার মধ্যে রয়েছে- ড্যানিশ, ফ্রেশ, বাঘাবাড়ি স্পেশাল, প্রাণ ও সান এর গুঁড়া হলুদ; এসিআই ফুডের পিওর ব্র্যান্ডের গুঁড়া ধনিয়া।লাচ্ছা সেমাইয়ের মধ্যে রয়েছে- মিষ্টিমেলা, মধুবন, মিঠাই, ওয়েলফুড, বাঘাবাড়ি স্পেশাল, প্রাণ, জেদ্দা, কিরণ ও অমৃত ব্র্যান্ডগুলো।নুডলসের মধ্যে রয়েছে- নিউজিল্যান্ড ডেইরির ডুডলি নুডলস। কাশেম ফুড প্রোডাক্টের ‘সান’ ব্র্যান্ডের চিপসও এই তালিকায় রয়েছে।

0