বিতর্কিত কমিশনে নির্বাচনও বিতর্কিত হবে, খুবই কষ্টের ও লজ্জার: এ্যাড. দিপু

0

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, লাইভ নারায়ণগঞ্জ: আমরা সবাই ঐক্যবদ্ধভাবে নির্বাচন করতে চাই। কিন্তু বিতর্কিত নির্বাচন কমিশন যদি নির্বাচন করে, সে নির্বাচন বিতর্কিত হবে। এটা আইনজীবীদের মত সংগঠনের জন্য খুবই কষ্টের ও লজ্জার ব্যাপার হবে।
রোববার (১২ জানুয়ারি) দুপুরের দিকে নারায়ণগঞ্জ আদালত পাড়ায় তাৎক্ষণিকভাবে সংবাদ সম্মেলনে এ কথা বলেন জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি এ্যাড. আনিসুর রহমান দিপু। তার মতে, জেলা আইনজীবী সমিতির আসন্ন নির্বাচনের বিতর্কিত নির্বাচন কমিশন বহাল থাকলে নির্বাচনও বিতর্কিত হবে।

তিনি আরো বলেন, আমরা কারো বিরুদ্ধে কোনো কথা বলতে চাই না। এটা একটি পেশাজীবী সংগঠন। প্রতিবছর এখানে নির্বাচন যেভাবে হয়, আমরা চাই সেভাবেই নির্বাচন হোক। যারা নির্বাচন কমিশনে আছেন, তাদের প্রতি শ্রদ্ধা রেখে বলছি, যদি কারো বিরুদ্ধে একজন আইনজীবীও যদি অভিযোগ তুলে, তাহলে তার কমিশনে থাকা উচিৎ না। উনি অবশ্যই নিরপেক্ষ হতে হবে। সকলের শ্রদ্ধার ব্যক্তি হতে হবে। সবার মতামত নিয়ে তাকে কমিশনে রাখতে হবে।

গত বৃহস্পতিবার জেলা আইনজীবী সমিতির বার্ষিক সাধারণ সভায় আসন্ন নির্বাচনকে ঘিরে নির্বাচন কমিশনার হিসেবে এ্যাড. আখতার হোসেনের নাম ঘোষণা করেন সভাপতি এ্যাড. হাসান ফেরদৌস জুয়েল। সাথে সাথেই এর বিরোধীতা করেন আওয়ামী লীগ ও বিএনপিপন্থী আইনজীবীদের একটি অংশ। এতে সভাস্থলে হৈ-চৈ ও উত্তেজনার সৃষ্টি হয়। পরে নির্বাচন কমিশনের অন্য কারও নাম ঘোষণা না করেই সভাস্থল ত্যাগ করেন সভাপতি হাসান ফেরদৌস জুয়েল এবং তাঁর অনুসারীরা। পরে সাধারণ আইনজীবীরাও বেরিয়ে গেলে সভা পন্ড হয়ে যায়।

ওই বার্ষিক সাধারণ সভা প্রসঙ্গে এ্যাড. আনিসুর রহমান দিপু বলেন, কয়েকজনের নাম ঘোষণার পর অনেকে আপত্তি তুললে বাকিদের নাম ঘোষণা না করে, আইনজীবীদের মতামতের তোয়াক্কা না করে উনি (সভাপতি হাসান ফেরদৌস জুয়েল) চলে গেলেন। আমরা বলতে চাই, আমরা সকলে ঐক্যবদ্ধভাবে নির্বাচনে আছি, আমরা নির্বাচন করতে চাই। আমরা সমন্বয় পরিষদের শাখা সংগঠনের সদস্যরা উপস্থিত আছি। আমরা বলতে চাই যে, কারো প্রতি আমাদের অভিযোগ নাই। এজিএম ডেকে, সর্বসম্মতিক্রমে নির্বাচন কমিশন গঠন করে, নির্বাচনের তারিখ ঘোষণা করা হোক।

0