বিশ্বের সেরা ২০টি গার্মেন্টেসের প্রথম ৭টি বাংলাদেশে : মোহাম্মদ হাতেম (ভিডিওসহ)

0

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, লাইভ নারায়ণগঞ্জ: ‘আমি বিশ্বের বিভিন্ন দেশে কখন সরকারের প্রতিনিধি, কখন ব্যবসায়ীদের প্রতিনিধি হয়ে গিয়েছি। সেখানকার গার্মেন্টস কারখানা গুলো ঘুরে ঘুরে দেখেছি। আমি চ্যালেঞ্জ করে বলতে পারি, বাংলাদেশের মতো কমপ্লায়েন্স ব্যবস্থা আর কোথাও নেই। আর এটা সম্ভব হয়েছে মালিকদের আন্তরিকতা আর আপনাদের পরিশ্রমের কারণে।’
শনিবার (১৮ মে) সন্ধ্যায় নগরীর এক রেস্তোঁরায় আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে একথা বলেন বাংলাদেশ এক্সপোর্টার্স এসোসিয়েশনের ১ম সহ-সভাপতি মোহাম্মদ হাতেম।
বাংলাদেশ কমপ্লায়েন্স প্রফেশানাল সোসাইটি (বিসিপিএস) আয়োজিত ইফতার ও দোয়া মাহফিলের পূর্বে ওই আলোচনা সভাটি অনুষ্ঠিত হয়।

বাংলাদেশের মতো কমপ্লায়েন্স ব্যবস্থা বিশ্বে আর কোথাও নেই: মোহাম্মদ হাতেম

বাংলাদেশের মতো কমপ্লায়েন্স ব্যবস্থা বিশ্বে আর কোথাও নেই: মোহাম্মদ হাতেম

Geplaatst door Live Narayanganj op Zaterdag 18 mei 2019

আলোচনা সভায় মোহাম্মদ হাতেম আরও বলেন, ‘এখন বিশ্বের সেরা ২০টি গার্মেন্টেসের মধ্যে প্রথম ৭টি কারখানাই বাংলাদেশে। এমন স্থানে থেকেও এদেশে সেফটি কনসালটেন্ট দেখার জন্য বিদেশীরা কাজ করছে। আমরা দেখতে চাই, বিদেশী সেফটি কনসালটেন্ট যেন বাংলাদেশে আর না থাকে। এ লক্ষে আপনারা কাজ করে যান, এখানে বিকেএমইএ’র সহ-সভাপতি হুমায়ন কবির খান শিল্পী আছে, আমি আশা করবো উনারা সহযোগীতা করবেন।’
মোহাম্মদ হাতেম আরও বলেন, ‘অনেক দিন পরে এক সাথে এত জন কমপ্লায়েন্স সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি দেখলাম। যেটা ৫ বছর আগে কখনও চিন্তা করতে পারিনি। ২০০৫ সালে প্রথম দিকে কমপ্লায়েন্স শব্দটা শুনেছি। জাপানের একটি এনজিও প্রথম বাংলাদেশে কমপ্লায়েন্স নিয়ে কাজ করা শুরু করেছে। পরবর্তীতে কমপ্লায়েন্স নিয়ে যা কিছু শিখেছি, ওদের কাজ থেকে। শুনতে শুনতে, দেখতে দেখতে, শিখতে শিখতে এখনও অনেক কিছুই শিখার বাকি আছে। এখনও প্রতিদিনই দেশি-বিদেশী বিভিন্ন সংস্থা থেকে কমপ্লায়েন্স সর্ম্পকে দেখছি, শিখছি। আজ বাংলাদেশের গার্মেন্টস শিল্প বিশ্বের রোল মডেল হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। এই তোমরাই আমাদের পোষাক শিল্পকে বিশ্বের রোল মডেলে পরিণত করেছ। বাংলাদেশের ফায়ার সেফটি, বিল্ডিং সেফটির কারিগর তোমরা।’
বাংলাদেশ কমপ্লায়েন্স প্রফেশনাল সোসাইটির সভাপতি মো. নাঈম হোসেনের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি ছিলেন বিকেএমইএ’র সহ-সভাপতি (অর্থ) হুমায়ন কবির খাঁন শিল্পী, বিকেএমইএ’র সাবেক সহ-সভাপতি শামিম আহমেদ, বিকেএমইএ’র সাবেক পরিচালক গোলাম জাকারিয়া ভুঁইয়া।


অনুষ্ঠানে হুমায়ন কবির খাঁন শিল্পী বলেন, আমাদের সরকারের লক্ষ্য ছিলো ক্ষুধা মুক্ত, দারিদ্র্য মুক্ত বাংলাদেশ। এখন শুধু ক্ষুধা আর দারিদ্র্য মুক্ত নয়, এ অভিশাপের থেকে মুক্তির পাশাপাশি মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হয়েছে এই দেশ। আর এর পিছনে বড় অবদান গার্মেন্টস শিল্পের। তাই গার্মেন্টর্স শিল্প রক্ষায় সকলকেই সচেতন থাকতে হবে। সামনে ঈদ আসছে। আপনাদের মনে রাখতে হবে, কোন দিনই একজন মালিক চায়না তার শ্রমিকরা বেতন বোনাস না পাক। মালিকরা চেষ্টা করে, ধার দেনা করে হলেও শ্রমিকদের বেতন পরিশোধ করতে। কিন্তু কিছু লোক দেশের ভিতর, বাহিরের চক্রান্তের অংশ হয়ে কাজ শুরু করে দিয়েছে। চেষ্টা করবে সমস্যা দাঁড় করানোর। এ শিল্প সংশ্লিষ্ট সংকলকেই সচেতন হতে হবে।
এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন আরএস নীটয়ারের চেয়ারম্যান মোরশেদ সারোয়ার সোহেল, বিকেএমইএ’র পরিচালক আতাউর রহমানসহ বিভিন্ন গার্মেন্টসের কয়েক শতাধিক কমপ্লায়েন্স কর্মকর্তা।

0