বৃদ্ধা মাকে পেটানোর অভিযোগে মসজিদের ইমাম আটক

0

লাইভ নারায়ণগঞ্জ: সোনারগাঁয়ের জামপুর ইউনিয়নের জামপুর গ্রামে ষাটোর্ধ্ব বৃদ্ধা মাকে পিটিয়ে আহত করার অপরাধে ইমাম হোসাইন (৩০) নামে মসজিদের ইমামকে আটক করেছে পুলিশ।
রোববার সকালে উপজেলার ছোট ফাউশা গ্রাম থেকে তাকে আটক করা হয়। পরে তার বিরুদ্ধে তাৎক্ষণিত আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য ভ্রাম্যমাণ আদালতের হাজির করা হয়।
এ ঘটনায় আহত ওই মায়ের সুপারিশে মুচলেকা দিয়ে সোনারগাঁ উপজেলা নির্বাহি কর্মকর্তা অঞ্জন কুমার সরকারের আদালত থেকে ছাড়া পান অভিযুক্ত ইমাম হোসাইন। তিনি সোনারগাঁ উপজেলার জামপুর এলাকার মৃত তোতা মিয়ার ছেলে। আড়াইহাজার উপজেলার ফাউসা কুটি বাড়ি জামে মসজিদে ইমামতি করেন তিনি।
সোনারগাঁয়ের তালতলা তদন্ত কেন্দ্রের পরিদর্শক আহসান উল্লাহ জানান, বৃদ্ধা ফাতেমা বেগম শনিবার রাতে নিজের ছেলে ইমাম হোসাইনের বিরুদ্ধে হত্যার উদ্দেশ্যে পিটিয়ে গুরুতর জখম করার লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। ওই অভিযোগের ভিত্তিতে ইমাম হোসাইনকে আটক করা হয়।
অভিযোগের বরাত দিয়ে আহসান উল্লাহ আরো জানান, জমি সংক্রন্ত বিরোধের জেরে আদালত থেকে একটি সমন শনিবার দুপুরে ইমাম হোসাইনের কাছে পৌছায়। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে তিনি তার বৃদ্ধা ফাতেমা বেগমকে লাঠি দিয়ে পিটিয়ে আহত করেন। পরে স্থানীয়রা আহত ফাতেমা বেগমকে উদ্ধার করে সোনারগাঁ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ভর্তি করেন। কিছুটা সুস্থ হওয়ার পর বৃদ্ধা ফাতেমা বেগম রাতেই নিজে বাদী হয়ে ছেলে ইমাম হোসেনের বিরুদ্ধে থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। পরে আটক ইমাম হোসেনের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহি ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে তাকে পাঠানো হয়।
সোনারগাঁ উপজেলা নির্বাহি কর্মকর্তা অঞ্জন কুমার সরকার বলেন, অভিযুক্ত ইমামকে আটকের পর ভ্রাম্যমান আদালতে হাজির করা হয়। বিচারিক প্রক্রিয়ার সময় আহত মা তার ছেলে আর এমন করবে না বলে সুপারিশ করেন। পরে মায়ের অনুরোধ বিবেচনা করে এবং আসামী ইমাম হোসাইন ভবিষ্যতে এমন অপরাধ করবে না বলে মুচলেকা দিলে তাকে ছেড়ে দেয়া হয়।

0