বৃহৎ ঈদ জামাত আয়োজনের রহস্য জানালেন শামীম ওসমান

0

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট,লাইভ নারায়ণগঞ্জ: ইফতারের পূর্বে আল্লাহ রাব্বুল আলামিন দোয়া কবুল করেন। আল্লাহ কোরআনে নিজে উল্লেখ্য করে বলেছেন, তোমরা আমার কাছে ক্ষমা চাও, আমি তোমাদের ক্ষমা করে দিব। তাই এই সময় দোয়া কবুলের সময়টা কারো হাত ছাড়া করা উচিৎ নয়।
শুক্রবার (২৪ মে) ইফতারের পূর্বে নগরীর প্রেসক্লাব বিপরীতে নতুন সমবায় মার্কেটের ৪র্থ তলায় এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সাংসদ শামীম ওসমান এসব কথা বলেন।


জেলা ক্রীড়া সংস্থার উদ্যোগে ইফতার ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান আয়োজন করা হয়।
অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব করেন জেলা প্রশাসক ও জেলা ক্রীড়া সংস্থার সভাপতি রাব্বি মিয়া।
শামীম ওসমান বলেন, গত কোরবানির ঈদে আমরা সবচেয় বড় ঈদের জামাত আয়োজন করেছিলাম। কিন্তু সেটা আমার মনমত করতে পারেনি। তাই এবার সবেচেয়ে সুন্দর এবং আকর্ষনীয় ঈদের জামাত আয়োজন করা হবে। যাতে করে বাংলাদেশের মানুষ নারায়ণগঞ্জের দিকে তাকিয়ে থাকে।


সাংসদ বলেন, আগামি বছর থাকব কিনা তার কোন গ্যারান্টি নেই। ঈদের জামাত যেন প্রতি বছর হয় এবং সেটা নিয়মিত বজায় থাকে তার জন্য আমি জেলা প্রশাসককে অনুরোধ জানাই। এত বড় ঈদের জামাত করার পিছনে নাম কামানোর উদ্দেশ্য নেই। তবে উদ্দেশ্য তো একটা আছে, সেটা হলো এই লক্ষ মানুষের মাঝে আল্লাহ সুবহানা তা’য়ালা একজনের হাতের জন্য সবার দোয়া কবুল করবেন। তাই লক্ষ মানুষের উদ্দেশ্যে এই ঈদের জামাতের আয়োজন।
তিনি বলেন, জেলা ক্রীড়াঙ্গন আগেও ভালো ছিল এখনো ভালো আছে। এই সেক্টরে সবচেয়ে ভালো লোকেরা থাকে। নারায়ণগঞ্জের ক্রীড়া সংস্থায় যোগ্য ব্যক্তিরা নেতৃত্ব দিচ্ছেন। তাই আমরা সবাই মিলে এই জেলার ক্রীড়াঙ্গনকে আগের অবস্থানে ফিরিয়ে আনব।


সভাপতির বক্তব্যে জেলা প্রশাসক বলেন, প্রথমে রক্তের বাধনে সম্পর্ক সৃষ্টি হয়। তারপর আত্মার সম্পর্ক। আর শামীম ওসমানের সাথে আমাদের তেমনি একটা আত্মার সম্পর্ক। বাংলাদেশে এমন কোন পরিবার নেই যারা ৩ পুরুষ এমপি ছিলেন। যার একমাত্র দৃষ্টান্ত হলো নারায়ণগঞ্জের ওসমান পরিবার। শামীম ওসমানের পরিবার রাজনৈতিক ব্যাক্তি হিসেবে প্রাতাষ্ঠানিক রূপ ধারণ করেছে।
তিনি বলেন, পৃথিবীর সবচেয়ে জ্ঞানের ভান্ডার হলো আল কোরআন। যারা অনুধাবন করে কোরআন তেলওয়াত করবে, তারা নিজে থেকে হেদায়াত প্রাপ্ত হবেন। নারায়ণগঞ্জের এই ঈদের জামাত নিয়মিত বজায় রাখার জন্য আমি জেলা প্রশাসকের পক্ষ হতে একটা কমিটি গঠন করে দিব। আমরা সকলে মিলে জেলা ক্রীড়াঙ্গনকে এগিয়ে নিয়ে যাবো।
এসময় উপস্থিত ছিলেন, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক সেলিম রেজা, সদর উপজেলা চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ বিশ্বাস, সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (এউএনও ) নাহিদা বারিক, জেলা কৃষকলীগের সভাপতি ইব্রাহীম চেঙ্গিস, জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক তানভীর হোসেন টিটু। এছাড়া ক্রীড়াঙ্গনের অন্যান্য নেতৃবৃন্দ।

0