‘বোনাস নিয়ে গরিমসি বরদাস্ত করা যায় না’

0

প্রেস বিজ্ঞপ্তি: ঈদ উপলক্ষে পোশাক শিল্পের শ্রমিকদের ৫০ শতাংশ উৎসব বোনাস প্রদানের এক তরফা সিদ্ধান্ত প্রত্যাখ্যান করে বিপ্লবী গার্মেন্টস শ্রমিক সংহতির সভাপতি মাহমুদ হোসেন ও বিপ্লবী গার্মেন্টস শ্রমিক ফেডারেশনের সভাপতি অরিবিন্দু বেপারী বিন্দু এক যুক্ত বিবৃতিতে বলেছেন, বর্তমান সংকটময় জটিল পরিস্থিতিতে পোশাকশ্রমিকেরা এমনিতেই গত মাসের পুরো মজুরির পরিবর্তে ৫০/৬৫ শতাংশ মজুরির পেয়েছেন। তার উপর ঈদ উপলক্ষে শ্রমিকেরা উৎসব বোনাসও যদি পুরোটা না পান, তাহলে শ্রমিক পরিবার–গুলো ঈদ আনন্দ থেকে বঞ্চিত হবেন। শুধু তাই নয় শ্রমিকদের ঘর ভাড়া দোকান বাকীসহ অন্যান্য খরচ নির্বাহে অসমর্থ হয়ে উঠবে। ফলে অনিবার্য উদ্ভূত পরিস্থিতির জন্য সরকার ও পোশাক মালিক পক্ষকেই দায়ী থাকতে হবে।

ক্রয়াদেশ বাতিল ও স্থগিতসহ মালিকপক্ষের নানা অজুহাতকে অযৌক্তিক দাবী করে নেতৃবৃন্দ বলেছেন, উৎসর বোনাস হলো শ্রমিকের সারা বছর কাজের সঞ্চিত পারিশ্রমিক মাত্র। এছাড়া সরকারের গঠিত প্রণোদনা তহবিল থেকে ঋণ নিয়েই অধিকাংশ কারখানার মালিক এপ্রিল, মে ও জুনের মজুরি প্রদান করেছেন। ফলে উৎসব বোনাস নিয়ে গরিমসি কোন ভাবেই বরদাস্ত করা যায় না।

তারা বলেন করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলায় গার্মেন্টস মালিকদের মতো দেশের অন্যকোন শিল্প মালিকদের মধ্যে এত বেশী হাহুতাশ দেখা যায়নি। এমনকি ব্যাতিক্রম ছাড়া অপরাপর শিল্প শ্রমিকদের বেতন বোনাসের জন্য খুব একটা রাজপথেও নেমে আসতে দেখা যায়নি। কিন্তু দেশের অধিক লাভজনক এই গার্মেন্টস সেক্টরের শ্রমিকদের প্রতিনিয়তই বেতন ভাতা বোনাসের জন্য রাজপথে নেমে আসতে হচ্ছে।

কৃত্রিম সংকট তৈরী করে সরকারের প্রণোদনা লব্ধ টাকা মেরে দেওয়া কিংবা আরও অধিক পরিমাণে প্রণোদনা আদায়ের ঘৃণ্য অপকৌশল ত্যাগ করে অবিলম্বে পূর্ণ উৎসব বোনাস প্রদানের দাবী করে নেতৃবৃন্দ বলেন গার্মেন্টস শিল্পকে ধ্বংশ করার এজন্ডো বাসবায়ন করতে ছদ্মবেশী মালিকগণ শ্রমিক অসন্তোষ সৃষ্টির উপাদান ছড়াচ্ছেন কিনা সে দিকটাতে সরকারকে এখনই দৃষ্টি দেয়া দরকার।

 

 

এলএন/এইচএস/০৫২২-১৪

0