মফিজুল ইসলাম ও মোবারক হোসেনের স্মরণে দোয়া মাহফিল স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, লাইভ নারায়ণগঞ্জ: নগরীতে জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মফিজুল ইসলাম ও সাবেক সাংসদ মোবারক হোসেনের স্মরণে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সেই সাথে দোয়া মাহফিলের আয়োজন করে জেলা আওয়ামীলীগ। সোমবার (১৮ ফেব্রুয়ারি) বিকাল ৪ টায় নগরীর ২নং রেলগেইটে জেলা ও মহানগর আওয়ামীলীগ কার্যালয়ে সভাটি অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব করেন জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আব্দুল হাই। সভাপতির বক্তব্যে আব্দুল হাই বলেন, মফিজুল ইসলাম কোন হাই ব্রিড নেতা ছিলেন না। তিনি তৃণমূল পর্যায় থেকে ধাপে ধাপে কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের নেতা হয়ে উঠে ছিলেন। মফিজ ভাই সংগঠন প্রিয় লোক ছিলেন। তিনি দলের জন্য সব সময় কাজ করে গেছেন। অপরদিকে ১৯৭৬ সনে সর্বকনিষ্ঠ ২ জন সাংসদের মাঝে মোবারক ভাই ছিলেন ১জন। তিনি ২৫ বছর বয়সে এমপি হয়েছিলেন। তারা পরোপকারি ও কর্মি বান্ধব নেতা ছিলেন। আমরা যদি তাদের স্বরণ না করি ভবিষ্যৎ প্রজন্ম আমাদের স্বরণ করবে না। আলোচনা সভা শেষে তাদের মাগফেরাত ও জান্নাত কামনা করে দোয়া পরিচাল না করা হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন, জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আবু হাসনাত মো. শহিদ বাদল, সহ সভাপতি আরজু রহমান ভূইয়া, মিজানুর রহমান বাচ্চু, আসাদুজ্জামান আসাদ, জেলা মহিলা আওয়ামীলীগের সভানেত্রী ড.শিরিন বেগম, জেলা মহিলা বিষয়ক সম্পাদক মরিয়ম কল্পনা, দপ্তর বিষয়ক সম্পাদক রাসেল আহমেদ, জেলা আওয়ামীলীগের মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক সম্পাদক অ্যাড. নুরুল হুদা, সদর থানা আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মজিবুর রহমান, সোনারগাঁ উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি সামসুল হক ভূইয়া, মফিজুল ইসলামের সন্তান মো. রানা, মোবারক হোসেনের সন্তান এফরান হোসেন দিপ প্রমুখ।

0

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, লাইভ নারায়ণগঞ্জ: নগরীতে জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মফিজুল ইসলাম ও সাবেক সাংসদ মোবারক হোসেনের স্মরণে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সেই সাথে দোয়া মাহফিলের আয়োজন করে জেলা আওয়ামীলীগ।

সোমবার (১৮ ফেব্রুয়ারি) বিকাল ৪ টায় নগরীর ২নং রেলগেইটে জেলা ও মহানগর আওয়ামীলীগ কার্যালয়ে সভাটি অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব করেন জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আব্দুল হাই।

সভাপতির বক্তব্যে আব্দুল হাই বলেন, মফিজুল ইসলাম কোন হাই ব্রিড নেতা ছিলেন না। তিনি তৃণমূল পর্যায় থেকে ধাপে ধাপে কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের নেতা হয়ে উঠে ছিলেন। মফিজ ভাই সংগঠন প্রিয় লোক ছিলেন। তিনি দলের জন্য সব সময় কাজ করে গেছেন।

অপরদিকে ১৯৭৬ সনে সর্বকনিষ্ঠ ২ জন সাংসদের মাঝে মোবারক ভাই ছিলেন ১জন। তিনি ২৫ বছর বয়সে এমপি হয়েছিলেন। তারা পরোপকারি ও কর্মি বান্ধব নেতা ছিলেন। আমরা যদি তাদের স্বরণ না করি ভবিষ্যৎ প্রজন্ম আমাদের স্বরণ করবে না।
আলোচনা সভা শেষে তাদের মাগফেরাত ও জান্নাত কামনা করে দোয়া পরিচাল না করা হয়।

এসময় উপস্থিত ছিলেন, জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আবু হাসনাত মো. শহিদ বাদল, সহ সভাপতি আরজু রহমান ভূইয়া, মিজানুর রহমান বাচ্চু, আসাদুজ্জামান আসাদ, জেলা মহিলা আওয়ামীলীগের সভানেত্রী ড.শিরিন বেগম, জেলা মহিলা বিষয়ক সম্পাদক মরিয়ম কল্পনা, দপ্তর বিষয়ক সম্পাদক রাসেল আহমেদ, জেলা আওয়ামীলীগের মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক সম্পাদক অ্যাড. নুরুল হুদা, সদর থানা আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মজিবুর রহমান, সোনারগাঁ উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি সামসুল হক ভূইয়া, মফিজুল ইসলামের সন্তান মো. রানা, মোবারক হোসেনের সন্তান এফরান হোসেন দিপ প্রমুখ।

৯৫
0